শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২৩ ০০:০০ টা
সিটি নির্বাচন

মাঠে সাবেক মেয়রপুত্র বর্জন ডা. মনীষার

রাহাত খান, বরিশাল

বরিশাল সিটি নির্বাচনে অনানুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় স্থাপন করছে তারা। আগামীকাল শুক্রবার এর উদ্বোধন করা হবে। ওয়ার্ড পর্যায়েও অফিস স্থাপনসহ বিভিন্ন উপকমিটি গঠনের কার্যক্রম চলছে তাদের। এদিকে গণসংযোগ, সভা, সমাবেশের মধ্য দিয়ে নির্বাচনী কার্যক্রম অব্যাহত রাখলেও ইভিএমে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে যত সংশয় জাপা প্রার্থীর। আর সিটি নির্বাচনকে প্রহসন উল্লেখ করে বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বাসদ। অন্যদিকে আজ সংবাদ সম্মেলনে প্রার্থিতা ঘোষণা করবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশ।

মাঠের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচনে যাচ্ছে না। তবে দলটির সাবেক মেয়র প্রয়াত আহসান হাবিব কামালের ছেলে কামরুল আহসান রূপণ স্বতন্ত্র লেবাসে নেমেছেন নির্বাচনী লড়াইয়ে।

আগামী ১২ জুন বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) নির্বাচন। বর্তমান মেয়র সাদিক আবদুল্লাহর পরিবর্তে তার চাচা আবুল খায়ের খোকন সেরনিয়াবাত আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ায় দেশ-বিদেশে যত আলোচনা তাদের নিয়ে। মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ার পর থেকে ঢাকায় অবস্থান করছেন মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও বিদায়ী মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ। তার অনুপস্থিতিতে মাঝিহীন নৌকায় মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের নির্বাচনী তৎপরতা নেই। তবে মেয়রবিরোধী হিসেবে পরিচিত ১০ জন ওয়ার্ড কাউন্সিলর, মহানগর যুবলীগ, শ্রমিক লীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাত। গোপনে তার সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছেন মহানগর আওয়ামী লীগের পদবিধারী অনেকেই। আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় বিধিনিষেধ থাকায় সভা-সমাবেশ ও গণসংযোগের মধ্য দিয়ে প্রাথমিক প্রস্তুতি সেরে নিচ্ছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী। তার প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় নির্মাণের কাজ চলছে সার্কিট হাউসের সামনে। আগামীকাল বাদ আসর প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ের উদ্বোধন হবে বলে জানিয়েছেন মহানগর যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক মো. শাহিন সিকদার। একই সঙ্গে নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে নির্বাচনী অফিস স্থাপনের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বাবলু জোমাদ্দার। সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দফতর, প্রচার, আপ্যায়ন, সমন্বয়সহ বিভিন্ন উপকমিটি গঠনের কার্যক্রম চলছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী খোকন সেরনিয়াবাতের ব্যক্তিগত একান্ত সহকারী মো. রুবেল হাওলাদার।

শিগগিরই কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার মাধ্যমে নৌকার আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এ কে এম জাহাঙ্গীর। সিটি নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিয়ে গভীর ‘ষড়যন্ত্র’ শুরু হয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইকবাল হোসেন তাপস বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগসহ সভা-সমাবেশের মাধ্যমে অব্যাহত রেখেছেন নির্বাচনী কার্যক্রম। তবে তার যত ভয় ইভিএম নিয়ে। জনগণের সংশয় দূর করতে ব্যালটে সুষ্ঠু-সুন্দর ভোট করার দাবি জানিয়েছেন তিনি। এদিকে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ না থাকার অভিযোগে গতকাল সকালে নগরীর ফকিরবাড়ী রোডে বাসদ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সিটি নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন জেলা কমিটির সদস্যসচিব ও গত নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী ডা. মণীষা চক্রবর্তী। এ নির্বাচনকে প্রহসন উল্লেখ করে তদারকি সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানান তিনি। এদিকে আজ বেলা ৩টায় সংবাদ সম্মেলনে বিসিসি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করবে চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। এ লক্ষ্যে গণমাধ্যমে আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছে তারা।

অপরদিকে বিএনপি এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণা দিলেও তাদের সাবেক মেয়র প্রয়াত আহসান হাবিব কামালের ছেলে কামরুল আহসান রূপণ এবার সিটি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপি ঘরানারসহ সরকারবিরোধী সাধারণ মানুষের ভোটে মেয়র নির্বাচিত হবেন বলে আশা করেন রূপণ। ১২ জুন নগরীর ১২৩টি কেন্দ্রে ২ লাখ ৭৪ হাজার ৪০৭ জন ভোটারের ভোটে নির্বাচিত হবেন বিসিসির পঞ্চম মেয়র।

সর্বশেষ খবর