শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ২২:৫৫

এবার জামালদের ফাইনালে ওঠার চ্যালেঞ্জ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

এবার জামালদের ফাইনালে ওঠার চ্যালেঞ্জ
বলা হয় এখনকার ফুটবলারদের গতি ও স্কিল নেই। আমি এর সঙ্গে একমত নই। বরং এখনকার ফুটবলাররা অনেক গতিময়। সমস্যা হচ্ছে নিজের অবস্থান, সঠিক পাস দিতে পারে না  - গোলাম সারোয়ার টিপু, জাতীয় দলের সাবেক কোচ

 

ফুটবল খেলা তো দূরের কথা, বিশ্বে বুরুন্ডি নামে দেশ আছে তা অনেকেই হয়ত জানতেন না। আফ্রিকার সেই অপরিচিত দেশই কিনা এবার বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে অংশ নিচ্ছে। তবে তাদের দুর্বল ভাবাটা যে ভুল ছিল তা মাঠেই প্রমাণ মিলেছে। ‘বি’ গ্রুপে দুই ম্যাচে তারা দাপটের সঙ্গে খেলে জয় পেয়েছে।

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে। মরিসাস ৪-১ ও সিসেলশকে হারিয়েছে ৩-১ গোলে। দুই ম্যাচে ৭ গোল দিয়ে বুরুন্ডি শক্তিমত্তার পরিচয় দিয়েছে এ নিয়ে  কারও সংশয় নেই।

সেই বুরুন্ডির বিপক্ষে ২৩ জানুয়ারি দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হারলেই যখন বিদায়, সেই ম্যাচে ৩-০ গোলে জয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে সেমিতে খেলবে। নিয়মিত অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া ও ইয়াসিনের মতো নির্ভর যোগ্য তারকা ছাড়াই বাংলাদেশ অসাধারণ খেলেছে। যে মতিন মিঞাকে উপেক্ষিত করে সাইড বেঞ্চে বসিয়ে রাখা হতো। তিনিই কিনা জোড়া গোল করে ম্যাচের নায়ক।

প্রশ্ন হচ্ছে বুরুন্ডির বিপক্ষে বাংলাদেশ কী করবে? জয় পেয়ে ফাইনালে যাবে কি? যারা বুরুন্ডিকে দুর্বল বলে সমালোচনা করেছিলেন তারাই বলছেন সব বাহাদুরি শেষ হয়ে যাবে সেমিতে। বুরুন্ডিকে কোনোভাবেই হারানো সম্ভব নয়। সত্যিই কি তাই? এ নিয়ে কথা হচ্ছিল সাবেক দেশ নন্দিত ফুটবলার ও জাতীয় দলের সাবেক কোচ গোলাম সারোয়ার টিপুর সঙ্গে। তিনি বলেন, ফুটবলে বুরুন্ডি আমার কাছেও ততটা পরিচিত ছিল না। ফুটবল খেলে এতটুকুই জানতাম। তবে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে তারা যে পারফরম্যান্স প্রদর্শন করেছে তাতে বেশ গোছানো মনে হয়েছে। পরিকল্পনা করে খেলতে পারে। সে

 

কারণে বলব বাংলাদেশ কঠিন লড়াইয়ে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে।

টিপু বলেন, স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন উঠবে ফাইনালে খেলবে কে? বাংলাদেশ না বুরুন্ডি। অনেকে হয়তো ধরেই নিয়েছেন বাংলাদেশের বিদায় ঘণ্টা বাজবে। আমি কিন্তু বুরুন্ডিকে এতটা ভয়ঙ্কর ভাবছি না, যে তাদেরকে হারানো সম্ভব নয়। আমি বলব বাংলাদেশের ফাইনাল খেলা সম্ভব। একটা কথা কি, সব দিন একইভাবে খেলা সম্ভব নয়। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যে পারফরম্যান্স দেখিয়েছে তা ৬০ ভাগ যদি ধরে রাখে আর জামাল ভূঁইয়া যদি ফেরেন মাঠে আমরা অন্যরকম বাংলাদেশকে দেখতে পারব। লাল কার্ড পাওয়ায় তপু বর্মনের কুশলী ফুটবলার খেলতে পারবে না। তার গ্যাপটা পূরণ করতে হবে।

টিপু বলেন, ‘বলা হয় এখনকার ফুটবলারদের গতি ও স্কিল নেই। আমি এর সঙ্গে একমত নই। বরং এখনকার ফুটবলাররা অনেক গতিময়। সমস্যা হচ্ছে নিজের অবস্থান, সঠিক পাস দিতে পারে না। ঘরের মাঠে সুবিধার চেয়ে অসুবিধাটাই বলব আমি। নিজ দেশের দর্শকদের প্রত্যাশা থাকে জয়ের। এটা একটা বড় চাপ। এই চাপ সামলে যদি বাংলাদেশ খেলতে পারে তাহলে জয়ের সম্ভাবনাটাই বেশি থাকবে। কোচ জেমি ডে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করছেন। আমার বিশ্বাস সেমিতে সেভাবে তিনি দল সাজাবেন। ফুটবল উন্নয়নে দরকার ধারাবাহিকতা। আগেও ছিল না এখন কেন জানি গতিময় খেলোয়াড় থাকলেও পারফরমেন্স এলোমেলো হয়ে যায়।’


আপনার মন্তব্য