শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ জুন, ২০২১ ২৩:৫২

খালের মুখে বাঁধ দিয়ে মা মাছ নিধন

নাটোর প্রতিনিধি

Google News

নাটোরের সিংড়া উপজেলার চলনবিলের নিচু এলাকায় খাল ও ছোট নদীতে এসেছে আষাঢ় মাসের নতুন পানি। সেই পানিতে বিচরণ করছে বোয়াল, শোল, টেংরা, পুঁটিসহ নানা রকম দেশি প্রজাতির মা মাছ। সারা আষাঢ় মাসজুড়ে ডিম ছাড়ে এই মা মাছ। পরে বিলে বন্যার পানিতে বংশ বিস্তার করে। বন্যার আগেই স্বল্প পানির এসব ছোট নদী ও খালের মুখে বাঁশের তৈরি বানার বেড়া দিয়ে মাছ চলাচলের পথ আটকিয়ে নানা রকম ফাঁদ পেতে এসব মা মাছ নিধন করছেন এক শ্রেণির মানুষ।  সরেজমিন গিয়ে সিংড়া-বারহাস রাস্তা সংলগ্ন তিশি খালী খালের ব্রিজে দেখা যায় এক মৎস্যজীবী মাছ চলাচলের সম্পূণ পথ আটকিয়ে মা মাছ নিধন করছেন। উপজেলার ডাহিয়া গ্রামের ব্রিজের নিচে বড় ছিলা খালে একই কায়দায় মাছ নিধন করছেন আরও দুই মৎস্যজীবী। মৎস্যজীবীরা জানায় এতদিন তারা বসেই ছিলেন। বিলের নিচু খালে নতুন পানি আসায় মাছ ধরা পড়ছে প্রচুর।

 তাই তারা মাছ শিকার করছেন। ডাহিয়া বাজারের হোমিও চিকিৎসক আবু কাওছার ও বেড়াবাড়ি গ্রামের আনোয়ার হোসেন জানান, বন্যা আসার এই আগ মৌসুমে বেড়াবাড়ির খালেও ধুন্দি, বিত্তি, কারেন্টজালসহ নানা ফাঁদ পেতে মাছ ধরা হয় প্রতিবছর। এ ছাড়া ওই খালে অবাধে বড় বড় বোয়াল মাছও ধরা হয় প্রচুর। আষাঢ় মাসে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি নামলে সাধারণত মা বোয়াল মাছ ডিম ছাড়তে পানির ধারে উঠে আসে। আর এই সুযোগে এক শ্রেণির মানুষ দলবেঁধে জোত কুঁচ, পালাসহ নানা ফাঁদ দিয়ে এই মা বোয়াল মাছ নিধন উৎসবে মেতে ওঠে। পরিবেশ ও প্রকৃতি আন্দোলনের সভাপতি মোল্লা এমরান আলী রানা বলেন, দেশি প্রজাতি মাছের যে আকাল যাচ্ছে তাতে চলনবিলে এই সময়ে এসব মা মাছ নিধন একেবারেই বন্ধ করা দরকার। মৎস্য অধিদফতর, প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সবার এ বিষয়ে জোরালো নজরদারির পাশাপাশি বিলের মা মাছ রক্ষায় স্থানীয় মৎস্যজীবীদের বিবেক থেকেই এ সময়ে যে কোন ধরনের মাছ ধরা থেকে বিরত থাকা জরুরী।  উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার শাহাদত হোসেন বলেন, চলনবিলসহ মিঠা পানির মা মাছ রক্ষায় ইতিমধ্যে আমরা ৫টি অভিযান পরিচালনা করেছি। অভিযান অব্যাহত আছে।

এই বিভাগের আরও খবর