শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:১৯

আমলাতন্ত্রের দাপট

গণতন্ত্রের জন্য শোভনীয় নয়

আমলাতন্ত্রের দাপট

আমলাতন্ত্র দেশের উন্নয়ন ও গণতান্ত্রিক শাসনের জন্য বারবার বিড়ম্বনা ডেকে এনেছে। আমলাতান্ত্রিক ষড়যন্ত্রেই পাকিস্তান নামের রাষ্ট্রটি নাপাকিস্তানে পরিণত হয়। সামরিকতন্ত্র পাকিস্তানে থাবা বিস্তার করেছিল আমলাতন্ত্রের পিঠে চড়ে। বাংলাদেশের উন্নয়নে আমলাতান্ত্রিক দীর্ঘসূত্রতা বা লাল ফিতার দৌরাত্ম্য যে প্রধান বাধা তা একটি প্রতিষ্ঠিত সত্য। দেশে বিদেশি বিনিয়োগে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টিতে সরকার একের পর এক ইতিবাচক পদক্ষেপ নিলেও সে তুলনায় সাফল্য এসেছে খুবই কম। বিদেশি বিনিয়োগকারীরা নাকে দড়ি দিয়ে ঘোরানোর আমলাতান্ত্রিক দীর্ঘসূত্রতার কারণে এ দেশে আসতে অনাগ্রহী হন। আমলারা সরকারের ওপর আধিপত্য বিস্তারের অপচেষ্টা চালাচ্ছে- এমন অভিযোগ ওপেন সিক্রেট। বাংলাদেশ প্রতিদিনের শীর্ষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সচিবালয় ও মাঠ পর্যায়ে আমলাতন্ত্রের দাপটে প্রশাসনে চরম হতাশা তৈরি হয়েছে। অনেক সচিবই মন্ত্রীদের গুরুত্ব দেন না, সিদ্ধান্ত নেন নিজেদের মতো করে। এতে উপেক্ষিত মন্ত্রী সংশ্লিষ্ট আমলাকে নিরস্ত করার বদলে দুঃখ করেন রাজনৈতিক মহলে। প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয়ের মতো মাঠ পর্যায়েও কর্মরত অনেক প্রশাসনিক কর্মকর্তা জনপ্রতিনিধিদের তোয়াক্কা করেন না। কেউ কেউ অতি উৎসাহ নিয়ে যোগ দেন রাজনৈতিক দলের কর্মসূচিতে। অনেক কর্মকর্তাই নিজের অতীত রাজনৈতিক অবস্থান তুলে ধরতে ব্যস্ত। তারা বর্তমান পরিচয় দিতে চান না। আচরণে, কার্যক্রমে তারা চলেন রাজনীতিবিদদের মতো করে। আমলাদের সীমাহীন ক্ষমতা প্রদর্শনের কসরতে মন্ত্রী, এমপি, সিটি মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়ররা অনেক সময় নিজের কর্মীদের কাছে অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন। বিশেষত ২০১৪ সালে এ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বিকটভাবে। বর্তমানে এর ডালপালা আরও ব্যাপকভাবে বিকশিত হয়েছে। এতে সরকারের কার্যক্রমও ব্যাহত হচ্ছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, প্রশাসনের উচ্চ পর্যায় থেকে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তাদের এ দাপুটে অবস্থার জন্য রাজনৈতিক নেতারাই অনেকাংশে দায়ী। আমলাদের যথেচ্ছতার কারণে প্রশাসনের চেইন অব কমান্ড ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। পুলিশ প্রশাসনেও বিরাজ করছে একই অবস্থা। প্রশাসনকে রাজনৈতিকীকরণ করতে গিয়ে রাজনীতিবিদরাই নিজেদের সমূহ সর্বনাশ ডেকে এনেছেন। তাদের অপরিণামদর্শী কর্মকান্ড দেশের গণতন্ত্রের জন্যও বিসংবাদ ডেকে আনছে। অস্তিত্বের স্বার্থেই আমলাতান্ত্রিক দাপট নিয়ন্ত্রণে সরকারকে যত্নবান হতে হবে।


আপনার মন্তব্য