শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ জুলাই, ২০২১ ১৩:৪৭
আপডেট : ১৬ জুলাই, ২০২১ ১৩:৫৯
প্রিন্ট করুন printer

সেদিন প্রকৃতিও কেঁদেছিল

ড. কাজী এরতেজা হাসান

সেদিন প্রকৃতিও কেঁদেছিল
ড. কাজী এরতেজা হাসান
Google News

শেখ হাসিনাকে ঘিরে সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ। আপন কর্ম মহিমায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হয়ে উঠেছেন বাংলাদেশের নতুন ইতিহাসের নির্মাতা, হিমাদ্রি শিখর সফলতার মূর্ত-স্মারক, উন্নয়নের কাণ্ডারি। 

১৯৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিহত হওয়ার আগে ছোট বোন শেখ রেহানাসহ শেখ হাসিনা ইউরোপে যান। সেখানে অবস্থানকালে তিনি সপরিবারে বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার খবর পান। তাৎক্ষণিকভাবে দেশে ফিরে আসার মতো পরিবেশ না থাকায় তিনি ইউরোপ ছেড়ে স্বামী-সন্তানসহ ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয় গ্রহণ করেন। 

১৯৮১ সালের ১৩-১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত সম্মেলনে তাকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ওই বছরের ১৭ মে প্রবাস জীবনের অবসান ঘটিয়ে বাংলাদেশে ফিরে আসেন তিনি। ১৯৮১ সাল দেশে ফেরার পর থেকেই শুরু হয় তার সংগ্রামী জীবন। 

এ প্রসঙ্গে 'শেখ হাসিনা একটি রাজনৈতিক আলেখ্য' গ্রন্থের লেখক আবদুল মতিন তার বক্তব্যের শুরুতে উল্লেখ করেন- '১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা যখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত হন, তখন কেউ কেউ ভেবেছিলেন তিনি শুধু অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রীর ভূমিকা পালন করবেন। তারা ভেবেছিলেন অদূর ভবিষ্যতে, রাজনীতি সম্পর্কে তুলনামূলকভাবে অনভিজ্ঞ শেখ হাসিনা সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে জোরালো নেতৃত্বদানে অক্ষম বলে প্রমাণিত হওয়ার পর প্রবীণ কোনো নেতার হাতে দায়িত্ব অর্পণ করে রাজনৈতিক জীবন থেকে অবসর গ্রহণ করবেন।' 

এটি ছিল শেখ হাসিনা সম্পর্কে তৎকালীন নেতাদের ভাবনা। কিন্তু তাদের সকল সমালোচনা ও ভাবনাকে পেছনে ফেলে তৎকালীন দ্বিধাবিভক্ত আওয়ামী লীগকে এক করে তিনি পৌঁছে গেছেন তার অভীষ্ট লক্ষ্যে। রাজনৈতিক দলের নেতৃত্ব গ্রহণ সম্পর্কে শেখ হাসিনার বক্তব্য ছিল অত্যন্ত সুস্পষ্ট এবং জোরালো। 

শেখ হাসিনা বলেন, 'আমি ক্ষমতার জন্য রাজনীতিতে আসিনি। এসেছিলাম একটি হারানো স্বপ্ন উদ্ধার এবং একটি রক্তাক্ত আদর্শের পতাকা আবার তুলে ধরার জন্য। কোনো কিছু পাওয়ার জন্য আমি জেলজুলুম ও গুলির মুখে বুক পেতে দেইনি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের বাংলাদেশ হায়নারা গড়ে তুলতে দেয়নি। সেই বীর শহীদদের স্বপ্ন সফল করা এবং জিয়া-এরশাদ পদ্ধতির স্বৈরশাসনের কবল থেকে বাঙালি জাতির স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকে উদ্ধার করার লড়াইয়ে আমি নিজেকে উৎসর্গ করেছি। (সূত্র :১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতির উদ্দেশ্যে শেখ হাসিনার ভাষণ)

১৯৮১ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত এক দীর্ঘ স্বৈরাচার-সামরিক-সরকারবিরোধী আন্দোলন করেছেন শেখ হাসিনা। নিজের দলকে সুসংগঠিত করতে হয়েছে। সারাবিশ্বে আজ দেশ ও জনদরদি মানবিক নেতা হিসেবে তিনি প্রতিষ্ঠিত। পিতার মতোই অসীম সাহসী, দৃঢ় মনোবল, দেশপ্রেম ও মানবিকগুণাবলী সম্পন্ন একজন আদর্শবাদী নেতা হিসেবে শেখ হাসিনা মানুষের কাছে আজ সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় নেতা। দেশের যেকোনো সংকটে তার নেতৃত্ব দলমত নির্বিশেষে সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কাছে তিনি একমাত্র গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিত্ব। সেখানে দ্বিতীয় কোনো বিকল্প নেই। 

২০০৭ সালের আজকের এই দিনে (১৬ জুলাই) তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে ২০০৮ সালের ১১ জুন দেশের আপামর জনগণের দাবির প্রেক্ষিতে সরকার তাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। ১৬ জুলাই ভোরেই যৌথবাহিনী শেখ হাসিনার ধানমন্ডির বাসভবন সুধা সদন ঘিরে ফেলে। এরপর তাকে গ্রেফতার করে নিম্ন আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়ার পরপরই শেখ হাসিনাকে সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগারে নিয়ে বন্দি করে রাখা হয়। 

গ্রেফতারের আগে তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি বানোয়াট দুর্নীতির মামলা দায়ের করা হয়। ওইসব মামলায় দীর্ঘ ১১ মাস তাকে কারাগারে আটক রাখা হয়। ওই বিশেষ কারাগারের পাশেই সংসদ ভবন চত্বরে অস্থায়ী আদালত স্থাপন করে তার বিচার প্রক্রিয়াও শুরু করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার প্রাক্কালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য, বর্ষীয়ান রাজনীতিক সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানকে আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব দিয়ে যান। 
ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিল্লুর রহমানের নেতৃত্বে দলের নেতাকর্মীরা শেখ হাসিনার মুক্তি এবং নির্বাচনের দাবিতে সংগঠিত হতে থাকে। সরকার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ ঘোষণা করলেও জিল্লুর রহমানের নেতৃত্বে দলের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় সংগঠিত প্রতিবাদ ও ধীরে ধীরে আন্দোলন গড়ে তোলে। 

দলের সভাপতির অনুপস্থিতি ও প্রতিকূল পরিবেশ-পরিস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিল্লুর রহমান নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ রাখেন এবং নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যান। আবার কারাবন্দি অবস্থায় বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নিজেও বার বার দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান। তার আইনজীবী ও চিকিৎসকরা তার সঙ্গে দেখা করতে গেলে তাদের মাধ্যমে তিনি দলকে এ ব্যাপারে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে নেতাদের কাছে বার্তা পাঠান। 

কারা অভ্যন্তরে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তার উন্নত চিকিৎসার জন্য জরুরি অবস্থার মধ্যে আওয়ামী লীগ ও এর সব সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও শ্রেণিপেশার মানুষের পক্ষ থেকে তাকে বিদেশে পাঠানোর দাবি ওঠে। এক পর্যায়ে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনে ২০০৮ সালের ১১ জুন ৮ সপ্তাহের জামিনে মুক্তি দেওয়া হয় কারাবন্দি আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে। মুক্তি পাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্র যান। 

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা গ্রেফতার হতে পারেন- এ রকম একটি আশঙ্কা দেশবাসী আগে থেকেই করছিল। অবশেষে আশঙ্কা সত্য পরিণত হয়। ১৬ জুলাই ২০০৭ সালে সোমবার ভোর ৬টায় শ্রাবণের প্রবল বর্ষণের মধ্যে সুধা সদনে প্রবেশ করে যৌথবাহিনী। সেদিন প্রকৃতিও কেঁদেছিল। সকাল ৭টা ৩২ মিনিটে যৌথ বাহিনীর সদস্যরা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করে সুধা সদন থেকে বের করে নিয়ে আসে। সুধা সদনের বাইরে দুই সহস্রাধিক বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য ঘিরে রাখে। 

বঙ্গবন্ধু কন্যা এর মধ্যে ফজরের নামাজ আদায় করেন। সাদা শাড়ি পরিহিত বঙ্গবন্ধু কন্যা সেনাবাহিনীর কাছে জানতে চান, কেন তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে? দেশে কি সামরিক শাসন জারি হয়েছে? তেমন কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি যৌথবাহিনী। শেখ হাসিনার মতো একজন মর্যাদাসম্পন্ন জাতীয় নেত্রীকে গ্রেফতার করা থেকে জেলহাজতে প্রেরণ পর্যন্ত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যৌথ বাহিনী কোনো সংযমের পরিচয় দেয়নি। সিএমএম গেটে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা সরকারের অন্যায় আচরণের বিরুদ্ধে সাহসী ভাষায় ৩৬ মিনিট বক্তব্য রাখেন। 

অবশ্য তিনি গ্রেফতারের পূর্ব মুহূর্তে দেশবাসীর উদ্দেশে একটি চিঠি লিখে যান। দেশ-জাতির সংকট মুহূর্তে বঙ্গবন্ধু কন্যার ওই চিঠি গণতন্ত্রকামী মানুষের মধ্যে নতুন আশার সঞ্চার করে। উজ্জীবিত হন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

সমসাময়িক কালের রাজনীতির ইতিহাসে শেখ হাসিনার সেদিনের চিঠি একটি ঐতিহাসিক দলিল। চিঠিতে শেখ হাসিনা দেশবাসীর প্রতি তার আস্থার কথা যেমন ব্যক্ত করেন, তেমনি গণতন্ত্রের ওই দুঃসময়ে নেতাকর্মীদের কী করণীয় তাও উল্লেখ করেন। সেদিন এদেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করতেই শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। 

শেখ হাসিনা বর্তমান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী। যিনি একধারে এদেশ এবং আওয়ামী লীগের মতো বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ সংগঠনকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন অত্যন্ত সফলতার সাথে। তার এ সফলতার যে কারণগুলোকে মোটাদাগে চিহ্নিত করা যায় সেগুলো হচ্ছে বাংলাদেশের সফলতা ও উন্নয়নের জন্য লক্ষ্য নির্ধারণ করা, সকল বাধা-বিপত্তিকে এড়িয়ে সেই লক্ষ্যে পৌঁছানো। জনগণের প্রতি প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজ করা এবং এদেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য নিজের জীবনকে বাজি রাখা। 

শেখ হাসিনা শুধু লক্ষ্য নির্ধারণ করে কাজ শেষ করেন না, উক্ত কাজের সফলতা এবং সফলভাবে সম্পূর্ণ করা পর্যন্ত তিনি সেই কাজের হাল ছাড়েন না। সে পথে যত বাধা-বিপত্তি যাই কিছু আসুক না কেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশ স্বাধীন করেছেন, এ স্বাধীনতার পথ তৈরি করার জন্য তিনি তার জীবনের মহামূল্যবান সময়গুলো কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে কাটিয়েছেন কিন্তু এদেশকে মুক্ত করে গেছেন। শেখ হাসিনাও তেমনি সারা বিশ্বের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে ও এদেশের উন্নয়ন ও মানুষের অধিকার আদায়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। 

এই করোনাকালীন সময়েও বাংলাদেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি, জীবন ও জীবিকার সংস্থান ঠিক রাখছেন তিনি। জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে নিরলস ছুটে চলা এই অগ্রগামী মানুষটির হাতকে আরো বেশি শক্তিশালী করার জন্য আমাদের সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে। আজকের এই দিনে জননেত্রী শেখ হাসিনার সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক। 

লেখক: সম্পাদক ও প্রকাশক, দৈনিক ভোরের পাতা, দ্য পিপলস টাইম, পরিচালক, এফবিসিসিআই


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ আল সিফাত