শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:২০
আপডেট : ২১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:২৪
প্রিন্ট করুন printer

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে আর দেখা যাবে না মালিঙ্গাকে

অনলাইন ডেস্ক

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে আর দেখা যাবে না মালিঙ্গাকে
লাসিথ মালিঙ্গা। ফাইল ছবি

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন শ্রীলঙ্কার তারকা পেসার লাসিথ মালিঙ্গা। তিনি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স কর্তৃপক্ষকে আগেই তার এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেন। ফলে এবারের আইপিএল-এ তাকে আর পাচ্ছে না পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা।

মালিঙ্গার এই সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই তাকে ভবিষ্যতের জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। এক বিবৃতিতে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কর্ণধার আকাশ আম্বানি জানান, ‘লাসিথ মালিঙ্গা ১২ বছর ধরে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অন্যতম প্রধান সদস্য ছিলেন। আমরা তার এই সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা জানাই। যদিও আমি চাইছিলাম তিনি আরও পাঁচ বছর আমাদের বোলিং আক্রমণের সদস্য হয়ে থাকুন। মালিঙ্গা মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কিংবদন্তী। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের এই যাত্রায় তার অবদান অমূল্য। ওয়াংখেড়েতে তার জন্য যে আওয়াজ উঠত, সেটা মিস করব। তিনি চিরকাল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের সমর্থকদের হৃদয়ে থাকবেন। তিনি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স পরিবারের সদস্য হয়েই থাকবেন। আশা করি, ভবিষ্যতে তিনি দলের সঙ্গে অন্য কোনোভাবে যুক্ত থেকে তার অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেবেন।’

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট থেকে অবসর প্রসঙ্গে মালিঙ্গা জানিয়েছেন, ‘পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করেছি। আমার মনে হয়েছে, এটাই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট থেকে সরে যাওয়ার উপযুক্ত সময়। করোনা মহামারি পরিস্থিতি ও ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞার কারণে আমার পক্ষে আগামী মৌসুমে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলা কঠিন। তাই এটাই অবসরের সিদ্ধান্ত নেওয়ার উপযুক্ত সময়। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও এ বিষয়ে কথা বলেছি। তারা আমার কথা বুঝতে পেরেছেন এবং সমর্থন করেছেন। আম্বানি পরিবার, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে যুক্ত প্রত্যেককে এবং দুর্দান্ত ১২টি বছরের জন্য সমর্থকদের ধন্যবাদ জানাই। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আমাকে পরিবারের মতোই মনে করেছে। মাঠে ও মাঠের বাইরে সবরকম পরিস্থিতিতে ১০০ শতাংশ সাহায্য পেয়েছি। আমি যখনই মাঠে নেমেছি, আমার স্বাভাবিক খেলা দেখানোর স্বাধীনতা ও আত্মবিশ্বাস দেওয়া হয়েছে। অনেক স্মৃতি জমা হয়ে আছে। বিশ্ব ক্রিকেটের সেরা ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে এত বছর খেলার সুযোগ পাওয়ার জন্য আমি কৃতজ্ঞ।  

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৫৩
প্রিন্ট করুন printer

ইউরোপা লিগের শেষ ষোলোর ড্র, কে কার মুখোমুখী

অনলাইন ডেস্ক

ইউরোপা লিগের শেষ ষোলোর ড্র, কে কার মুখোমুখী

উয়েফা ইউরোপা লিগের শেষ ৩২ এর খেলা শেষ হয়েছে। যোগ্যতার প্রমাণ দিয়ে শেষ ষোলোতে জায়গা করে নেওয়া দলগুলোর ড্র শুক্রবার সুইজারল্যান্ডের নিয়নে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ড্রতে ইংলিশ ক্লাব আর্সেনাল পেয়েছে অলিম্পিয়াকোসকে। আর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড পেয়েছে এসি মিলানকে। ২০১০ সালে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোতে এসি মিলানের মুখোমুখি হয়েছিল ম্যানইউ। সেবার ইতালির ক্লাবটিকে প্রথম লেগে ৩-২ ব্যবধানে ও ফিরতি লিগে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল।

এদিকে স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়াল পেয়েছে ইউক্রেনের ডায়নামো কিয়েভকে। আরেক স্প্যানিশ ক্লাব গ্রানাডা পেয়েছে নরওয়ের ক্লাব মোল্ডেকে।

শেষ ষোলোর উভয় লেগ মার্চে অনুষ্ঠিত হবে।

শেষ ষোলোর ড্র

আয়াক্স আমস্টারডাম-ইয়াং বয়েজ

ডায়নামো কিয়েভ-ভিয়ারিয়াল

এএস রোমা-শাখতার দনেৎস্ক

অলিম্পিয়াকোস-আর্সেনাল

ডায়নামো জাগরেব-টটেনহ্যাম হটস্পার

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড-এসি মিলান

স্লাভিয়া প্রাগু-রেঞ্জার্স

গ্রানাডা-মোল্ডে।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৫২
প্রিন্ট করুন printer

এক ম্যাচ নির্বাসিত হতে পারেন কোহলি

অনলাইন ডেস্ক

এক ম্যাচ নির্বাসিত হতে পারেন কোহলি

জো রুটকে আউট না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে আম্পায়ার নীতিন মেননের প্রতি মাঠেই অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। এর জেরে শাস্তি হিসেবে এক ম্যাচ নির্বাসন হতে পারে তার। কোহলির আচরণ নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন সাবেক ইংলিশ ক্রিকেটার মাইকেল ভন এবং ডেভিড লয়েড। তবে কোহলিকে শাস্তি পেতে হলে অবশ্যই সমস্যা হবে টিম ইন্ডিয়ার।

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনে অক্ষর প্যাটেলের একটি বল ব্যাকফুটে খেলতে গেলে ডান পায়ে লাগে জো রুটের। কোহলিদের জোরালো আবেদন সত্ত্বেও আউট দেননি নীতিন মেনন। রিভিউ নিয়েও কাজ হয়নি। কারণ বল যে জায়গায় রুটের প্যাডে লাগে সেটা পুরোপুরি অফস্টাম্পের লাইনে ছিল না। ফলে আম্পায়ার্স কলের দৌলতে বেঁচে যান ইংল্যান্ড অধিনায়ক। 

ক্রিকেটের নিয়মানুযায়ী মেনন যদি আউট দিতেন তাহলে রুট রিভিউ নিলেও প্যাভিলিয়নে ফেরত যেতে হত তাকে। অর্থাৎ থার্ড আম্পায়ার নয়, এক্ষেত্রে সকল দায়িত্বটাই মেননের ওপর পড়ে। সেটা বুঝেই তার সঙ্গে মাঠে তর্ক জুড়ে দেন কোহলি। ভন, লয়েডরা মানছেন রুট পরিষ্কার আউট ছিলেন। কিন্তু তাতেও আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করা ক্রিকেটের কোড অব কন্ডাক্টের পরিপন্থী। 

ডেভিড লয়েড বলেন, আম্পায়ারের সঙ্গে এভাবে তর্ক এবং দর্শকদের উস্কাতে পারে না বিরাট কোহলি। আরও ভাল নিদর্শন দেখানো উচিত ছিল তার। এটা মোটেই ভাল কাজ হয়নি। 


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৫৯
প্রিন্ট করুন printer

‌অশ্বিনকে কেন ওয়ানডে ম্যাচে ফিরিয়ে আনা হবে না, প্রশ্ন গম্ভীরের!

অনলাইন ডেস্ক

‌অশ্বিনকে কেন ওয়ানডে ম্যাচে ফিরিয়ে আনা হবে না, প্রশ্ন গম্ভীরের!
ফাইল ছবি

৪০০ উইকেট ক্লাবের সদস্য হওয়ার পর রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে নিয়ে রীতিমতো ঝড় উঠেছে। টেস্ট ক্রিকেটে এমন পারফরম্যান্স করার পর কেন সেই ক্রিকেটারকে ওয়ানডে ম্যাচে ফিরিয়ে আনা হবে না?‌ বিরাট কোহলিদের কাছে এই প্রশ্নই এবার তুললেন সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর। 

তার কথায়, কেন অশ্বিনের নাম ওয়ানডে ক্রিকেটের জন্য ভাবা হবে না? এটাই আমাকে অবাক করে। সাড়ে তিন বছর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে শেষ ওয়ানডে খেলেছে অশ্বিন। তারপর তার কথা ভাবা হয়নি। শুধু টেস্ট ম্যাচ খেলেছে। সেখানে ভাল পারফরম্যান্সও করেছে। এটাইতো সেরা সময় তাকে ওয়ানডে টিমে ফিরিয়ে নেওয়ার।‌ 

অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর এক সাক্ষাৎকারে অশ্বিন বলেছিলেন, টেস্ট ক্রিকেটের পাশাপাশি এবার ছোট ফরম্যাটে খেলা আমার লক্ষ্য। প্রথম লক্ষ্য, ঘরের মাঠে টি-২০ বিশ্বকাপে জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামা।‌ 

গম্ভীর আরও বলছেন, আইপিএল খেলে জাতীয় দলের হয়ে ওয়ানডে টিমে অনেকে ঢুকে পড়ছে। অশ্বিনতো আইপিএল নিয়মিত খেলছে। টি-২০ ক্রিকেটে যে ক্রিকেটার নিয়মিত খেলে চলেছে, তাকে কেন জাতীয় দলের হয়ে খেলানোর কথা ভাবা হবে না? টেস্টের পারফরম্যান্স করেও তো প্রমাণ করে দিয়েছে, এখনও ওর মধ্যে ভাল কিছু করার ইচ্ছা আছে। আর টেস্টে যে ক্রিকেটার ভাল পারফর্ম করে, সে যে কোনও ফরম্যাটে খেলে দিতে পারে। এটাই বরাবর শুনে এসেছি। আমাদের নির্বাচকরা কেন এভাবে ভাববেন না?


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৪২
প্রিন্ট করুন printer

আহমেদাবাদ টেস্টের পিচ নিয়ে বিস্ফোরক বিশেষজ্ঞেরা

অনলাইন ডেস্ক

আহমেদাবাদ টেস্টের পিচ নিয়ে বিস্ফোরক বিশেষজ্ঞেরা
ফাইল ছবি

দুই দিনে শেষ হয়ে গেছে ইংল্যান্ড ও ভারতের মধ্যকার তৃতীয় টেস্ট। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পাঁচদিনের ক্রিকেটের এটি দ্রুততম নিষ্পত্তি। ফলে পিচ নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। একপক্ষ পিচের দোষ না দেখলেও আর একপক্ষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে। আমদাবাদ টেস্টে হেরেছে ইংল্যান্ড, তাই বলাই বাহুল্য পিচ নিয়ে কটাক্ষ করছেন সে দেশেরই বিশেষজ্ঞেরা।

ধারাভাষ্যকার ডেভিড লয়েড বলেন, টেস্ট ক্রিকেটকে লটারির পর্যায়ে নামিয়ে আনা হয়েছে। ডেভিড লয়েডের দাবি, এরকম লটারিতে কে জিতল কে হারল তাতে চিন্তিত নন তিনি। তার কথায়, এটা কোনও লড়াই হয়নি। ব্যাটসম্যানদের টেকনিক দুর্বল ছিল, তবু এই পিচ যদি আইসিসির কাছে গ্রহণযোগ্য হয় তবে আগামীতে টেস্ট ক্রিকেটের দুর্দিন আসছে। ক্রিকেট বোর্ডগুলো পাঁচদিনের ক্রিকেটের দৈর্ঘ্য থেকে পয়সা আয় করে, ইংল্যান্ড তো বটেই। এরকম ছোট টেস্ট ম্যাচ শুধুমাত্র আর্থিক বিপর্যয়। আইসিসিকে এ নিয়ে প্রশ্ন করা উচিত, কিন্তু জবাব পাওয়া যাবে না তা নিয়েও নিশ্চিত তিনি। 

লয়েডের মতো সরাসরি আক্রমণের রাস্তায় যাননি মাইকেল ভন। ব্যঙ্গাত্মক টুইট করে তিনি লিখেছেন, যদি এরকম পিচই হয়, তবে আমার কাছে একটা সমাধান রয়েছে, দুই দলকেই তিনটি করে ইনিংস খেলতে দেওয়া হোক। 

চার ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ১৪০ ওভার খেলা হয়েছে আহমেদাবাদ টেস্টে। পড়েছে ৩০ উইকেট যার ২৮টি উইকেট নিয়েছেন স্পিনাররা। প্রথম দিন থেকেই বল ঘুরছিল একহাত করে। দ্বিতীয় দিনে অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। সুনীল গাভাস্কার অবশ্য দেড়দিনে খেলা শেষ হওয়ার পেছনে ব্যাটসম্যানদের দুর্বলতার কথা বলেছেন। একই কথা বলতে শোনা গেছে ভারতের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলিকেও।        


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৬:১৫
প্রিন্ট করুন printer

এমন পিচ হলে কুম্বলে ১০০০ উইকেট পেতেন, কটাক্ষ যুবরাজের

অনলাইন ডেস্ক

এমন পিচ হলে কুম্বলে ১০০০ উইকেট পেতেন, কটাক্ষ যুবরাজের
যুবরাজ সিং।

মোতেরা টেস্টে দুরন্ত জয় ভারতের। মাত্র দুদিনেই শেষ হয়ে যায় খেলা। এরপর থেকে শুভেচ্ছার বন্যায় ভাসছে ভারত। বাদ যাননি যুবরাজ সিং। ভারতীয় ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানান তিনিও। তবে সেই অভিনন্দন বার্তায় লুকিয়ে রয়েছে মোতেরা পিচ নিয়ে কটাক্ষের সুর।

যুবরাজ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে লেখেন, মাত্র দুদিনে ম্যাচ শেষ! জানি না এটা টেস্ট ম্যাচের জন্য ভালো না খারাপ বিজ্ঞাপন। তবে এরকম পিচ হলে অনিল কুম্বলে ১০০০ এবং হরভজন সিং ৮০০ উইকেট নিতেন। যাই হোক অভিনন্দন অক্ষর প্যাটেল, রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং ইশান্ত শর্মাকে।

উল্লেখ্য, তৃতীয় টেস্টে ইংল্যান্ডকে ১০ উইকেটে পরাজিত করে ভারত। এদিন মাত্র ৮১ রানে শেষ হয়ে যায় ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংস। বল হাতে আবারও ভেল্কি দেখান ঘরের ছেলে অক্ষর প্যাটেল। দ্বিতীয় ইনিংসেও মাত্র ৩২ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ৫ উইকেট।

শুধু এখানেই শেষ নয়, দ্বিতীয় ইনিংসে অক্ষর প্যাটেলকে দিয়ে বোলিং ওপেন করান অধিনায়ক বিরাট কোহলি। আর অধিনায়কের বিশ্বাসের মর্যাদা দেন তিনি। প্রথম দুই বলেই তুলে নেন ২ উইকেট। হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা থাকলেও সেটা সম্ভব হয়ে ওঠেনি।

অন্যান্য ভারতীয় বোলারদের মধ্যে রবিচন্দ্রন অশ্বিন তুলে নেন ৪ উইকেট। একইসঙ্গে অনন্য মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। টেস্টে ৪০০ উইকেট নেওয়ার দ্রুততার নিরিখে তিনি বিশ্বের দ্বিতীয় বোলার। প্রথম জনের নাম মুথাইয়া মুরালিধরন। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৪৯ রানের টার্গেট চেজ করতে খুব বেশি সময় নেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা।

সূত্র : এই সময়

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর