Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১২ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ জুন, ২০১৯ ২২:৫৪

ইসলাম আত্মনিগ্রহ অনুমোদন করে না

মাওলানা আবদুর রশিদ

ইসলাম আত্মনিগ্রহ অনুমোদন করে না

ইসলাম আত্মনিগ্রহে বিশ্বাস বা অনুমোদন করে না। বৈরাগ্যসাধনে মুক্তি- এমন মতবাদ ইসলাম প্রত্যাখ্যান করেছে। ইবাদতের নামে নিজের সাধ্যের চেয়ে বেশি কিছু করতে হবে এমন ধারণাকেও উৎসাহিত করা হয়নি কোরআন ও হাদিসে। জীবন যাপন ও ইবাদতÑ সব ক্ষেত্রে স্বাভাবিকতা বজায় রাখাই ইসলামের শিক্ষা।

মুসাফির বা পথিক যেমন অবিরত পথ অতিক্রম করে, অনুকূল সময়ে সফর করে, অবশিষ্ট সময়ে নিজেও বিশ্রাম নেয় এবং নিজের বাহনকেও বিশ্রামের সুযোগ দেয়; দীনের পথের পথিকের অবস্থাও তেমন হওয়া উচিত। নিজেকে সামর্থ্যরে অতিরিক্ত কঠোরতার মধ্যে নিক্ষেপ, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের তরিকা বা পথের প্রতি ভ্রুক্ষেপ না করে নফল ইবাদতে কড়াকড়ি আরোপ ইত্যাদি কারণে দীনের মধ্যে বাড়াবাড়ির পথ উন্মুক্ত হয়ে যায়। হুজায়ফা ইবনুল ইয়ামান (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘নিজের মর্যাদাহানি করা মুমিন ব্যক্তির জন্য শোভা পায় না।’ সাহাবিরা বললেন, মুমিন ব্যক্তি কেমন করে নিজের মর্যাদাহানি করতে পারে? তিনি বললেন, ‘নিজেকে সামর্থ্যরে অতিরিক্ত পরীক্ষার সম্মুখীন করা।’ (তিরমিজি থেকে মিশকাতে, বাব জামিউদ-দুয়া)। উপরোক্ত হাদিসে স্পষ্ট হয় যে, মানুষ সুষ্ঠু ও স্বাভাবিক জীবনযাপন করুক আল্লাহ ও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তেমনটিই চেয়েছেন। এ ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ির কোনো অবকাশ নেই। শরীর ও মনকে কষ্ট দিয়ে নয়, বরং স্বাভাবিকতা বজায় রেখে সবকিছু করতে হবে। কেউ দেহ-মনকে কষ্ট দিলে সওয়াব বেশি মিলবে ভাবলে তা ভুল করা হবে। কারণ আল্লাহ পরম দয়ালুময় সত্তা, তিনি চান না তাঁর বান্দা কষ্ট পাক। আল্লাহ সন্তুষ্ট হবেন এই ভাবনায় আত্মনিগ্রহের পথ বেছে নেওয়া কোনোভাবেই কোরআন-হাদিস নির্দেশিত পথ নয়। এ পথ পরিহার করাই উত্তম। আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক বৃদ্ধ ব্যক্তিকে তার দুই ছেলের কাঁধে ভর দিয়ে পা হেঁচড়ে যেতে দেখলেন। তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, এই ব্যক্তির কী হয়েছে? লোকেরা বলল, সে পায়ে হেঁটে আল্লাহর ঘর (কাবা) জিয়ারত করতে যাওয়ার মানত করেছে। তিনি বললেন, এই ব্যক্তিকে শাস্তির মধ্যে নিক্ষেপ করা থেকে মহান আল্লাহ মুক্ত। তিনি তাকে বাহনে চড়ে যেতে নির্দেশ দিলেন। (বুখারি, মুসলিম, তিরমিজি, ইবনে মাজাহ, নাসায়ি, মুসনাদে আহমাদ [দারিমি])। কোনো কোনো লোক মনে করে, মানুষ নিজেকে যত বেশি কষ্ট ও কঠোরতার মধ্যে নিক্ষেপ করবে আল্লাহ তার প্রতি তত বেশি সন্তুষ্ট হবেন। উল্লিখিত হাদিসে এই ভ্রান্ত ধারণা সংশোধন করা হয়েছে। আমাদের উচিত হবে অযথা শরীর ও মনকে কষ্ট দেওয়ার পথ থেকে বিরত থাকা। কোনো ক্ষেত্রে স্বাভাবিকতার পথ পরিহার করে বাড়াবাড়ির আশ্রয় না নেওয়া। আল্লাহ আমাদের সব ক্ষেত্রে সহজ-সরল পথে থাকার তাওফিক দান করুন।

                লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক


আপনার মন্তব্য