শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:৫১

রাজধানীকে মৃত্যুকূপ হতে দিতে পারি না

-গণপূর্তমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীকে মৃত্যুকূপ হতে দিতে পারি না

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম বলেছেন, ঢাকা শহরকে বাস উপযোগী, ঝুঁকিমুক্ত আধুনিক একটি নগরীতে পরিণত করার জন্য যেখানে যা করা দরকার আমরা সে পদক্ষেপ নিচ্ছি। আমরা ঢাকা মহানগরীকে একটা মৃত্যুকূপে পরিণত হতে দিতে পারি না। কিছু অর্থলিপ্সুর লোভের কারণে মানুষের জীবন চলে যাবে, তাদের পরিবার অসহায় হয়ে পড়বে, এত বড় ক্ষতি আমরা হতে দিতে পারি না।

গতকাল ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ঢাকা ইউটিলিটি রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ডুরা) আয়োজিত ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডুরার সভাপতি মশিউর রহমান খান ও পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন রুবেল।

রেজাউল করিম বলেন, সবার জন্য প্লট, ফ্ল্যাটসহ বিভিন্নভাবে আবাসন নিশ্চিত করার জন্য আমরা কাজ করছি। কিন্তু নিরাপদ, ঝুঁকিমুক্ত, পরিবেশসম্মত আবাসন আমরা এখনো গড়ে তুলতে পারিনি। আমাদের নতুন শহর ঝিলমিল, পূর্বাচল, উত্তরা ৩য় ফেজ-সেখানে আমরা ৪৫% জায়গা ফাঁকা রেখেছি, যেন দুটি বাড়ির মাঝে পর্যাপ্ত ফাঁকা জায়গা থাকে। যেন পরিবেশ দূষণ না হয়। খেলার মাঠ রেখেছি, পার্ক রেখেছি, লেক খনন করছি, বাজার, বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থা এবং চিত্তবিনোদনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। পুরান ঢাকার অপরিকল্পিত ভবন রাতারাতি ভেঙে নতুন কিছু করা সম্ভব হয়নি। আমরা সেখানে রি-ডেভেলপমেন্টের পরিকল্পনা নিয়েছি, যাতে পুরান ঢাকায় জীবন ঝুঁকিপূর্ণ না থাকে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীরও নির্দেশনা রয়েছে।

রেজাউল করিম বলেন, যে ভবনে শুধু অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা নেই, তাদেরকে নির্ধারিত সময় দিয়ে বিল্ডিং কোড অনুযায়ী অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা সম্পৃক্ত করতে বলা হবে। যে বিল্ডিংয়ে জরুরি বহির্গমন পথ নাই তাদেরকে নির্ধারিত সময়ে তা করতে হবে। যে ভবনে গ্যারেজের জায়গায় স্থাপনা করা হয়েছে তাদেরও তা সরিয়ে ফেলতে হবে। যদি না করেন আমরা ব্যবস্থা নেব।

মন্ত্রী আরও বলেন, মানসম্মত ইমারত নির্মাণের ক্ষেত্রে ফায়ার সার্ভিস, দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, সিটি করপোরেশনসহ সবার অংশগ্রহণ দরকার। রাজউককে দেখতে হবে অনুমোদিত নকশার বাইরে কোনো বিল্ডিং নির্মিত হয়েছে কিনা। তিনি বলেন, বিল্ডিংয়ের নম্বর দিয়ে পরিদর্শককে সাপ্তাহিক রিপোর্ট দিতে হবে। বেআইনি ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে আমরা অঙ্কুরেই আঘাত হানতে চাই। এক প্রশ্নের জবাবে গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, নতুন বিল্ডিং কোড আইন আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যেই গেজেট আকারে প্রকাশ হবে।


আপনার মন্তব্য