শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ ০০:০০

ভুতুড়ে কবরখানা

ভুতুড়ে কবরখানা

চেজ ভল্ট। এখানে রাখা হয় মৃতদেহ ও কফিন। ভুতুড়ে এই জায়গাটি রহস্য হয়ে ওঠে তাকে ঘিরে ভৌতিক সব কর্মকাণ্ডের কারণে। অনেকগুলো ভৌতিক কাজের উত্তর না পাওয়ায় এটি হয়ে উঠেছে বিশ্বের অন্যতম রহস্যময় জায়গা। এর অবস্থান ওয়েস্টইন্ডিজের বার্বাডোজে। এটি একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপ। দ্বীপের স্বভাবজাত সৌন্দর্যের ভিড়ে এই কবরখানা বিচ্ছিন্ন দ্বীপটিকে ভুতুড়ে ও রহস্যময় করে তুলেছে। এটি সমাধিক্ষেত্র বা সিমেট্রির একটি জায়গা। এটি ব্রিজটাউন থেকে প্রায় সাত মাইল দূরে, 'চেজ ভল্ট' নামে কুখ্যাত। বিশাল এই ভল্ট বা কফিন রাখার জায়গা নির্মাণ করা হয়েছিল চেজ পরিবার ও তাদের বন্ধুদের জন্য। ১৮০৭ সালের জুলাই মাসে থমাসিনা গডডার্ড মারা যায়। তার মৃতদেহ একটি কফিনে ঢুকিয়ে এই ভল্টে রাখা হয়। পর্যায়ক্রমে দুই বছর বয়সের ছোট মেয়ে মেরি অ্যান চেজকে এই ভল্টে কফিনে করে সমাহিত করা হয়। মেরির বড় বোন ডকরাস চেজেরও জায়গা হয় এখানে। তবে ভৌতিক ঘটনাটা দেখা যায় যখন থমাসকে সমাহিত করার জন্য সেই বিশেষ ভল্ট খোলা হলো। সেখানে শেষ কৃত্যানুষ্ঠানে আগত সবাই অবাক হয়ে দেখল সাজিয়ে রাখা কফিন গুলি কে বা কারা এলোমেলো করে রেখেছে। তখন সবাই মিলে সরে যাওয়া কফিনগুলোকে আবার জায়গামতো রেখে দিল। কিন্তু যতবারই এই ভল্টে নতুন মৃতদেহের কফিন রাখার জন্য খোলা হতো দেখা যেত সবগুলো কফিনই এলোমেলো!

 

 

 


আপনার মন্তব্য

Bangladesh Pratidin

Bangladesh Pratidin Works on any devices

সম্পাদক : নঈম নিজাম,

নির্বাহী সম্পাদক : পীর হাবিবুর রহমান । বসুন্ধরা মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট নং-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, বারিধারা, ঢাকা থেকে প্রকাশিত এবং ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড প্লট নং-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ ও কালিবালা দ্বিতীয় বাইপাস রোড, বগুড়া থেকে মুদ্রিত।
ফোন : পিএবিএক্স-০৯৬১২১২০০০০, ৮৪৩২৩৬১-৩, ফ্যাক্স : বার্তা-৮৪৩২৩৬৪, ফ্যাক্স : বিজ্ঞাপন-৮৪৩২৩৬৫।
ই-মেইল : [email protected] , [email protected]

Copyright © 2015-2020 bd-pratidin.com