Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১৩

পর্তুগালের আলগারভের গ্রামীণ মেলা ও ক্যাটেল প্রদর্শনী

শাইখ সিরাজ

পর্তুগালের আলগারভের গ্রামীণ মেলা ও ক্যাটেল প্রদর্শনী

গত আগস্টে গিয়েছিলাম পর্তুগালে। সেখানে লিসবনে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের সঙ্গে বেশ ভালো সময় কাটল। শাহাদাৎ নামের এক তরুণ জানালেন, আলগারভ নামে এক স্থানে মেলার আয়োজন করা হয়েছে। চলছে গ্রামীণ মেলা আর ক্যাটেল শো। শাহাদাৎ, প্রবাসী ব্যবসায়ী আজাদ ও সহকর্মী আদিত্য শাহীনকে নিয়ে রওনা হলাম এক সকালে। ৩০০ কিলোমিটারের গন্তব্য। লিসবন শহরের ভিতর দিয়ে কিছুদূর গিয়ে হাইওয়ে। একে একে আলমাদা, আমোরা, কয়না পেরিয়ে এসেছি। আগস্টের শেষে বেশ উষ্ণ আবহাওয়ায় চারদিকটা ঝকঝকে। শাহাদাৎ গাড়ি চালিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। সকালের মিষ্টি রোদ ক্রমেই তেজি হয়ে উঠছিল। ঘণ্টা দুয়েকে বেশ খানিকটা এগিয়েছি বটে। কিন্তু গন্তব্যের হিসাবে তা খুব বেশি নয়। দ্রুতই সূর্যের তাপ বাড়তে লাগল। প্রায় ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। এরই মধ্যে উত্তপ্ত সড়কে এক বিপর্যয়ে পড়ল গাড়ি। প্রখর রোদে পিচঢালা রাস্তায় চাকা গলে পাংচার হয়ে গেল। এ অবস্থায় অতিক্রম করলাম কিছুটা পথ। কিন্তু এভাবে বেশি দূর যাওয়াও সম্ভব নয়। প্রখর রোদ, দাঁড়ানোর মতো জায়গাও নেই। খাঁখাঁ হাইওয়েতে আমরা বেশ সংকটেই পড়লাম। পর্তুগালের নিয়ম অনুযায়ী উদ্যোগ নিলেন শাহাদাৎ ও আজাদ। তারা কল করলেন ইন্স্যুরেন্সে। কিছুক্ষণ অপেক্ষার পর উদ্ধারকারী একটি গাড়ি নিয়ে ছুটে এলেন ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কর্মী এক তরুণ। কথা বলে জানলাম তিনি ব্রাজিলিয়ান। বেশ আন্তরিক ও হাসিখুশি। সংকট থেকে আমাদের উদ্ধারের জন্য যে বেশ আন্তরিক তা বোঝা গেল। আগে গাড়ির চাকা পরিবর্তন, তারপর অন্য কথা। একপর্যায়ে আমার মনে হলো চাকাটি স্প্রেয়ার দিয়ে বদল করলেই হয়, এত কিছু কেন? পরে বুঝতে পারলাম, গাড়িতে স্প্রেয়ার চাকা নেই। এটি অনেক বড় অপরাধ। যে গাড়িটিতে আমরা যাচ্ছিলাম তা আজাদ বা শাহাদাতের নয়। বন্ধুর গাড়ি নিয়ে এসেছিলেন। গাড়িতে স্প্রেয়ার চাকা না থাকার বিষয়টি তারাও জানতেন না। ব্রাজিলিয়ান তরুণটি আমাদের গাড়িটি তার উদ্ধারকারী র‌্যাকারে তুলে ছুটল গাড়ি মেরামতের গ্যারেজের খোঁজে। গাড়ির সামনে জায়গা সীমিত। অগত্যা র‌্যাকারের ওপরের গাড়িতে ঝুঁকি নিয়ে মাথা নিচু করে জড়োসড়ো হয়ে বসতে হলো আদিত্য শাহীনকে। কারণ, দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি র‌্যাকারে তোলার পর ওই গাড়িতে কারও ওঠা মানে চরম ঝুঁকিপূর্ণ এক ব্যাপার। এভাবে চলতে চলতে দেখা মিলল ছোট্ট একটি শহরের মতো জায়গা। সেখানে গাড়ি মেরামতের বেশকিছু গ্যারেজের সন্ধান পাওয়া গেল। দু-একটি দোকান পেরিয়ে অবশেষে ওলিয়াও এলাকায় একটি গ্যারেজে আমাদের কাক্সিক্ষত সুবিধাটি দিতে রাজি হলেন এক মেরামতকারী। এদিকে দুপুর নেমে গেছে অনেক আগেই। চাকা সারাই করতে দিয়ে আমরা ভাবলাম এ সুযোগে সেরে নেওয়া যাক মধ্যাহ্নভোজ। মধ্যাহ্নভোজ শেষ করতে করতে গাড়ি মেরামতের কাজ শেষ হলো।  আমরা যাত্রা করলাম ফারো জেলার উদ্দেশে। এ ফারো জেলারই প্রশাসনিক কেন্দ্র হচ্ছে আলগারভ। পর্তুগালের সর্বদক্ষিণে। আমরা বেরিয়েছিলাম সকালে, যখন আলগারভ এলাকায় পৌঁছলাম তখন সূর্যের তেজ কমতে শুরু করেছে। সাজানো গোছানো শহর আলগারভের কেন্দ্রস্থলে বেশ জমকালো আয়োজন।

