শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ অক্টোবর, ২০২০ ০৩:০০
আপডেট : ২৪ অক্টোবর, ২০২০ ১২:১০

বুসানে বসবে নোনাজলের কাব্য ও ট্রানজিট ফিল্মের হাট

ওমর ফারুক হিমেল, সাউথ কোরিয়া

বুসানে বসবে নোনাজলের কাব্য ও ট্রানজিট ফিল্মের হাট
'নোনাজলের কাব্য'র পরিচালক রেজওয়ান শাহরিয়ার (বাঁয়ে) 'ট্রানজিট'র পরিচালক আরিক আনাম খান।

বুসান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব (Busan International Film Festival (BIFF) পূর্বে পুসান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব (Pusan International Film Festival, PIFF) নামে পরিচিত ছিল। প্রতি বছর দক্ষিণ কোরিয়ার বুসান শহরের হেউন্দে বীচ সংলগ্ন এলাকায় এই চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৯৬ সালের ১৩ থেকে ২১ নভেম্বর প্রথম অনুষ্ঠিত এই চলচ্চিত্র উৎসব কোরিয়ার প্রথম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব।  বর্তমানে এই চলচ্চিত্র উৎসব এশিয়ার সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ চলচ্চিত্র উৎসব হিসেবে বিবেচিত হয়।

করোনা অতিমারিতে ভালো নেই বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প। তবে এর মধ্যেও স্বাধীনধারার নতুন নির্মাতাদের হাত ধরে আসছে দারুণ সুসংবাদ। এ বছর বাংলাদেশের দুটি সিনেমা আসছে এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ চলচ্চিত্র উৎসব বুসান ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে।

প্রতিবছর পূর্ণ ও স্বল্পদৈর্ঘ্য মিলিয়ে প্রায় ৩০০টি সিনেমা প্রদর্শিত হয় বুসান উৎসবে। কিন্তু মহামারির বাস্তবতায় এ বছর বিশ্বের ৬৮টি দেশের ১৯২টি সিনেমা নিয়ে চলবে এই উৎসব। আর সেখানেই জায়গা করে নিয়েছে রেজওয়ান শাহরিয়ার পরিচালিত 'নোনাজলের কাব্য' আর আরিক আনাম খান পরিচালিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র 'ট্রানজিট'।

আগামী ২১ থেকে ৩০ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে এই আয়োজন। এই উৎসবে নোনাজলের কাব্য প্রদর্শিত হবে  ২৮ অক্টোবর বুধবার সকাল দশটায় বুসান সিনেমা সেন্টার, সিনেমা-২ তে। অন্যদিকে আরিফ আনাম খান পরিচালিত ট্রানজিট প্রদর্শিত হবে ২৯ অক্টোবর, বৃ্হস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়।

দক্ষিণ কোরিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম, কোরিয়ায় অবস্থিত বাংলাদেশিদের ২৮ ও ২৯ অক্টোবর  বুসানে নোনাজলের কাব্য ও ট্রানজিট চলচ্চিত্র দেখার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, চলচ্চিত্রই পারে মানুষে মানুষে জাতিতে জাতিতে সম্পর্ক দৃঢ় করতে। রাষ্ট্রদূত আরো জানান, নিসন্দেহে এটি মর্যাদাপূর্ণ উৎসব।

তরুণ প্রতিভাবান নির্মাতা রেজওয়ান শাহরিয়ার সুমিত পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘নোনাজলের কাব্য’র আন্তর্জাতিক যাত্রা এগিয়ে চলেছে। একের পর এক বিশ্বের বিভিন্ন মর্যাদাপূর্ণ চলচ্চিত্র উৎসবে জায়গা করে নিচ্ছে এই ছবিটি। এরই মধ্যে ৬৪তম বিএফআই লন্ডন চলচ্চিত্র উৎসব এবং ২৫তম বুসান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে স্থান করে নিয়েছে ‘নোনাজলের কাব্য’।
বুসান চলচ্চিত্র উৎসবে ‘অফিশিয়াল সিলেকশন’ পাওয়া বাংলাদেশের এক মাত্র পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘নোনাজলের কাব্য’। 

এছাড়া রয়েছে একটি স্বল্প দৈর্ঘ্য ছবি যার নাম ট্রানজিট। আগামী ২১-৩০ অক্টোবর ২০২০ অনুষ্ঠেয় উৎসবে রেজওয়ান শাহরিয়ার সুমিতের ছবিটি বুসান সিনেমা সেন্টারে প্রদর্শিত হবে। এটির চিত্রনাট্য রচনা করেছেন সুমিত নিজেই। এটি তার প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। চৈতন্য তামহানের ‘দ্য ডিসাইপেল’ এবং ইভান আয়ারের ‘মাইলস্টোন’ এর মতো  প্রশংসিত ছবির পাশাপাশি এটি প্রদর্শন করা হবে।

বুসান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব  (বিআইএফএফ) প্রতি বছর দক্ষিণ কোরিয়ার বুসান শহরে অনুষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এই চলচ্চিত্র উৎসব এশিয়ার সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ  ও বৃহত্তম চলচ্চিত্র উৎসব হিসেবে বিবেচিত হয়।

বুসানের পূর্বে আগামী ৭ থেকে ১৮ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় ৬৪তম বিএফআই লন্ডন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শনের জন্যও নির্বাচিত হয়েছে ছবিটি। এই বছর সারা বিশ্ব থেকে মাত্র ৫৮টি ছবিকে স্থান দেওয়া হয়েছে ‘ফিচার ফিল্ম’ বিভাগে। এই চলচ্চিত্র উৎসব বিশ্বের প্রথম সারির চলচ্চিত্র উৎসবগুলোর একটি। করোনা পরিস্থিতির কারণে হাইব্রিড ফরম্যাটে হবে এবারের আসর যাতে অংশ নিচ্ছেন কেট উইন্সলেট, সোয়ার্শা রোনানের মতন তারকারা।

অভিনেতা ও নির্মাতা আরিক আনাম খানের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘ট্রানজিট’ দুটি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হবে। মর্যাদাপূর্ণ বুসান চলচ্চিত্র উৎসব ও যুক্তরাজ্যের এনকাউন্টার চলচ্চিত্র উৎসবে দেখা যাবে ছবিটি। দুটি উৎসবেই ছবিটি প্রতিযোগিতা বিভাগে নির্বাচিত হয়েছে।

বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির কারণে এনকাউন্টার চলচ্চিত্র উৎসবটি অনুষ্ঠিত হবে অনলাইনে। উৎসবে ‘ট্রানজিট’ প্রদর্শিত হবে আগামী ১৭ ও ২৭ সেপ্টম্বর। অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় স্বল্প পরিসরে বুসান চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২১ থেকে ৩০ অক্টোবর।

‘ট্রানজিট’ হচ্ছে একজন সেলসম্যানের গল্প। যার জীবন অভাবে জর্জরিত। জীবন ও জীবিকার পরিবর্তন আনার জন্য সে ইতালি যেতে চায়। ভাবে যদি একবার ইতালি ভিসা পেয়ে যায় তাহলে তার পরিবারের ভবিষ্যত নিশ্চিত।

স্বল্পদৈর্ঘ্যটি চিত্রায়িত হয়েছিল ২০১৯ সালে। ছবির পোস্ট প্রোডাকশনের সকল কাজ শেষ হয়েছিল এ বছরের শুরুতে। জাহাঙ্গীর আলম ‘ট্রানজিট’র প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন। অন্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন শারমিন আঁখি, বিদ্যা নাথ সাহা, খায়রুল আলম টিপু, শরিফ আলম ইমন প্রমুখ। ইটি এনজি ছবিটির সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে কাজ করেছেন। সম্পাদনায় ছিলেন সামির আহমেদ এবং সংগীত পরিচালনায় আরাফাত মহসিন।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর