শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ২২:৫৫

কাজ মিললেও বেতন মিলছে না

খুলনায় ২১১ আউটসোর্সিং কর্মীর মানবেতর জীবন

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

কাজ মিললেও বেতন মিলছে না

খুলনা সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ২১১ জন আউটসোর্সিং কর্মী গত ৭ মাস ধরে কাজ করলেও বেতন-ভাতা পাননি। এতে পরিবার-পরিজন নিয়ে তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। এদিকে নিয়োগকর্তা ঠিকাদার বলছেন, অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে টাকা ছাড় না দেওয়ায় বেতন দিতে বিলম্ব হচ্ছে। আর পদায়নকৃত কর্মকর্তা খুলনা সিভিল সার্জন অবসরে যাচ্ছেন এ মাসেই। ফলে আউটসোর্সিং কর্মীদের বেতন প্রাপ্তি নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

জানা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে দরপত্রের মাধ্যমে খুলনায় স্বাস্থ্য বিভাগে আউটসোর্সিং কর্মী নিয়োগের কাজ পায় মেসার্স তাকবীর এন্টারপ্রাইজ নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। হাসপাতালের ওয়ার্ড বয়, আয়া, কুক, নিরাপত্তা ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে ২১১ জনকে নিয়োগ দেয় তারা। কিন্তু গত ৭ মাস নিয়মিত কাজ করলেও কর্মীদের বেতন পরিশোধ করেনি প্রতিষ্ঠানটি। সিকিউরিটি গার্ড মনিরুল ইসলাম জানান, গত ৭ মাস ধরে বেতন না পাওয়ায় দোকান থেকে বাকিতে খেতে হচ্ছে। কিন্তু এখন আর দোকানি মালামাল দিতে চাচ্ছে না। ছেলে-মেয়েদের স্কুলের বেতন বাকি পড়েছে। ঘরভাড়া দিতে পারছি না। এ অবস্থায় পরিবার পরিজন নিয়ে না খেয়ে  থাকতে হবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মালিক ইখতিয়ার উদ্দিন বলেন, আউটসোর্সিং নিয়োগের ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অনুমোদন দিলেও অর্থ মন্ত্রণালয় টাকা ছাড় দেয়নি। এ কারণে তাদের বেতন-ভাতা দেওয়া যায়নি। তবে দ্রুত এ বিষয়ে সমাধান হবে। তবে চুক্তিভিত্তিক এসব স্বাস্থ্য কর্মীদের বেতন পরিশোধ করার দায় নিয়োগকারী সংস্থার জানিয়ে খুলনা সিভিল সার্জন এএসএম আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দিনের পর দিন কর্মীরা বেতন না পেলে তারা হতাশ হয়ে কাজ বন্ধ করে দেবে। এতে হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবা প্রদানে অসুবিধা সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, সিভিল সার্জন দফতর থেকে এ সংক্রান্ত কাজ মেটানো হয়েছে। এ কারণে আমি অবসরে গেলেও কোনো অসুবিধা হবে না।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর