শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ নভেম্বর, ২০১৭ ২৩:৩৩

বরেন্দ্র অঞ্চলে মাছ চাষ বিপ্লব

শাইখ সিরাজ

বরেন্দ্র অঞ্চলে মাছ চাষ বিপ্লব

একসময় দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রুক্ষতার সন্ধান দিত বরেন্দ্র অঞ্চল। চাঁপাইনবাবগঞ্জে নভেম্বরের এই সময়ে পানির সংকটে মাঠঘাট ফেটে চৌচির থাকত। টিউবওয়েলগুলো থাকত অচল হয়ে; পাতকুয়ার গভীরেও পানি পাওয়া যেত না। মানুষ আশঙ্কা করত, এই রুক্ষতা হয়তো বরেন্দ্রভূমির মানুষকে একদিন জলবায়ু উদ্বাস্তুতে পরিণত করবে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সব অঞ্চলেরই চেহারা পাল্টে গেছে। অনাবৃষ্টির অঞ্চলগুলো অতিবৃষ্টির প্রভাবে সবুজ হয়ে উঠছে। অন্যদিকে, এক অঞ্চল যখন অকাল বন্যায় ফসল হারাচ্ছে, তখন দেশের অন্য কোথাও অনাবাদি জমিতে আসছে উর্বরতা। হয়তো এরই প্রভাবে পাল্টে গেছে বরেন্দ্রভূমির পুরনো রূপ। নতুনরূপে আবির্ভূত হয়েছে বরেন্দ্রাঞ্চল।

পাঠক! সপ্তাহ দুই আগে বরেন্দ্র অঞ্চলে গিয়েছিলাম কিছু প্রতিবেদনের তথ্যচিত্র ধারণের জন্য। অবাক হয়েছি বরেন্দ্রর এখনকার চেহারা দেখে। গোটা অঞ্চলই সবুজে পরিণত হয়েছে। একসময়ের পতিত জমির সিংহভাগই চলে এসেছে চাষের আওতায়। ভৌগোলিক ও ভূমিরূপের কারণেই চাঁপাইনবাবগঞ্জে একসময় ফসল উৎপাদন কঠিন ছিল। শুষ্ক মৌসুমে তেমন কিছুই ফলত না। মানুষের জীবনধারণের পানিরও সংকট ছিল। সারা বছর পানির জোগান ছিল না বলে এখানে মাছ চাষের কথা ভাবাও যেত না। এখন এখানে কোনো ফসলের আবাদই যেমন প্রতিকূল নয়, একইভাবে মাছ চাষও শুরু হয়ে গেছে জোরেশোরে। এখানে বছর দু-এক আগে গড়ে উঠেছে বিশাল আকারের একটি মাছের খামার। বড় বিনিয়োগে অত্যাধুনিক খামার। ২০ হেক্টর জায়গার ওপর ৩৬টি পুকুর নিয়ে গড়ে তোলা সেই খামার দেখে মনে পড়ছিল চিংড়ি চাষ অধ্যুষিত খুলনার কুয়েত খ্যাত বাগেরহাট-সাতক্ষীরা কিংবা ময়মনসিংহের ত্রিশাল-ভালুকা-ফুলপুর এলাকার কথা। অন্যরকম এক নিসর্গ। যত দূর চোখ যায় শুধু পুকুর আর পুকুর।

গিয়েছিলাম একেবারে ভোরে। তখনো দিনের আলো পুরোপুরি ফোটেনি। জাল নিয়ে কর্মীরা ব্যস্ত পুকুরে। মাছের সকালের খাদ্য দেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। বিশাল এক কর্মযজ্ঞ। পুরোপুরি বাণিজ্যিক ও পরিকল্পিত এক উদ্যোগ। এ উদ্যোগের সঙ্গে আছে সুদূরপ্রসারী হিসাব-নিকাশ। আছে বিনিয়োগ ও মুনাফা তুলে আনার নানামুখী লক্ষ্য। গত তিন দশকে মাছ চাষ সম্প্রসারণের এ এক উজ্জ্বল রূপ। আগে ক্ষুদ্র চাষি ছোট পরিসরে পরীক্ষামূলক মাছ চাষ শুরু করতেন, এখন আর সেই দিন নেই। এখন বদলে যাওয়া কৃষির মতোই মাছ চাষও বড় বড় বাণিজ্যিক উদ্যোক্তার হাতে চলে এসেছে। এই উদ্যোগগুলো অত্যন্ত ইতিবাচক বলে আমি মনে করি। মনে পড়ে গেল সেই হাকিম আলীর কথা। পাঠক! আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে, বাংলাদেশ টেলিভিশনে মাছ চাষির এক প্রতীক হিসেবে হাকিম আলী নামের একটি চরিত্র সৃষ্টি করেছিলাম। তখন যখন মাছ চাষের বিষয়টি মানুষের মাথায় কেবল আসতে শুরু করেছে। কৃষককে যখন বলতাম বাড়ির এই পুকুরটাতে মাছের চাষ করেন না কেন। অদ্ভুত দৃষ্টিতে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থেকে জিজ্ঞাসা করত, ‘স্যার! চাষ তো হয় ধান-পাটের, মাছের আবার চাষ হয় নাকি?’ অর্থাৎ কৃষক তখন মাছের সঙ্গে চাষ বিষয়টিতে মোটেই অভ্যস্ত ছিল না। তখন থেকেই বাংলাদেশ টেলিভিশনের ‘মাটি ও মানুষ’-এর মাধ্যমে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি দেশব্যাপী ছোট ছোট উদ্যোক্তা গড়ে তুলতে। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে ঘরের গৃহিণী পর্যন্ত বাড়ির আঙিনার মজা পুকুরকে ঠিকঠাক করে মাছ চাষের ক্ষেত্রে পরিণত করছেন। টেলিভিশনে একেকটি সাফল্যের গল্প প্রচারের মধ্য দিয়ে মানুষের চোখ খুলে দেওয়ার সেই চেষ্টা আজও মনে পড়ে। গেল সপ্তাহে ২০ হেক্টর আয়তনের বিশাল খামারে গিয়ে মনে হচ্ছিল, এটি সেই বিপ্লবেরই একটি ধারাবাহিকতা। আর এই দৃশ্যটি দেখার জন্যই আড়াই-তিন দশক ধরে কাজ করেছি। চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমনুরা রোডের বুলনপুরের বিশাল খামারটির নাম নবাব মত্স্য খামার। এর উদ্যোক্তা আকবর হোসেন। তার কাছে বড় বিনিয়োগের বাণিজ্যিক উদ্যোগ হিসেবে ধরা দিয়েছে মাছ চাষ। কিছুটা মনের খেয়ালও আছে, আছে আবেগ আর কৃষির প্রতি অনুরাগ। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের মাটি ও মানুষ এবং চ্যানেল আইয়ের ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠান দেখেই উদ্বুদ্ধ হন। অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ের জন্য ঘুরেছেন দেশে-বিদেশের খামারে। সাফল্যের চূড়ায় উঠতে যা যা প্রয়োজন তার সবটাই ঢেলে দিয়েছেন আকবর। খামারে রোপণ করা হয়েছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন গাছ-গাছালি। বোঝা যায় অল্প দিনেই এ খামারটি পরিণত হবে অনিন্দ্যসুন্দর এক প্রাকৃতিক ক্ষেত্রে। তার চেয়ে বড় কথা এটি শুধু মাছের নয়, ফুল-ফল-সবজির অনন্য এক কৃষি খামার হয়ে উঠবে। আকবর হোসেন জানালেন, মাল্টা গাছ রোপণ করেছেন ৪০০টি। ভিয়েতনামের নারকেল চারা লাগিয়েছেন ৫০০টি। রয়েছে ৬০০ ড্রাগন ফলের গাছ। আছে বিভিন্ন জাতের সারি বাঁধা পেঁপে গাছ। খামারটির একপাশে প্রচুর কলাগাছ লাগিয়েছেন তিনি। গত বছর শুধু কলা বিক্রি করেছেন ২ লাখ টাকার। খামারের সঙ্গে পাশেই রয়েছে আকবর হোসেনের নিজস্ব ফিডমিল। ফিডমিলের পাশে সুন্দর এক কবুতরের খামার।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার অন্যতম বড় এই খামারে স্থায়ী শ্রমিক রয়েছেন ২০ জন। এর বাইরেও রয়েছেন ৩০ জনের মতো দিনমজুর। উদ্যোক্তা বলা হলেও এই খাতের অভিজ্ঞতা বিবেচনায় আকবর হোসেনকে আদর্শ চাষি বললেও ভুল হবে না। কারণ, মাছ চাষের ক্ষেত্রে অনেক নতুন অনুশীলন শুরু করেছেন তিনি। সব পুকুরে মাছের পর্যাপ্ত অক্সিজেন জোগান দেওয়ার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে অ্যারেটার। আগে আমরা যেমনটা দেখেছি পুকুরে অক্সিজেন সম্প্রসারণের জন্য পানির ওপর লম্বা বাঁশ দিয়ে পেটানো হতো। মাছের খাদ্য দেওয়ার বেলায় ম্যানুয়াল পদ্ধতি নয়, রয়েছে অটোফিডার। এতে খাবারের অপচয় যেমন রোধ হচ্ছে তেমনি নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ খাবার দেওয়াটাও নিশ্চিত করা যাচ্ছে। তবে আকবর জানালেন মানসম্মত পোনা সংকটের কথা। এই সংকট নিরসনে সরকারি সাহায্যের দাবিও করলেন তিনি। মত্স্য খাতকে আরও লাভজনক করতে সরকারের উচিত হবে মাছ রপ্তানিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া। আমি বিশ্বাস করি, ভিয়েতনাম, মিয়ানমারের মতো মাছ রপ্তানি করে আয় করা সম্ভব বৈদেশিক মুদ্রা। ১৯৯০-৯৫ সালেও ভারত ও ভিয়েতনাম থেকে কোটি কোটি টাকার রুই-কাতল মাছ আমদানি করতে হয়েছে আমাদের। এখন আর প্রয়োজন পড়ছে না। আমরা দেশে মাছের চাহিদা পূরণে সফল হয়েছি। বিদেশে মানসম্পন্ন মাছের বাজার ধরতে পুরোপুরি প্রস্তুত আকবর হোসেনের মতো মাছ চাষিরা। এ বিষয়ে সরকারের নানা কার্যক্রম ও কৃষকের উদ্ভাবনী শক্তি জাদুর মতো কাজ করেছে, তাই মিঠাপানির মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন সারা বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে। ইতিমধ্যে দেশের একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান পাঙ্গাশ মাছ থেকে ফিশ ফিলেট তৈরি করে ইউরোপে রপ্তানি শুরু করেছে।

চাষি ও উদ্যোক্তাদের একের পর এক উদ্যোগ, সরকারের সহযোগিতা, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের অনুশীলনগুলোর চর্চা, গণমাধ্যমে নতুন নতুন প্রযুক্তি আর সাফল্যের যুগের পর যুগের প্রচারণা, বিজ্ঞানী-সম্প্রসারকদের তৎপরতায় বাংলাদেশ মাছ উৎপাদনে পৃথিবীর অন্যতম শীর্ষস্থানীয় একটি দেশ হিসেবে পরিচিত হতে পেরেছে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার বিবেচনায় বাংলাদেশ মাছ উৎপাদনে পৃথিবীতে একটি রোল মডেল। আমি মনে করি, ক্ষুদ্র চাষি থেকে শুরু করে আকবর হোসেনের মতো উদ্যোক্তার হাত ধরে মাছ চাষে আগামীতে আরও বড় সাফল্যের নজির ঘটবে। বড় বড় বিনিয়োগকারী নতুন নতুন প্রযুক্তি ও কৌশলকে যুক্ত করবেন এই খাতে। মাছ চাষে বাংলাদেশ আরও বড় বিপ্লব আনবে— এই আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

লেখক : মিডিয়া ব্যক্তিত্ব।

            [email protected]


আপনার মন্তব্য