Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩০

পালিয়ে বেড়াচ্ছে সেই ‘আফগান মেসি’

ক্রীড়া ডেস্ক

পালিয়ে বেড়াচ্ছে সেই ‘আফগান মেসি’

লিওনেল মেসি বিশ্ববিখ্যাত ফুটবলার। দুনিয়া জুড়ে তার ভক্ত বা ফ্যান থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ভক্ত হওয়া যে অন্যায় তার প্রমাণও মিলছে। মূর্তুজা আহমেদি, যাকে পুরো বিশ্ব চিনে আফগান মেসি হিসেবেই। পলিথিন ব্যাগ দিয়ে বানানো আর্জেন্টাইন জাদুকর মেসির জার্সি পরা মূর্তুজার ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আর মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল ২০১৬ সালে। তারপর মেসির সঙ্গে দেখা করারও সৌভাগ্য হয়ে যায় আফগান শিশুটির। মেসির হাত ধরে ছবি তোলায় রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে ওঠে মূর্তুজা। সেই খ্যাতিই যেন আফগান মেসির জীবনে হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। একজন অমুসলিমের সঙ্গে ছবি তোলায় সাত বছর বয়সী মূর্তুজাকে খুন করতে হন্যে হয়ে খুঁজছে তালেবান সন্ত্রাসীরা। প্রাণ ভয়ে তাকে নিয়ে ঘর ছেড়েছে পরিবার। আফগানিস্তানের গাজানি প্রদেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের বাড়িটি ছেড়ে গত নভেম্বর থেকেই নিরুদ্দেশ মূর্তুজার পুরো পরিবার। ২০১৬ সালে আগানিস্তানের যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে দাঁড়িয়ে তোলা মূর্তুজার একটি ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। যে ছবিতে দেখা যায়,  মেসির বিখ্যাত ১০ নম্বর জার্সি পরে আছেন শিশু মূর্তুজা। আর্জেন্টিনার নীল সাদা স্টাইলের সেই জার্সিটি ছিল পলিথিন ব্যাগ দিয়ে বানানো। মেসির জাদুকরি খেলা দেখেই তার ভক্ত বনে যায়। দরিদ্র পরিবার মূর্তুজাকে একটি জার্সি কিনে দিতে পারেনি।  তাই পলিথিন ব্যাগ দিয়েই তৈরি করা হয় মেসির জার্সি। ছবিটি সাড়া বিশ্বে আলোড়ন তুলে। মিডিয়ার কল্যাণে সেই ছবি মেসিরও চোখে বন্দি হয়ে যায়। সেই বছরই কাতারে আর্জেন্টাইন জাদুকরের সঙ্গে দেখা করার ভাগ্যও জোটে মূর্তুজার। বার্সেলোনার প্রীতিম্যাচের দিনে তাকে কোলে নিয়ে ছবি তুলেছেন মেসি। অটোগ্রাফ সম্বলিত জার্সি ও ফুটবল মেসি উপহার দেন তার খুদে ভক্তকে। বিশ্ব জুড়ে অলোচনায় চলে আসে মূর্তুজা। মিডিয়াতে আফগান মেসির আবির্ভাব বলে চমকপ্রদ ফিচারও তৈরি করা হয়। যাকে নিয়ে আফগানদের গর্ব করার কথা তাকেই কিনা প্রাণের ভয়ে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে। তালেবান সন্ত্রাসীদের ভয়ে নিজের ভিটেমাটি ছেড়ে কাবুলে পালিয়ে এসেছে মূর্তুজা ও তার পরিবার। সেখানেই আরেকটি দরিদ্র পরিবারের সঙ্গে  বাসা ভাড়া নিয়ে অনেক কষ্টে দিন কাটছে তাদের।


আপনার মন্তব্য