Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ অক্টোবর, ২০১৭ ২৩:৩১

অসহায়ত্বে দিন কাটছে জুম্মন পরিবারের

শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট

অসহায়ত্বে দিন কাটছে জুম্মন পরিবারের
২০১৫ সালে জুম্মন লুসাই মৃত্যুবরণ করেন

বাংলাদেশ ছাড়িয়ে এশিয়া তথা বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে সুখ্যাতি ছিল জুম্মন লুসাইয়ের। ১৯৮৫ ঢাকায় এশিয়া কাপে বাংলাদেশের প্রথম হকি খেলোয়াড় হিসেবে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে হ্যাটট্রিক করেন। প্রতিপক্ষ ছিল ইরান। ২০১৫ সালের ১৮ জানুয়ারি হঠাৎ করেই সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান জুম্মন। কিংবদন্তি এই হকি তারকার পরিবার বর্তমানে নানা টানাপড়েনে দিনাতিপাত করছেন। হকিকেই ধ্যানজ্ঞান করে রাখা জুম্মন লুসাইয়ের পরিবার এখন হকিতে উপেক্ষিত।

ঐতিহ্যবাহী হকি পরিবারের সন্তান জুম্মন লুসাই। ছয় ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন ষষ্ঠ। জুম্মন ছাড়া বাকি সবাই বেঁচে আছেন। বাবা হারেঙ্গা লুসাই হকি খেলোয়াড় ছিলেন। সেই সূত্রে পরিবারের অন্যরাও ঝুঁকে পড়েন হকির প্রতি। হারেঙ্গা লুসাইয়ের একমাত্র মেয়ে মারিয়ান চৌধুরী মাম্মি। সিলেট মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদিকা মাম্মি বলেন, বাবা ব্রিটিশ আমলে পুলিশে চাকরি করতেন। ওই সময় তিনি হকি খেলতেন। তার দেখানো পথ ধরেই আমার ভাই জুম্মন, ডনডন, সাঙ্গুরা, চেমাম সবাই হকির প্রতি ঝুঁকে পড়েন। ফুফাতো ভাই রামা লুসাই একাধারে হকি ও ফুটবল খেলেছেন।

পরিবারের বড় সন্তান সাঙ্গুরা লুসাই। তিনি পূর্ব পাকিস্তান হকি দলে খেলেছেন। ডনডন লুসাইও জাতীয় দলে হকি খেলেছেন। চেমাম লুসাই হকি খেললেও বর্তমানে ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত। তাদের আরেক ভাই যৌবেল লুসাই আর্চারি প্রশিক্ষক।

অন্য ভাইরা হকি খেললেও জুম্মন লুসাই ছিলেন অগ্রসৈনিক। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের হকির বড় বিজ্ঞাপন। ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় এশিয়া কাপ হকিতে ইরানের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক করেছিলেন জুম্মন। ওই হ্যাটট্রিক এখন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক পর্যায়ের হকিতে বাংলাদেশের একমাত্র হ্যাটট্রিক। অসাধারণ নৈপুণ্যের কারণে ওই বছরই বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলেন জুম্মন। পেনাল্টি স্পেশালিস্ট জুম্মন অসাধারণ এক ফুলব্যাক খেলোয়াড়। ১৯৮৯ সালে আন্তর্জাতিক হকি থেকে অবসর নেওয়া জুম্মন লুসাই টানা খেলে গেছেন আবাহনীর হয়ে। ২০১৫ সালে ওই আবাহনী ক্লাবের অফিস কক্ষে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয় জুম্মন লুসাইয়ের। দুদিন পর হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

বর্তমানে সিলেটে আছেন জুম্মন লুসাইয়ের স্ত্রী ও দুই ছেলে। আরেক ছেলে গত আগস্ট মাসে ভারতে বেড়াতে গিয়ে হেপাটাইটিস বি-তে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। অনেকটা দৈন্যদশাতেই জুম্মন লুসাইয়ের পরিবারের দিনাতিপাত চলছে বলে মন্তব্য তার বোন মারিয়ান চৌধুরী মাম্মির। তিনি বলেন, সরকার থেকে সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনো সাহায্য পাওয়া যায়নি।


আপনার মন্তব্য