শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ এপ্রিল, ২০২০ ২৩:৪২

সব খাতেই সহায়তা দিতে হবে

-ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম

সব খাতেই সহায়তা দিতে হবে

সাবেক তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেছেন, সরকার শুধু রপ্তানিমুখী শিল্পের জন্য সহায়তা তহবিল ঘোষণা করেছে। কিন্তু সব খাতই তো বিপর্যস্ত। এজন্য সবার আগে ক্ষুদ্র, মাঝারি, বৃহৎ শিল্পসহ অন্যান্য ব্যবসা খাতেও সহায়তা দিতে হবে। একই সঙ্গে রপ্তানিমুখী শিল্পের সহায়ক শিল্পের যেসব কারখানা রয়েছে সেগুলোতেও একইভাবে সহায়তা  দিতে পারত সরকার। কেননা রপ্তানিমুখী শিল্পকে সহায়ক হিসেবে এসব কারখানাকে ৫ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজের মধ্যেই ঢোকানোর সুযোগ রয়েছে। ড. মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম আরও বলেন, অনানুষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকরা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে থাকবে সব সময়ই। কেননা তাদের দায়িত্ব কেউই নেয় না। অথচ মোট শ্রমিকের প্রায় ৮৫ ভাগই অনানুষ্ঠানিক খাতের সঙ্গে যুক্ত। বৃহৎ শিল্পের সঙ্গে স্থায়ী ও টেকসই কর্মসংস্থানের বিষয়টি জড়িত। কোম্পানির আর্থিক ভিতের কারণে এ খাতের শ্রমিক-কর্মচারীরা নিরাপদ বোধ করেন। কিন্তু সেগুলোও আজ বিপর্যস্ত। ফলে এ খাতেও সরকারের সহায়তা থাকা জরুরি। অনানুষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের হিসাব রাখা বেশ কঠিন। এ ছাড়া তারা তো সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচির আওতায় সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। কিন্তু যারা শিল্প খাতে কাজ করেন তাদের সম্পর্কিত তথ্য সংরক্ষিত থাকে। সেখান থেকে তাদের তালিকা ধরে সরকার চাইলে খাদ্য রেশনিং করতে পারে; যা শিল্পের মালিকদের জন্য বিরাট সহায়তা হিসেবে কাজ করবে। সাবেক এই উপদেষ্টা বলেন, শুধু যে নগদ টাকা দিয়েই সহায়তা দিতে হবে এমনটি নয়। সরকার চাইলে ভিন্ন ভিন্ন প্রক্রিয়ায় এ সহায়তা দিতে পারে। নীতিসহায়তা, সুদ কমিয়ে দেওয়া অথবা কিস্তিগুলোকে ছোট করে লম্বা সময় দেওয়া যায়। এ ছাড়া এসব শিল্পের শ্রমিক-কর্মচারীদের জন্য রেশনিংয়ের মাধ্যমে খাদ্যসহায়তাও দিতে পারে। ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন সেখানে হয়তো তিনি এ ধরনের আরও বিভিন্ন রকম উদ্যোগের ঘোষণা দেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর