শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ জুন, ২০১৯ ২৩:৩০

স্মার্টফোনে অধিক শুল্ক নির্ধারণ

বাড়বে অবৈধ আমদানি রাজস্ব হারাবে সরকার

নকল ফোনে বাজার সয়লাব ক্ষতিগ্রস্ত প্রকৃত ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রস্তাবিত বাজেটে স্মার্টফোনে অধিক হারে শুল্ক নির্ধারণ করায় সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হবে। এতে অবৈধ পথে স্মার্টফোন আমদানি ও বিক্রি বাড়বে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ীরা। নকল ফোনে বাজার সয়লাব হলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন প্রকৃত ব্যবসায়ীরা। স্মার্টফোন আমদানিকারকদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা গেছে, দেশের আইফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২৫ লাখের বেশি। কিন্তু বিটিআরসির তথ্য থেকে জানা গেছে, বিগত পাঁচ বছরে বৈধভাবে আমদানি হয়েছে ৩৫ হাজার। একই চিত্র শাওমি, হুয়াওয়ে, নকিয়া, অপ্পোসহ অন্যান্য ব্র্যান্ডের ক্ষেত্রেও দেখা যায়। বাংলাদেশে স্মার্টফোন শিল্পের সম্ভাবনা প্রচুর। এ দেশে স্মার্টফোনের কারখানা স্থাপিত হলে একদিকে যেমন দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে, পাশাপাশি কর্মসংস্থানও সৃষ্টি হবে। তবে এতে কিছুটা সময় লাগবে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে দেখা যায়, স্মার্টফোনের ওপর অর্পিত শুল্ক ৩২ শতাংশ থেকে ৫৭ শতাংশে উন্নীতের প্রস্তাব করা হয়েছে। বর্তমানে স্মার্টফোন ব্যবহার করা হচ্ছে একটি মিনি কম্পিউটার হিসেবে। তথ্য আদান-প্রদানের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হয়ে উঠেছে স্মার্টফোন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার থেকে শুরু করে ডিজিটাল আর্থিক লেনদেন, কৃষি উন্নয়ন, স্বাস্থ্যসেবাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহায়ক হিসেবে কাজ করছে। এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও জনগণকে অবহিত করতে আজ বেলা ১১টায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী অ্যাসোসিয়েশন। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নিজাম উদ্দিন জিটু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘উচ্চমাত্রার শুল্কের কারণে স্মার্টফোন মার্কেটে অবৈধ আমদানিকারকরা উৎসাহিত হচ্ছে। খুব অল্প দামে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে স্মার্টফোন বাজারজাত করছেন অবৈধ ব্যবসায়ীরা। এতে বৈধ স্মার্টফোন আমদানিকারকরা ব্যবসা পরিচালনা করতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন। অবৈধ আমদানির কারণে সরকার বড় অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকার প্রথম তিন মাসের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে ৫-১০ শতাংশ শুল্ককরণের মাধ্যমে মোট রাজস্ব আদায় করতে পারে। পরবর্তী তিন মাসে যদি প্রস্তাবিত উচ্চ শুল্ককরণের মাধ্যমে রাজস্ব আদায় করে তাহলে রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে বিশাল পার্থক্য নির্ণয় করতে সক্ষম হবে।’ মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী ইয়াসির হোসেন বলেন, ‘এই উচ্চমাত্রার শুল্কের ফলে স্মার্টফোন সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। নকল ও শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আমদানি করা স্মার্টফোনে বাজার সয়লাব হচ্ছে।’


আপনার মন্তব্য