Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:৩১

আওয়ামী লীগের যৌথ সভায় শেখ হাসিনা

গণতন্ত্রের স্বার্থে বিএনপির সংসদে আসা উচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

গণতন্ত্রের স্বার্থে বিএনপির সংসদে আসা উচিত

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বাধীন বিএনপিকে জাতীয় সংসদে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, বিএনপি মনোনয়ন বাণিজ্য না করলে হয়তো আরও কয়েকটি আসন পেত। তারপরও যে কয়টি সিটে তারা জিতেছে, গণতন্ত্রের স্বার্থে তাদের পার্লামেন্টে আসা প্রয়োজন। গতকাল বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের উপদেষ্টা পরিষদ এবং কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের যৌথ সভার সূচনা বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় অধিকাংশ নেতাই উপস্থিত ছিলেন। এর আগে ২০১৮ সালের ৬ জুলাই গণভবনে যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগের এটাই প্রথম যৌথ সভা।    

সভায় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও দলের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী। সভায় শোক প্রস্তাব পাঠ করেন দলের দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ। পরে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মনোনয়ন বাণিজ্য নিয়ে বিএনপির নিজেদের মধ্যে কোন্দল-মারামারি হয়েছে। বিজয়ী হওয়ার মতো প্রার্থীকে তারা মনোনয়ন দেয়নি। সকালে একজন, বিকালে আরেকজনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। মানুষ জানতে পেরেছে এদের চরিত্রটা কী। এদের চরিত্র শোধরায়নি। বাংলাদেশের জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করে দিয়েছে। তারপরও একটি দলের প্রধান দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত। যাকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান করা হয়েছে, তিনিও খুন, একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা ও দুর্নীতির মামলায় বিদেশে পালাতক। তখন তাদের এমন ফল বিপর্যয় স্বাভাবিক। শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা মাঠে-ঘাটে দেখেছেন, টেলিভিশনে দেখেছেন কীভাবে তারা প্রচেষ্টা চালিয়েছিল কোনোমতে নির্বাচনটা যেন বানচাল করা যায়। কিন্তু তা তারা পারেনি। এখন বিএনপি নির্বাচনে হেরেছে, এ দোষটা তারা কাকে দেবে? দোষ দিলে তাদের নিজেদের দিতে হয়। কারণ একটি রাজনৈতিক দলের যদি নেতৃত্ব না থাকে, মাথাই না থাকে তাহলে সেই রাজনৈতিক দল কীভাবে নির্বাচনে জয়ের কথা চিন্তা করতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এটুকু বলতে পারি, আমরা যখন সরকারে এসেছি, আমরা দেশের মানুষের জন্য কাজ করেছি, জনগণের জন্য কাজ করেছি। আমরা কিন্তু কোনো প্রতিশোধ নিতে চাইনি, বা আমরা কাউকে কোনো হয়রানিও করতে যাইনি। তাদের কৃতকর্মের জন্য বা দুর্নীতির জন্য যে মামলা হয়েছে সে মামলা আপন গতিতে চলবে। বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। কাজেই সেভাবেই চলবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে আওয়ামী লীগই দীর্ঘসময় রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছে। জনগণ সে আস্থা, বিশ্বাস রেখেছে। কাজেই জনগণের প্রতি আমাদেরও কর্তব্য অনেক বেড়ে গেছে। আরও পাঁচ বছরের জন্য আমরা ম্যান্ডেট পেলাম। আমাদের এখন একটাই চিন্তা করতে হবে, আমরা বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছি সেগুলো যেমন বাস্তবায়ন করতে হবে এবং বাংলাদেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নের জন্য আরও কী কী করতে পারি তাও সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সরকার গঠন করার পর থেকে আমাদের যেটা লক্ষ্য ছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশ গড়ে তুলব। দেশের প্রতিটি মানুষের কাছে যেন স্বাধীনতার সুফল পৌঁছাতে পারে, সেভাবে পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করেছি বলেই মানুষের এই উপলব্ধিটা এসে গেছে, আওয়ামী লীগ সরকার থাকলে তারা ভালো থাকে, তাদের জীবনমান উন্নত হয়। তাদের দারিদ্র্যের কষাঘাতে জর্জরিত হতে হয় না। তারা শান্তিতে থাকতে পারে। তাদের অর্থনৈতিক উন্নতি হয়। ২০১৩ থেকে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঠেকানোর নামে বিএনপি-জামায়াত জোটের অগ্নিসন্ত্রাস করে মানুষ হত্যা করার সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, এটা দেশের মানুষ কখনো মেনে নিতে পারেনি। ২০১৪ সালে আবার আমরা সরকার গঠন করি। আমাদের সৌভাগ্য যে, আমরা একটানা ১০ বছর হাতে সময় পেয়েছিলাম, যার