ক্যাটেল শো বলতে আমাদের মনে হয়েছিল একটু জাঁকজমকপূর্ণ গরু-ছাগল-মহিষসহ গৃহপালিত প্রাণীর হাট। আসলে তা নয়। এটি সাজানো গোছানো একটি মেলা। এখানে উপস্থিত সর্বসাধারণ। বিশেষ করে বিনোদনের সন্ধানেই সবাই এসেছেন এ মেলায়। টিকিট কেটে আমরা মেলায় ঢুকে গেলাম। আর পাঁচটি একজিবিশনের মতোই নানান জিনিসপত্রের পসরা। স্থানীয় ঐতিহ্যবাহী নানা রংবেরঙের জিনিসপাতি সাজিয়ে বসেছেন তারা।

তবে মেলার আয়োজন দেখে বোঝা যায় এখানে কৃষি ও গ্রামীণ পণ্যের প্রাধান্য রয়েছে। ইউরোপের গ্রামগুলো এশিয়ার গ্রামাঞ্চলের মতো নয়। এ মেলায় উপস্থিত সব মানুষ শহুরে মনে হলেও আসলে এ মেলাটি গ্রামবাসীর জন্যই। মেলা ঘুরে ঘুরে পৌঁছলাম এক জায়গায়, সেখানে ঘোড়দৌড় চলছিল। কথা বলার চেষ্টা করলাম স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে। তারা জানালেন, শৌখিন মানুষের বাহন কিংবা ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার জন্য এখান থেকে কেউ চাইলে পছন্দমতো ঘোড়া কিনতে পারে।

খুব বেশি বৈচিত্র্যময় কিছু নয়। বিপুল পরিমাণ প্রাণিসম্পদের ভিড়ও এখানে নেই। তবে যে প্রাণীগুলো এখানে প্রদর্শন করা হয়েছে সেগুলো পর্তুগালের প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিছু জাত রয়েছে যেগুলো বিজ্ঞানীরা আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে উন্নত করেছেন। আবার কয়েকটি জাত রয়েছে যেগুলো পর্তুগালের একেবারে নিজস্ব। সবকিছু ছাপিয়ে অতি সাধারণ একটি গরুর দিকেই দৃষ্টি কাড়ছেন সংশ্লিষ্টরা। মেলায় উপস্থিত ছিলেন পর্তুগালের ফারো জেলার খাদ্য ও প্রাণিসম্পদ সেবা বিভাগের পরিচালক ক্রিস্টিনা ফেরাডেইরা। কথা বললাম তার সঙ্গে। জানতে চাইলাম, এ গরুর কী এমন বৈশিষ্ট্য? তিনি জানালেন, এ গরুটিই আলগারভ এলাকার বিপন্নপ্রায় একটি জাত। পৃথিবীতে এ জাতের গরু এখন টিকে আছে মাত্র ১৬টি। এর মধ্যে ১০টি ষাঁড় আর ৬টি গাভী। জাতটি নিয়ে বিস্তারিত জানার আগ্রহ হলো। জানতে চাইলাম, এ জাতটিকে আপনারা টিকিয়ে রেখেছেন কীভাবে? জানালেন কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে এ জাতটিকে তারা এখনো টিকিয়ে রেখেছেন। দেখতে অন্যসব গরু থেকে খাটো হলেও আলগারভ জাতের গরু খুব কর্মঠ। মেশিন আসার আগে এ গরুতেই চলত পাথর টানা, হালচাষ, কুয়ো থেকে পানি তোলা, বীজতলায় বীজ বপনের কাজেও ব্যবহার করা হতো। কর্মঠ ছিল বলে মাংসে চর্বি থাকত কম। আর মাংসও খুব সুস্বাদু। ক্রিস্টিন ভিন্ন জাতের কিছু ছাগল দেখালেন। বললেন, এ ছাগলগুলো আলগারভ জাতের। জানতে চেয়েছিলাম, গরুর মতো আলগারভ জাতের ছাগলের মাংসও সুস্বাদু কিনা। হাসলেন তিনি। বললেন, ‘না, শুধু মাংসই সুস্বাদু নয়। আপনি যদি আলগারভের পনির খান, তবে এর স্বাদ জীবনেও ভুলতে পারবেন না। আমরা এ ছাগলের দুধ দিয়ে পনির তৈরি করি। এ পনির পৃথিবীর সবচেয়ে নরম ও সতেজ।’ আর একটু এগোতেই চোখে পড়ল কয়েকটি ভেড়া। জানতে চাওয়ার আগেই ক্রিস্টিন বললেন, এই ভেড়ার জাতের নাম সুখা। দেখতে অন্যসব ভেড়ার মতো হলেও এর কিছু আলাদা বৈশিষ্ট্য আছে। দেখলাম ভেড়ার পাগুলো একটু বেশি উঁচু। ক্রিস্টিন জানালেন এ ভেড়াগুলো অন্যসব ভেড়ার মতো। একটু চঞ্চল। বেশ লাফালাফি করে। পাশেই রয়েছে অন্য জাতের ভেড়া। এ জাতের ভেড়া দুটিকে দেখেই আমার বেলজিয়াম ব্ল­– জাতের গরুর কথা মনে পড়ল। ভেড়ার শরীর বেশ পেশিবহুল। ক্রিস্টিনও জানালেন সে কথা। বললেন, জৈবিকভাবে উন্নত করা। নেদারল্যান্ডসের টেসেল জাতের ভেড়ার সঙ্গে ক্রস করে মাংসের জন্য এ জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। পাঠক! আপনাদেরও নিশ্চয়ই মনে আছে টেসেলের সেই বিশেষ জাতের ভেড়ার কথা। যদিও নেদারল্যান্ডসের টেসেল দ্বীপের জনসংখ্যার সমান অর্থাৎ ১৩ হাজার ভেড়াই ছিল স্থানীয় ঐতিহ্যবাহী জাতের। যাকে বলে টেসেল জাত। সেগুলো প্রধানত দুধ উৎপাদনের লক্ষ্য পূরণ করে। ওই জাতটিই এখানে মাংসের উপযোগী করে জৈবিকভাবে উন্নয়ন করা হয়েছে। ভেড়ার এ জাতটি দেখতে একটু অস্বাভাবিক মনে হয়। আমাদের দেশে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে সম্প্রসারিত গাড়লের সঙ্গে কিছুটা মিল খুঁজে নেওয়া যেতেও পারে। তবে গাড়ল মোটাসোটা হলেও অনেকটা চঞ্চল। কিন্তু এগুলো চাঞ্চল্যহীন ও অলস।

দৃষ্টি কাড়ার মতো আরেকটি গরু চোখে পড়ল। লাল জাতের গরু। দেখতে অনেকটা আমাদের দেশের রেড চিটাগাং জাতের মতো হলেও তুলনায় এ জাতটি খুব বেশি উন্নত হবে না। আরও নানা রকমের প্রাণী উঠেছে এ মেলায়। এ মেলার উদ্দেশ্য, নিজস্ব প্রাণিসম্পদ সম্পর্কে দর্শনার্থীদের ধারণা দেওয়া। খুব স্বাভাবিক ও সাদামাটা মনে হলেও এ আয়োজনটি অনেক বেশি তাৎপর্যপূর্ণ। মেলায় উঠেছে নানা রকমের কৃষিযন্ত্রও। বলা চলে এক ধরনের কৃষি-মেলা। মেলা থেকে বেরোতে বেরোতে সূর্য ডুবে গেছে। বৈদ্যুতিক  আলোয় ঝলমল করে উঠল অন্যরকম আলগারভ। আমাদের দেশে একসময় গ্রাম ও শহরে যেসব মেলা হতো সেখানে মানুষের জীবন-জীবিকা ও কৃষি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে প্রাধান্য পেত। মানুষের চিত্তবিনোদন ও শিক্ষার সঙ্গে কৃষি, খাদ্য উৎপাদন ও জীবন-জীবিকার এক ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। সময়ের বিবর্তনে এ বিষয়গুলো ফিকে হতে চলেছে। কিন্তু ইউরোপের দেশগুলো, যাদের খাদ্য নিয়ে তেমন মাথা না ঘামালেও চলে, তারা এ ঐতিহ্যটি ধরে রেখেছে। এ বিবেচনায় ৩০০ কিলোমিটার পথ পরিভ্রমণ করে এ মেলায় যোগ দেওয়া এবং এ আয়োজনগুলো স্বচক্ষে দেখতে পাওয়া আমার জন্যও ছিল এক সুযোগ। সেই সঙ্গে নতুন এক শিক্ষা হচ্ছে নিজস্ব প্রাণিসম্পদের জাত সংরক্ষণ ও হিসাবের মধ্যে রাখার এ উদ্যোগটি। আমাদের নিজস্ব ও প্রাচীন গবাদি প্রাণীর সংখ্যা নিরূপণ, বর্তমান পরিস্থিতি ও জাত সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন। প্রয়োজন জনসাধারণের সচেতনতার জন্য এমন মেলা আয়োজনও।

লেখক : মিডিয়া ব্যক্তিত্ব।

[email protected]


আপনার মন্তব্য