শিরোনাম
রবিবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৫ ০০:০০ টা
নরসিংদী জেলা ছাত্রলীগ

কমিটি ঘোষণা নিয়ে সংঘর্ষ গুলি ককটেল আহত ১৫

নরসিংদীতে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে তিন সভাপতি পদপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও গুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেহেনা আমিরুলসহ কমপক্ষে ১৫ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কমিটি ঘোষণা না করেই সম্মেলন স্থল ত্যাগ করেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। গতকাল দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। সভাপতি পদপ্রার্থী নরসিংদী সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেহানুল ইসলাম ভূঞা লেনিন বলেন, সম্মেলনে যোগ দেওয়ার সময় পৌরসভার গেটের সামনে শামীম নেওয়াজের সমর্থকরা অস্ত্র ও লাঠি নিয়ে আমাদের গতিরোধ করে। দুই রাউন্ড গুলি ও ককটেল নিক্ষেপ করে এলোপাতাড়ি লাঠিপেটা করে। এতে আমার মা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেহেনা আমিরুল, নওশাত মাহমুদ, নাজমুল আহসান নাঈম, আবুল বাশার ও তমাল দাস আহত হন। অপর সভাপতি পদপ্রার্থী জেলা ছাত্রলীগের আইন সম্পাদক রাকিবুল বলেন, আমি জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় অতিক্রম করার সময় শামীম নেওয়াজের লোকজন অস্ত্র উঁচিয়ে আমাদের গতিরোধ করে হামলা চালান। এতে রায়পুরা উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল আহমেদ, হাইরমারা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুম শিকদার, জালাল, রফিক, শফিক, সুমনসহ ১০ জন আহত হন। সকালে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) নজরুল ইসলাম হীরু (বীরপ্রতীক)। জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ আলমের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন ভূঞা প্রমুখ। প্রথম অধিবেশনের পর কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সভাপতি প্রার্থী শামীম নেওয়াজের বয়স বেশি হওয়ায় তাকে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে উদূ্ভত পরিস্থিতি এড়াতে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব কমিটি ঘোষণা না করেই সম্মেলন স্থল ত্যাগ করেন। শামীম নেওয়াজ সাংবাদিকদের বলেন, আমার বয়স নিয়ে জটিলতা হওয়ায় কেন্দ্রীয় নেতারা কমিটি ঘোষণা করেননি। নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাসেম বলেন, দুটি মিছিল অতিক্রম করার সময় মুখোমুখি হলে তাদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ঘটে। এতে কমবেশি ১০ জন আহত হতে পারে। তবে এটা কোনো উল্লেখযোগ্য ঘটনা নয়।

সর্বশেষ খবর