ফলে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে একটা উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। রাষ্ট্র পরিচালনায় আমরা জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করতে পেরেছি। ফলে ২০১৮ সালের নির্বাচনেও জয়লাভ করেছি। শেখ হাসিনা বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে যারা দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিল- কী করবে, তারাও কিন্তু সবাই এগিয়ে এসেছিল আমাদের এই নির্বাচনে সমর্থন দেওয়ার জন্য। বিশেষ করে আওয়ামী লীগকে সমর্থন দেওয়ার জন্য। এখানে ছাত্র-শিক্ষক, কৃষক-শ্রমিক, কামার-কুমার, জেলে-তাঁতী, মেহনতি মানুষ, ব্যবসায়ী সম্প্রদায় থেকে শুরু করে প্রত্যেকের মাঝে একটি আকাক্সক্ষা ছিল- আওয়ামী লীগ সরকারে এলে তারা ভালো থাকবে, আওয়ামী লীগ এলে দেশটা ভালো চলবে, আওয়ামী লীগ এলে দেশের উন্নতি হবে। এই উপলব্ধিটা তাদের মাঝে ব্যাপকভাবে দানা বাঁধে। তাই টানা তৃতীয় মেয়াদে জয়ী হয়ে সরকার গঠনের সুযোগ দেওয়ায় দেশের সব স্তরের মানুষের সমর্থনের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ এবং ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাচনে জয়ের ধারা ধরে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিজয়ের ধারা উপজেলা নির্বাচনেও ধরে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ। এজন্য সঠিক প্রার্থী বাছাই ও সংসদ নির্বাচনের মতোই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে দলের নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গতকাল বিকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে দলীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের যৌথ সভায় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন বলে উপস্থিত একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। সভায় মনোনয়নবঞ্চিত নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে জানিয়ে হতাশ না হতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। মনোনয়নবঞ্চিত জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বি এম মোজাম্মেল হক, মেজবাহ উদ্দিন সিরাজ ও এস এম কামালের নাম ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘হতাশ হইও না, অন্যভাবে মূল্যায়ন করব।’ শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বিকাল সাড়ে ৩টায় শুরু হওয়া বৈঠক চলে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। সভায় দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ, এইচ টি ইমাম, ড. হোসেন মনসুর, কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ, এস এ খালেক, মহীউদ্দীন খান আলমগীর, মুকুল বোস, প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, আখতারুজ্জামান, আজমত উল্লা খানসহ কয়েকজন নেতা বক্তব্য দেন। বৈঠক সূত্র জানান, বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জাতীয় নির্বাচনে আমাদের বিশাল বিজয় হয়েছে। কোনো কোনো আসনে সবচেয়ে ভালো ফল হয়েছে, কোনোটায় হয়নি। যেসব আসনে ভালো ফল হয়েছে, সেগুলোর ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। আর যেসব আসনে তুলনামূলক ফল ভালো হয়নি, সেগুলোয় ভালো না হওয়ার কারণ খুঁজে বের করতে সাংগঠনিক সম্পাদকদের নির্দেশ দেন তিনি। উপজেলা নির্বাচনে জয়ের ধারা ধরে রাখার ওপর গুরুত্ব দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এত সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার পরও বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট নেতারা নানা অভিযোগ করছেন। তারা বলছেন, নির্বাচনে নাকি কারচুপি হয়েছে। উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ের এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। এ নির্বাচনে বিশাল বিজয়ের মধ্য দিয়েই তাদের সমালোচনার জবাব দিতে হবে। এজন্য সংগঠনকে কীভাবে আরও শক্তিশালী করা যায় সে ব্যাপারে তিনি ভাবতে বলেন নেতাদের। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য গঠিত ১৫টি উপকমিটির সবার কাজের প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, নির্বাচনী কাজের জন্যই অনেককে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। তাদের যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তা তারা ভালোভাবে পালন করেছে। তারা ঢাকায় বসে সারা দেশে সমন্বয় করা, বিদ্রোহী প্রার্থীদের বসানোসহ অনেক কাজ করেছে। এ ছাড়া নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান এইচ টি ইমাম সাহেবও ভালো কাজ করেছেন।

 


আপনার মন্তব্য