শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৩০

সহসাই ঘোষণা হচ্ছে না পূর্ণাঙ্গ কমিটি

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ

সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি সহসাই ঘোষণা হচ্ছে না বলে খবর পাওয়া গেছে। উত্তর জেলা কমিটির এবারই প্রথম পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। দলে ছিলেন না এমন লোকদের কমিটিতে রাখা, জেল-জুলুম, নির্যাতিত, মামলা-হামলার শিকার এমন ত্যাগীদের বঞ্চিত করা, একাধিক যোগ্য নেতাদের মূল্যায়ন না করাসহ নানাবিধ বিতর্ক রয়েছে খসড়া কমিটি নিয়ে। এসব প্রশ্ন তুলেই পদ-বঞ্চিত যোগ্য ও ত্যাগী নেতারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক নেতা-কর্মী বলেন, আগের কমিটির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা নেতারা এবার অনেকেই কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে আসছেন না। এমন সংবাদের ভিত্তিতেই কেন্দ্র থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়েছে। অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকা কমিটি ঘোষণা হবে নাকি সংযোজন-বিয়োজন হবে সে বিষয়ে চূড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত দেবেন দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। ক্ষোভের সঙ্গে উত্তর জেলার শীর্ষপর্যায়ের নির্যাতিত ও ত্যাগী নেতা গিয়াস উদ্দিন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমাদের নেতার ব্যক্তিগত কর্মকর্তাকে (নূর খান) দলের গুরুত্ব পদে দিয়ে কমিটি গঠনের প্রস্তাব জমা দেওয়া হয়েছে। অথচ দলের ত্যাগী, নির্যাতিত, মামলা হামলার শিকার এমন জেলা ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন তারাসহ অনেককেই বাদ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে বিস্তারিত বলেছি। এখন শুধুই ভরসা, আশার প্রতীক শেখ হাসিনার ওপর। তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন, সেটা মেনে নিয়েই এগিয়ে যাবেন বলে জানান তিনি। চট্টগ্রাম উত্তর জেলার শীর্ষ এক নেতা বলেন, দলের ৭৫ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। এটি চূড়ান্ত অনুমোদন দেবেন দলের সভানেত্রী। কমিটির বিষয়ে কী হচ্ছে, কী হয়েছে, অনুমোদনের আগেই বলা যাচ্ছে না। দলীয় হাইকমান্ড সূত্রে জানা গেছে, কেন্দ্রে অনুমোদনের জন্য পাঠানো কমিটিতে সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে রয়েছেন হাটহাজারীর অধ্যাপক মঈনুদ্দিন।

 সহসভাপতি পদে দুজনের মধ্যে আবুল কালাম আজাদ ও রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল, রাঙ্গুনীয়া থেকে দুজন, ফটিকছড়ি উপজেলা থেকে দুজন, সীতাকুন্ড থেকে একজন, মিরসরাই থেকে দুজন এবং সন্দ্বীপ থেকে একজন।

এ ছাড়া তিনজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের তালিকায় মিরসরাইয়ের নুরুল আনোয়ার চৌধুরী বাহারসহ কয়েকজন, দফতর সম্পাদক নূর খান, তিনজন সাংগঠনিক সম্পাদকের মধ্যে খাদিজাতুল আনোয়ার সনি এমপিসহ বেশ কয়েকজনের নামও রয়েছেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, অনেক ত্যাগী নেতা কমিটিতে স্থান পাচ্ছেন না বলে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ড সূত্রে নিশ্চিত করা হয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর তাকিয়ে আছেন তারা। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালামকে সভাপতি ও মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শেখ আতাউর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করেছেন কাউন্সিলররা। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সম্মেলনসহ নানাবিধ কারণে জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি এখনো ঘোষণা হয়নি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর