শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ অক্টোবর, ২০১৭ ২৩:৪১

তিন মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

নিজস্ব ও আদালত প্রতিবেদক

তিন মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

পৃথক তিন মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। এর মধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির দুই মামলায় গতকাল ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন। এ ছাড়া স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়ে দেশের মানচিত্র এবং জাতীয় পতাকার মানহানি করার অভিযোগের আরেক মামলায় ঢাকা মহানগর হাকিম নুর নবী গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ দেন। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আগামীকাল শনিবার সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনগুলো।

মামলার নথিসূত্রে জানা গেছে, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির দুই মামলায় গতকাল খালেদা জিয়ার হাজির হওয়ার দিন ধার্য ছিল। কিন্তু হাজির না হওয়ায় তার জামিন বাতিল করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। পুরান ঢাকার বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে অস্থায়ী এজলাসে ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে এ দুই মামলার বিচার চলছে। দুই মামলাতেই শুনানি শেষে ১৯ অক্টোবর পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়েছে। আদেশে বলা হয়েছে, আসামির জামিনের অপব্যবহারের ধরন এবং ২০০৮ সালের ১০ সেপ্টেম্বরের জামিননামার শর্তের লঙ্ঘন বিবেচনায় জামিন বাতিল করা হলো। তার বিরুদ্ধে এক্ষুনি গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু করা হোক। একই সঙ্গে জামিননামায় স্বাক্ষরকারী খালেদা জিয়ার জামিনদার আইনজীবীদের কাছ থেকে মুচলেকার টাকা আদায়ের বিষয়ে লিখিতভাবে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেওয়া গেল। এ ছাড়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার অন্য দুই আসামি মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদের জামিন বাতিল করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হলো।

জিয়া অরফানেজ মামলা : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় দুর্নীতির অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রাজধানীর রমনা থানায় মামলা করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক হারুনুর রশিদ। মামলায় অভিযোগ করা হয়, এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি বিদেশি ব্যাংক থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করেছেন আসামিরা। মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও বেগম জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান।

জিয়া চ্যারিটেবল মামলা : জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে অর্থ লেনদেনের অভিযোগে গত বছরের ৮ আগস্ট বেগম খালেদা জিয়াসহ চারজনের নামে তেজগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক হারুনুর রশিদ। মামলায় অভিযোগ করা হয়, ২০০৫ সালে কাকরাইলে সুরাইয়া খানমের কাছ থেকে ‘শহীদ জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট’-এর নামে ৪২ কাঠা জমি কেনা হয়। কিন্তু জমির দামের চেয়ে অতিরিক্ত ১ কোটি ২৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকা জমির মালিককে দেওয়া হয়েছে বলে কাগজপত্রে দেখানো হয়, যার কোনো বৈধ উত্স ট্রাস্ট দেখাতে পারেনি। এ ছাড়া জমির মালিককে দেওয়া ওই অর্থ ছাড়াও ট্রাস্টের নামে মোট ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা অবৈধ লেনদেনের অভিযোগ করা হয়।

মানহানি মামলা : আওয়ামী লীগ সমর্থক সংগঠন জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিকীর করা মানহানির মামলায় আদালতে হাজির না হওয়ায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর হাকিম নূর নবী। এ বিষয়ে আদালতের পেশকার মো. ইখতিয়ার রহমান জানান, গতকাল বিকালেই খালেদা জিয়ার সেই ওয়ারেন্ট রাজধানীর গুলশান থানায় পাঠানোর জন্য আদালতের নেজারত শাখায় পাঠানো হয়েছে এবং নেজারত শাখা নিয়মানুযায়ী গুলশান থানায় পাঠিয়েছে। এর আগে ২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর আদালতে এ মামলা করা হয়। মামলায় অভিযোগ করা হয়, স্বীকৃত স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়ে খালেদা জিয়া দেশের মানচিত্র এবং জাতীয় পতাকার ‘মানহানি ঘটিয়েছেন’।

বিএনপির কর্মসূচি : চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একই দিনে আরও দুটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে আগামীকাল শনিবার সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। গতকাল বিকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এ ছাড়া ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলও এর প্রতিবাদে মহানগর ও জেলা পর্যায়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি ডেকেছে। এদিকে এক বিবৃতিতে গ্রেফতারি পরোয়ানার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সরকার মিথ্যা মামলায় আক্রোশমূলক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করছে। এতে রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান হবে না। বরং দেশকে নিয়ে যাওয়া হবে চরম নৈরাজ্যের দিকে। অবিলম্বে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও মিথ্যা অভিযোগে দায়ের মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালি, দলের আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, কাজী আবুল বাশার, আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন, আমিনুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাসহ জাতীয় পতাকার মানহানিসংক্রান্ত দুটি মামলায় গতকাল বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। লন্ডনে চিকিত্সাধীন খালেদা জিয়ার মেডিকেল সার্টিফিকেট আদালতে উপস্থাপনের কথা তুলে ধরে রিজভী আহমেদ বলেন, দলের চেয়ারপারসনের চিকিত্সার মেডিকেল সার্টিফিকেটও উপস্থাপন করা হচ্ছে। সবই আদালত জানে। কিন্তু হঠাৎ করে তিন-চার দিনের মধ্যে শুরু হয়েছে মিথ্যা অভিযোগে দায়ের মামলাগুলোতে ওয়ারেন্ট জারির হিড়িক। এটা তো একেবারই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত শুধু নয়, সরকারের বিরাট কারসাজিও।’ এদিকে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে তাত্ক্ষণিকভাবে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল। গতকাল বিকালে মতিঝিল এলাকায় এ কর্মসূচি পালিত হয়। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভুইয়া জুয়েলের নেতৃত্বে এ বিক্ষোভ মিছিল হয়।

যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের কর্মসূচি : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে কাল যুবদল জেলা-মহানগরে বিক্ষোভ এবং ছাত্রদল সব জেলা-মহানগর-বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। এ ছাড়া জাতীয়তাবাদী  স্বেচ্ছাসেবক দলও কাল জেলা-মহানগর ও ১৫ অক্টোবর থানায় থানায় বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদ আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করবে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর