শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ অক্টোবর, ২০২০ ১০:২৪

নায়ক-ভিলেন চেনাটা কি এতই সহজ?

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

নায়ক-ভিলেন চেনাটা কি এতই সহজ?

কে নায়ক, কে ভিলেন। এটাকে একটা সহজ প্রশ্ন মনে হতে পারে। তবে উত্তরটা খুব কঠিন, দুর্বোধ্য ও জটিল। বেশিরভাগ মানুষ এ প্রসঙ্গে সিনেমা, গল্প, নাটকের বিষয়টি টেনে আনতে পারেন। কারণ এ দুটো চরিত্র নাটক, গল্প ও সিনেমার ক্ষেত্রে বেশি দেখা যায়। তবে ইতিহাসের বিশ্লেষণেও অনেক নায়ক ও ভিলেনের কথা উঠে এসেছে। আমাদের চারপাশে তাকালে মানুষ আর মানুষ। সব মানুষ কি মানুষ। সব মানুষ কি নায়ক। সব মানুষ কি ভিলেন। আবার যাকে আমরা নায়ক ভাবছি সে কি আসলে নায়ক। নাকি যাকে আমরা ভিলেন ভাবছি সে প্রকৃত নায়ক। এমনটা কি হতে পারে নায়ক ছিলেন ভিলেন, ভিলেন ছিলেন নায়ক, যা আমরা বুঝে উঠতে পারিনি। যখন বুঝেছি তখন অনেক দেরি হয়ে গেছে। সময়ের স্রোতে তা হারিয়ে গেছে। যাক এর মধ্যে মন্দের ভালো, ভালোর মন্দ একটা পরিবর্তন ঘটেছে। 

ভিলেন শব্দটার একটা প্রতিশব্দ আবিষ্কৃত হয়েছে। খল নায়ক, নায়ক শব্দটা তো আছে। অনেক দর্শন বলছে, পৃথিবীতে ভিলেন আছে বলেই নায়কদের জন্ম হয়েছে। তাহলে ভিলেন থাকাটা কি যৌক্তিক। ভিলেনের কি দরকার আছে। আমি কিছুই বলছি না। সব কিছু বলবে ইতিহাস। বিজ্ঞানও বলতে পারে। কারণ অনেক বিজ্ঞানী চিরায়ত মতবাদের অসারতা প্রমান করে ভিলেনদের চক্ষুশীল হয়ে প্রাণ দিয়েছে। তাদের বিজ্ঞান সমাদৃত হয়েছে আর জীবন দিয়ে বিজ্ঞানীরা অমর হয়েছেন। আর ভিলেনরা সময়ের গর্ভে একদিন হারিয়ে গেছেন। হয়তো এটাই প্রকৃতির বিচার। একটা কথা সব সময় মনে রাখা দরকার তা হলো মানুষ যতই তোমার প্রতি নির্দয় হবে, প্রকৃতি ততই তোমার প্রতি সদয় হবে। মনে রেখো প্রকৃতির বিচার কেউ এড়াতে পারে না।
মানুষের মধ্যে আরেক মানুষ এটাকে কি আয়নাবাজি বলে। যদি উত্তরটা হ্যাঁ হয়, তবে আয়নাবাজি সিনেমার কথাটা আনতে না চাইলেও প্রাসঙ্গিকভাবেই চলে আসে। যেখানে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের পরিবর্তে ভাড়ায় দিনের পর দিন জেল খাটে সিনেমার নায়ক আয়না। অপরাধী না হয়েও সে জীবনযুদ্ধে টিকে থাকার জন্য অপরাধীর রূপ ধরে অপরাধী সাজে আর অপরাধীরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়। আয়নাকে কি নায়ক বলা যায়। নাকি খল নায়ক। কারণ নিজেকে বাঁচাতে সে অপরাধীদের আড়াল করেছে। একটা অপরাধী যে একটা জনপদকে, একটা দেশ, একটা পৃথিবীকে খেয়ে ফেলতে পারে আয়নার নিজের খালি পেটের হাহাকার স্বার্থ তার চাইতে কি বড় হতে পারে। কে জানে এর উত্তরটা কি। যেমন ফ্রান্সের বিখ্যাত সাহিত্যিক ও ঔপন্যাসিক ভিক্টর হুগো তার বিখ্যাত উপন্যাস ‘লা মিজারেবল’ প্রসঙ্গে পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট চিঠিটি বইটির প্রকাশককে উদ্দেশ করে লিখেছিলেন।
কোনো শব্দ, বাক্য ও ভাষার ব্যবহার না করে মাত্র একটা যতি চিহ্ন দিয়ে লিখলেন ‘?’। কেউ কেউ ভাবলেন এটি মনে হয় বইটির বিক্রি কেমন তা তিনি বুঝতে চেয়েছেন। তবে আসল এই চিঠির অর্থটা কি ছিল তা আজ পর্যন্ত কেউ বের করতে পেরেছে কিনা তাতে যথেষ্ট সন্দেহ থাকতে পারে। আবার নাও পারে। তবে প্রকাশকও কম যাননি তিনিও চিঠির উত্তরটা দিয়েছেন আরেকটা যতিচিহ্ন দিয়ে। তিনি তার চিঠিতে লিখলেন ‘!’। বিস্ময়বোধক চিহ্ন। কেউ কেউ ভাবলেন চিঠির উত্তরে তিনি বুঝিয়েছেন বিস্ময়কর। তবে আসলে তিনি কি বুঝিয়েছেন তার অমীমাংসিত একটা তর্ক বিতর্ক বোধ হয় এখনও রয়েছে। হয়তো এই দুটো শব্দের অর্থ উদ্ধার করতে গিয়ে গবেষকের পর গবেষক, ইতিহাসবিদের পর ইতিহাসবিদ শরীরের ঘাম ঝরিয়েছেন। প্রশ্ন আর বিস্ময় আমাদেরও আছে।
হয়তো আমরা জানি কে ভিলেন, কে নায়ক। মুখ ফুটে বলতে চাই না। কেননা মানুষ নিজেই তো নিজেকে বিচার করার মতো জায়গায় রাখতে পারেনি। মুখের আড়ালে মুখোশ, মুখোশের আড়ালে মুখ। অনেকটা এ রকম হয়তো বা। একটা উদাহরণ এখানে আনা যেতে পারে। একটা মানুষ, তার সামনে আয়না। কিন্তু তার আশপাশের লোকজন বলছে আয়নার ভিতরের মানুষটা সে নয়। মানুষটা আত্মবিশ্বাস নিয়ে বলতেও পারছে না যে আয়নার ভিতরের লোকটা সে নিজে, অন্য কেউ নয়। কারণ পৃথিবীর যত প্রতাবশালী, ক্ষমতাবান মানুষ হোক না কেন, অনেক কিছু তারা হয়তো দেখতে পায় কিন্তু নিজের মুখটা নিজে দেখতে পায় না। আয়নার মুখটাকে নিজের মুখ বলে বিশ্বাস করে নেয়। আহা মানুষ কত অসহায়। দিনকে রাত, রাতকে দিন বানাতে পারে কিন্তু কিছু কিছু জায়গায় মানুষ খুব অসহায়। মানুষ যে মুখটা দেখতে পায় না সেটা কি নায়কের মুখ। নাকি ভিলেনের। আয়নার মুখটা কার। ভিলেনের না নায়কের।

সব কিছু কেমন যেন গোলমেলে। একটু আধটু রহস্যময়। একটু চোখ বন্ধ করে নিজেকে নিয়ে ভাবুনতো। চারপাশটা যেন অন্ধকার থাকে, পিন পতন নিস্তব্ধতা থাকে। আপনার আমার ছেলে-মেয়েগুলোর মায়াবী মুখগুলো যেন অন্ধকার চোখে আলো হয়ে ভাসতে থাকে। জীবনকে পিছন থেকে টেনে নিয়ে একটু ভাবুনতো আপনি নায়ক নাকি ভিলেন। মিথ্যে বলবেন না, নিষ্পাপ সন্তানের প্রিয় মুখগুলো আপনাকে সত্য বলতে বলছে। মনে পড়ছে আপনার হাতটা কিভাবে অবৈধ হয়ে মানুষকে শোষণ করেছে। কিভাবে আপনার লোভী মন দেশের স্বার্থকে বিক্রি করে বিদেশে টাকা পাচার করতে আপনাকে প্রভাবান্বিত করেছে। কিভাবে আপনার হাতে পুড়েছে মানুষের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা। যে বাবা তার মেয়ের বিয়ে দেবে বলে ভিটে মাটি বিক্রি করে টাকা জোগাড় করেছিল কিভাবে আপনি তা হাতিয়ে নিয়েছেন। মনে পড়ছে কিভাবে ক্রমাগত সততা হারিয়ে আপনি টাকার ক্রীতদাসে পরিণত হয়েছেন। মদের নেশায় বুদ হয়েছেন।
কিভাবে মাদক আর নেশা ছড়িয়ে দিয়েছেন তরুণ প্রজন্মের হাতে। মনে রেখেছেন তো আপনার সন্তানও এখন মাদকের দাসে পরিণত হয়েছে। এটা কি নিজ হাতে নিজের সন্তানকে হত্যা করা নয়। এটা কি আপনার রক্তাক্ত হাতে তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংস করা নয়। দেশ ধ্বংস আর বিক্রি করা নয়। মনে পড়ছে জলসা ঘরের রঙের কথা। মানুষকে ঠকানোর কথা। মনে পড়ছে নিজেকে আড়ালে রেখে চাঁদাবাজির কথা। মনে পড়ছে লুটপাট, টেন্ডার, দখল, আধিপত্য, ক্ষমতা প্রয়োগের কথা। মনে করতে চাইছে না ভিলেন মন। কিন্তু সন্তানদের মুখ মনে করতে বাধ্য করছে। কিভাবে সত্যকে মিথ্যা আর মিথ্যাকে সত্য বানিয়েছেন। মনে করুন তো। কিভাবে ভালোকে মন্দ আর মন্দকে ভালো বানিয়েছেন।

একবার হলেও চিন্তা করুন তো। হয়তো অনুতাপ হচ্ছে। অনুশোচনায় দগ্ধ হচ্ছে জীবন। একজন নায়ক আপনার মধ্যে একদিন ছিল। সরল শান্ত প্রকৃতির। আজ কেন হারিয়ে গেল। একবার ভাবুন তো। আপনার সন্তানরাও জানে আপনি ভিলেন। আপনার আশপাশের সবাই জানে আপনি ভিলেন। কেউ মুখ খুলতে চায় না। ভয় পায় আপনাকে। সামনে লোকদেখানো প্রশংসা হয়তো করে তা মন থেকে নয়। আপনি কি আবার নায়ক হতে পারেন না। ভেবে দেখবেন। কারণ জীবন বদলানোর আত্মশক্তিটা আপনার হয়তো ঘুমিয়ে পড়েছে। মরে যায়নি হয়তোবা। এতো এতো টাকার কি প্রয়োজন আছে জীবনে। যে টাকা একটা মানুষকে অন্ধ করে দেয় তার কি কোনো মূল্য আছে। হয়তো টাকাই মানুষকে কখনো নায়ক, কখনো ভিলেন বানায়। মরে গেলে সব টাকা আঁস্তাকুড়ে পড়ে থাকে। কুকুর বিড়ালও তার ধারে-কাছে যায় না। কিন্তু একটা পচনশীল সমাজ রেখে যায়। ঘুনেধরা মনুষ্যত্ব তৈরি করে যায়।
অন্ধ চোখ হয়তো সব আলো দেখে কিন্তু খোলা চোখ সব আলো দেখতে পায় না। কোথায় যেন জীবনবোধের সঙ্গে মূল্যবোধের লড়াই হয়। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের আমি কী রকমভাবে বেঁচে আছি কবিতার একটা ছত্র মনে পড়ে গেলো, আমি মানুষের পায়ের কাছে কুকুর হয়ে বসে থাকি-তার ভেতরের কুকুরটাকে দেখবো বলে। কবি একজন মানুষের কথা বলেছেন, যিনি নিজেকে কুকুর ভাবছেন। কারণ মানুষ ভিলেন হলেও কুকুর অনেক সময় নায়ক হয়। একটা কুকুর বিশ্বাসী হয়, প্রভুভক্ত হয়। আর মানুষ বিশ্বাসঘাতক হয়, খুনি হয়, নির্মম হয়। সুযোগ বুঝে ছোবল মারে আর নায়ক থেকে মহানায়ক হবার অভিনয় করে। অদৃশ্য সুতোয় হাত নাচিয়ে রঙ্গমঞ্চ সাজায়, পর্দার আড়ালে কলকাঠি নাড়ায়। সারাজীবন সে ষড়যন্ত্রের খলনায়কের অদেখায়ই থেকে যায়। সেই খলনায়কদের পায়ের নিচে মানুষ নামের কিছু মানুষ বসে থাকে। খলনায়কদের ভিতরের হিংস্র কুকুরটাকে খুঁজে বের করার চেষ্টা চালায়। প্রকৃত নায়কেরা বীরের মতো সত্যকে বের করে আনতে একবারই সিংহের মতো মরে। কাপুরুষেরা ধুঁকে ধুঁকে মরে। এমন করেই হয়তো আমরা প্রতিদিন নায়কের মধ্যে ভিলেন আর ভিলেনের মধ্যে নায়ক খুঁজি। কিন্তু শেষ পরীক্ষায় কে নায়ক কে ভিলেন তা হয়তো বুঝে উঠতে পারি না।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

 


আপনার মন্তব্য