১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০৩:৪৭

কুয়েট শিক্ষার্থীসহ দু’জনের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা আইনে মামলা, গ্রেফতার ১

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা :

কুয়েট শিক্ষার্থীসহ দু’জনের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা আইনে মামলা, গ্রেফতার ১

ফাইল ছবি

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) সিএসই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জাহিদুর রহমান (২২)সহ দু’জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল ডিভাইজ দিয়ে আক্রমণাত্মক মানহানিকর তথ্য প্রকাশ করে কুয়েট ছাত্রদের মধ্যে অস্থিরতা বা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে।

সোমবার রাতে কুয়েটের সিকিউরিটি অফিসার মো. সাদেক হোসেন প্রামানিক (৩৫) খানজাহান আলী থানায় মামলা করেন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামাল হোসেন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। জানা যায়, শিক্ষার্থী জাহিদুর রহমান ভোলা তজমুদ্দিন সোনাপুর গ্রামের আ. সালামের ছেলে। মামলার অপর আসামি রেজওয়ান স্যাম (২১) ভোলার বোরহানউদ্দিন মুশির হাট গ্রামের বাসিন্দা।

এদিকে, শিক্ষার্থী জাহিদুর রহমানকে আটকের সময় রবিবার রাতে ড. এমএ রশিদ ছাত্রহলে ব্যাপক মারধর করা হয়েছে বলে জানা যায়। ওই রাতেই পুলিশ তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাম্বুলেন্সে করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় পুলিশ ক্যাম্পাসে ও হাসপাতালে উপস্থিত ছিল। কুয়েটের সিকিউরিটি অফিসার সাদেক হোসেন প্রামানিক জানান, ওই শিক্ষার্থীসহ ব্রাক ইউনির্ভাসিটি ও গোপালগঞ্জ ইউনির্ভাসিটির আরও দুই শিক্ষার্থী ‘টেলিগ্রাম’ অ্যাপসের মাধ্যমে উস্কানিমূলক বক্তব্য প্রচার করতো। বিষয়টি জানাজানি হলে উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা রবিবার রাত ৯টার দিকে এমএ রশিদ হলের ১১৭ নম্বর রুম থেকে তাকে ল্যাপটপ মোবাইলসহ আটক করে। পরে হলের প্রভোস্টসহ কুয়েটের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এসে তাকে পুলিশে সোপর্দ করেন।

ড. এমএ রশিদ হলের প্রভোস্ট এমডি হামিদুল ইসলাম জানান, ওই শিক্ষার্থীর কাছে দেশ বিরোধী কিছু বার্তা, কিছু খেলাফত টাইপের বই পাওয়া যায়। বিভিন্ন গ্রুপের সাথে সম্পৃক্ত কিছু কথোপকথনের সন্দেহ হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, তাকে আটকের সময় শিক্ষার্থীরা চড়-থাপ্পড় দিয়েছে। কিন্তু সেইভাবে সে অসুস্থ নয়। তবে পুলিশ তাকে অসুস্থ হওয়ায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। 

খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামাল হোসেন জানান, কুয়েটের সিকিউরিটি অফিসার মো. সাদেক হোসেন প্রামানিক বাদী হয়ে জাহিদুর রহমান এবং রেজওয়ান স্যামের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। বর্তমানে সে খুলনা মেডিকেল কলেজে ভর্তি রয়েছে। তাকে ভর্তি অবস্থায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮, ডিজিটাল ডিভাইজ দ্বারা মিথ্যা আক্রমণাত্মক, মানহানিকর তথ্য প্রকাশ করে কুয়েট ছাত্রদের মধ্যে অস্থিরতা বা বিশৃংখলা সৃষ্টি করে আইন শৃংখলা অবনতির চেষ্টা করার অভিযোগ রয়েছে। গ্রেফতার জাহিদুর রহমানকে কুয়েটের ড. এম এ রশিদ হল থেকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সে কিভাবে অসুস্থ হয়েছে সেটা হল কর্তৃপক্ষ বলতে পারবে।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর