শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুলাই, ২০২০ ০০:১৭

প্রতারণা নিয়েই ব্যস্ত থাকত সাহেদ

রিজেন্ট হাসপাতালের সাতজন রিমান্ডে

সাখাওয়াত কাওসার

প্রতারণা নিয়েই ব্যস্ত থাকত সাহেদ

প্রতারণা নিয়েই ব্যস্ত থাকতেন রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম ওরফে মোহাম্মাদ শহীদ। ভয়ঙ্কর প্রতারক সাহেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক অধিশাখা-২ থেকে পুলিশ সদর দফতরকে একটি চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু রহস্যজনক কারণে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। উল্টো বঙ্গভবন থেকে শুরু করে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ সব অনুষ্ঠানে ছিল সাহেদের সরব উপস্থিতি। গত ১০ বছর ধরে বিশিষ্টজনদের সঙ্গে ছবি উঠিয়ে ফেসবুকে দিয়ে নিজেকে জাহির করতেন। সাবেক সেনা কর্মকর্তা পরিচয়ে ‘বিডি ক্লিক ওয়ান’ নামে একটি এমএলএম কোম্পানি খুলে ৫০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক উপকমিটির সদস্যের পদ বাগানোর পর তার প্রতারণার মাত্রা বেড়ে যায়।

অন্যদিকে, প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার রিজেন্ট হাসপাতালের সাতজনকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। এ ছাড়া উত্তরা শাখার পর গতকাল রিজেন্ট হাসপাতাল মিরপুর শাখাকে সিলগালা করে দিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র বলছেন, জামায়াত সমর্থক পরিবারের সন্তান সাহেদ বিএনপি আমলে হাওয়া ভবনের নাম করে হরদম প্রতারণা করতেন। ফলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার অনেকেই সে সময় তাকে সমীহ করে চলতেন। অনেকের নাম ভাঙিয়ে নিজেকে একেক সময় সাবেক সেনা কর্মকর্তা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এডিসির পরিচয় দিয়ে অনেককেই তটস্থ করে রেখেছিলেন। সাহেদের বিভিন্ন অপকর্মের খবর জানার পরও রীতিমতো অসহায় বোধ করত আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো।

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের মুখপাত্র সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, বাংলাদেশের হর্তাকর্তাদের সঙ্গে তিনি ছবি তুলেছেন। এটা আসলে তার একটা মানসিক অসুস্থতা। এ ছবি তোলাকে কেন্দ্র করেই তিনি প্রতারণা করতেন। তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তিনি কোনোভাবেই দেশ ছেড়ে পালাতে পারবেন না। সাহেদের রাজনৈতিক পরিচয় সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে র‌্যাব মুখপাত্র বলেন, প্রতারকদের কোনো রাজনৈতিক পরিচয় নেই। তারা যখন যার নাম পারে তখন সেটা বেচে নিজের জীবনকে অগ্রগামী করার চেষ্টা চালায়। প্রতারণার মাধ্যমে সাহেদ বহু মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। প্রতারণাই ছিল তার প্রধান ব্যবসা। এমএলএম কোম্পানির মাধ্যমে মানুষের সঙ্গে আর্থিক প্রতারণার জন্য এর আগে এই ব্যক্তি কারাগারেও গিয়েছিলেন। র‌্যাব কর্মকর্তা সারওয়ার জানান, গত তিন মাসে তিনি আমাদের হিসাবমতে প্রায় আডাই থেকে তিন কোটি টাকা মানুষের কাছ থেকে অপকর্মের মাধ্যমে নিয়েছেন। সূত্র বলছেন, সাহেদ ওরফে শহীদের প্রতারণার বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক অধিশাখা-২ থেকে পুলিশ সদর দফতরকে একটি চিঠি দেওয়া হয়। তবে রহস্যজনক কারণে ওই ব্যাপারে কোনো তৎপরতা দেখায়নি পুলিশ। উপসচিব মোহা. নায়েব আলী স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে (স্মারক নম্বর ৪৪.০০.০০০০.৭৫.০৮.০০৪.১৪.৭১৭) উল্লেখ করা হয়, মোহাম্মদ শহীদ বিভিন্ন সময়ে নিজেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেজর/লে. কর্নেল এবং ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজের ছাত্র ও সেনাবাহিনীর ১৪তম বিএমএ লং কোর্সের অফিসার হিসেবে পরিচয় প্রদান করে বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছেন। তিনি বিগত ১৯৯৬-২০০০ সময়ে তৎকালীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এডিসি ছিলেন মর্মেও পরিচয় প্রদান করে থাকেন। অভিযুক্ত ব্যক্তি একজন ভয়ঙ্কর প্রকৃতির লোক। তিনি নানা ধরনের প্রতারণামূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত। অভিযুক্ত ব্যক্তির নামে প্রতারণার দায়ে ইতোমধ্যে ৪২০ ধারায় ঢাকার বিভিন্ন থানায় ৩১টি এবং বরিশালে ১টি- মোট ৩২টি মামলা রয়েছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তার বিরুদ্ধে হওয়া ৩২টি মামলায় তিনি দুই বছর জেল খাটেন মর্মে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তদন্তসূত্র বলছেন, বিএনপির সময় তৎকালীন হাওয়া ভবনের নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা করে অনেক টাকার মালিক হন সাহেদ। পরে প্রতারণা মামলায় ১/১১-এর ফখরুদ্দীন সরকারের সময় তিনি দুই বছর জেলে ছিলেন। জেল থেকে বের হয়েই মেজর (অব.) ইফতেখার করিম চৌধুরী নামে ২০১১ সালে ধানমন্ডির ১৫ নম্বর রোডে ‘বিডি ক্লিক’ নামে এমএলএম কোম্পানি খুলে কমপক্ষে ৫০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেন। বেশ কিছুদিন আত্মগোপনে থাকার পর ২০১৪ সালে আবার প্রকাশ্যে আসেন। আবার শুরু করেন নতুন নতুন কৌশলে প্রতারণা। তার প্রতারণার খপ্পর থেকে বাদ যাননি প্রভাবশালী ব্যক্তিদের স্বজনরাও। সেনাবহিনীর সাবেক কর্নেল পরিচয়ে মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক বিমানবন্দর শাখা থেকে ৩ কোটি টাকা নিয়ে আর ফেরত দেননি সাহেদ। এ সম্পর্কিত ২টি মামলা আদালতে বিচারাধীন। প্রতারণার টাকায় সাহেদ উত্তরা পশ্চিম থানার পাশে গড়ে তুলেছেন রিজেন্ট কলেজ ও ইউনির্ভাসিটি, আরকেসিএস মাইক্রোক্রেডিট ও কর্মসংস্থান সোসাইটি যদিও এর একটিরও কোনো বৈধ লাইসেন্স নেই। আর অনুমোদনহীন আরকেসিএস মাইক্রোক্রেডিট ও কর্মসংস্থান সোসাইটির ১২টি শাখা করে হাজার হাজার সদস্যের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এর আগেও তিনি উত্তরা ৪, ৭ ও ১৩ নম্বর সেক্টরে ভুয়া শিপিংয়ের ব্যবসা করেছেন। সেই ভুয়া প্রতিষ্ঠানের নামেই সাধারণ মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

অফিস নয় যেন বালাখানা : ধানমন্ডির সেই বিডি ক্লিক থেকে রিজেন্ট হাসপাতাল। সাহেদ তার প্রতিটি অফিসেই সুন্দরী রমণীদের নিয়োগ দিতেন। অনেক প্রভাবশালীকে নিজের অফিসে এনে সুন্দরীদের দিয়ে বাগিয়ে নিতেন বড় বড় কাজ। তাদের অনেকের সঙ্গে সাহেদ সুন্দরী নারীদের দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করাতেন বলে অভিযোগ রয়েছে। রিজেন্ট হাসপাতালের অপকর্মের দায়ে গ্রেফতারদের কাছ থেকেও সাহেদের ভয়ঙ্কর অপকর্মের তথ্যে রীতিমতো বিস্মিত র‌্যাব।

সাতজনের পাঁচ দিনের রিমান্ড : করোনা টেস্ট না করে সার্টিফিকেট দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের বিরুদ্ধে করা মামলায় সাতজনকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি অন্য একজনকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে। গতকাল ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী এ আদেশ দেন। এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার পুলিশ পরিদর্শক আলমগীর গাজী আটজনকে আদালতে হাজির করে সাতজনকে সাত দিন করে রিমান্ডে নেওয়ার এবং কামরুল ইসলামকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর আবেদন করেন। শুনানি শেষে সাতজনকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে ও একজনকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। রিমান্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন আহসান হাবীব, আহসান হাবীব হাসান, হাতিম আলী, রাকিবুল হাসান ওরফে সুমন, অমিত বণিক, আবদুস সালাম, আবদুর রশীদ খান ওরফে জুয়েল। কামরুল ইসলাম কিশোর হওয়ায় গাজীপুর কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে। প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় বাদী হয়ে মামলাটি করে র‌্যাব। মামলায় হাসপাতালের মালিক সাহেদসহ ১৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রধান আসামিসহ নয়জন পলাতক রয়েছেন। অন্য আসামিরা হলেন রিজেন্ট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদ পারভেজ, রিজেন্ট হাসপাতালের কর্মী তরিকুল ইসলাম, আবদুর রশীদ খান জুয়েল, মো. শিমুল পারভেজ, দীপায়ন বসু, আইটি কর্মকর্তা মাহবুব, সৈকত, পলাশ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা আহসান হাবীব (১), হেলথ টেকনিশিয়ান আহসান হাবীব (২), হেলথ টেকনোলজিস্ট হাতিম আলী, অভ্যর্থনাকারী কামরুল ইসলাম, প্রকল্প প্রশাসক মো. রাকিবুল ইসলাম, মানবসম্পদ কর্মকর্তা অমিত বণিক, গাড়িচালক আবদুস সালাম ও নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুর রশিদ খান।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর