শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৮:৪৫

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আয়োজনে বাঙালি খাবারের স্বাদ নিলেন বিদেশি কূটনীতিকরা

লাবলু আনসার

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আয়োজনে বাঙালি খাবারের স্বাদ নিলেন বিদেশি কূটনীতিকরা

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেনের সরকারি বাসভবনে ২২ ফেব্রুয়ারি বসেছিল কূটনীতিকদের মেলা। বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও উপ-রাষ্ট্রদূতরা ড. মোমেনের বাসায় জড়ো হয়েছিলেন শীতকালিন পিঠাসহ বাঙালি ঐতিহ্যের পরিপূরক খাবার গ্রহণের আমন্ত্রণ পেয়ে।

মেলায় বাংলাদেশ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা এবং ঘনিষ্ঠ লোকজনও ছিলেন। ছিলেন লেখক-সাংবাদিক-শিক্ষকরাও। বাংলাদেশের বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্রসমূহের কূটনীতিকরা এ সময় উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলা বাংলাদেশের। উন্নয়নের সাথে সর্বস্তরের মানুষকে একিভূত করার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবিশ্বাস্য নেতৃত্বগুণের প্রশংসাও হয় এ সময়।

উন্নয়নের গতি অব্যাহত রাখার স্বার্থেই রাজনৈতিক স্থিতি অটুট রাখার অপরিসীম প্রয়োজনের কথাও বলেন রাষ্ট্রদূত এবং হাই-কমিশনাররা। রোহিঙ্গা ইস্যুতে চলমান কূটনৈতিক তৎপরতাকে জোরদারের আলোকপাত করা হয়। বলা হয়, দিন যত বাড়ছে এ সমস্যা তত প্রকট হচ্ছে এবং বাংলাদেশের সীমানা অতিক্রম করছে। যা আঞ্চলিক নিরাপত্তাকে আরও হুমকির মুখে ঠেলে দিতে পারে।

সকাল সাড়ে ১১টায় শুরু এ আয়োজনে আগতদের স্বাগত জানান ড. মোমেন ও তার স্ত্রী সেলিনা মোমেন। চলতি পথেই ভাপা পিঠা তৈরীর দৃশ্যপট অবলোকন করেন সকলে। পাশেই সাজানো নানা রকমের পিঠার টেবিল। ছিল সেরা সব মিষ্টির বাহার। পুরো টেবিলে শোভা পাচ্ছিল রুচিদায়ক সব খাবার। পছন্দের খাবার প্লেটে নিয়ে কেউ দাঁড়িয়ে, আবার কেউ নির্দিষ্ট আসনে বসে খোশগল্পে মেতে উঠেন। সবকিছুকে ছাপিয়ে যান চীনা দূতাবাসের শীর্ষ এক কূটনীতিক। পরিচয় পর্বের শুরুতেই জানান দেন যে, গত ৭/৮ মাসের মধ্যে তিনি চীনে যাননি। তাই, করোনাভাইরাসের শঙ্কায় তিনি নেই!

এ আয়োজনে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, জাতীয় সংসদে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান কর্নেল (অব:) ফারুক, এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার তারিক করিম, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব মাসুদ বিন মোমেন। আমন্ত্রিত বিশিষ্টজনদের মধ্যে আরও ছিলেন ‘পিপলএনটেক’র প্রতিষ্ঠাতা-সিইও ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিপ, বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব শুভাশীষ সিংহ রায় এবং অধ্যাপিক আরিফা রহমান রুমা এবং আমেরিকাভিত্তিক সংবাদসংস্থা ‘এনআরবি নিউজ’র সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার।

ভরদুপুরে ভোজন আর গুচ্ছ-আলাপচারিতা শেষে বিদায়ের সময় সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান ড. মোমেন। সামনের দিনগুলোতেও সকলের আন্তরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন। 

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য