শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৪ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ মার্চ, ২০২১ ২৩:১৫

বাড়ছে দর্শনার্থী ও বিক্রি

মোস্তফা মতিহার

বাড়ছে দর্শনার্থী ও বিক্রি

দিন যত যাচ্ছে বইমেলার প্রতি মানুষের আগ্রহ ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে। চলমান করোনা পরিস্থিতিতে এবারের মেলায় লোকজন খুব একটা আসবে না এবং অলস সময় কাটাবে প্রকাশনা সংস্থায় কর্মরতরা এমন ধারণা নিতান্তই ভুলে ভরা ছিল গতকাল মেলার ষষ্ঠ দিনে। এদিন বিকাল ৩টায় মেলার প্রবেশদ্বার উন্মোচনের পর মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বইপ্রেমীদের ভিড় বাড়তে থাকে। সন্ধ্যার দিকে মেলার লোকসমাগম এবারের মেলাকে সফলতার দিকে একধাপ এগিয়ে রাখে বইপ্রেমীরা। লোকজনের আগমন আর স্টল ও প্যাভিলিয়ন ঘুরে ঘুরে বইকেনা- এ দিনের মেলার পরিবেশে নান্দনিকতার চিহ্ন ফুটিয়ে তুলেছে। মেলায় লোকজন কেমন আসছে এবং এবারের মেলায় করোনা কোনো প্রভাব ফেলছে কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে কথা প্রকাশের ব্যবস্থাপক ইউনুস আলী বলেন, আমি তো মনে করি বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবারের মেলায় লোকজন বেশি আসছে। গত বছর মেলার পরিসর ছিল সাড়ে ৮ লাখ বর্গফুট আর এবারের মেলার পরিসর ১৫ লাখ বর্গফুট। অর্থাৎ গত বছরের চেয়ে এবার মেলার পরিসর দ্বিগুণ। গতবারের পরিমাণও যদি লোকজন আসে তাহলেও এবারের মেলায় তা কম মনে হবে। কারণ এত বড় পরিসরে যত মানুষই আসুক কমই মনে হবে। অন্যদের কথা বলতে পারব না এবারের মেলার সফলতা নিয়ে আমি ভীষণ রকমের আশাবাদী। বিগত পাঁচ দিনের তুলনায় গতকাল ষষ্ঠ দিনে প্রায় সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে মেলায় প্রবেশ করেছে। আগত ও প্রকাশনা সংস্থায় কর্মরতদের মুখেও মাস্ক ছিল।

নতুন বই : বাংলা একাডেমির জনসংযোগ উপবিভাগের তথ্যমতে, গতকাল মেলার ষষ্ঠ দিনে নতুন বই এসেছে ১১৮টি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বইগুলো হলো- আগামী প্রকাশনী এনেছে হায়দার মোহাম্মদ জিতুর বঙ্গবন্ধু থেকে দেশরত্ন, সময় প্রকাশন এনেছে মো. মাহবুবর রহমানের আওয়ামী লীগের শাসনকাল ১৯৭২-১৯৭৫, অনন্যা এনেছে হাবীবুল্লাহ সিরাজীর উপন্যাস ‘পরাজয়’ ইত্যাদি।

মূলমঞ্চ : বিকাল ৪টায় বইমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী : মুক্তিযুদ্ধ ও নারী’ শীর্ষক আলোচনা। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মনিরুজ্জামান শাহীন। আলোচনায় অংশ নেন মোহাম্মদ জাকীর হোসেন এবং এ কে এম জসীমউদ্দীন। সভাপতিত্ব করেন সেলিনা হোসেন।

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর