প্রকাশ : শুক্রবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:৩৫

একজন এম এ হাসেমের বড়ই প্রয়োজন ছিল

অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু

একজন এম এ হাসেমের বড়ই প্রয়োজন ছিল
অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু

শিল্প, বাণিজ্য, শিক্ষা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান- সর্বত্র যাঁর সফলতা সেই এম এ হাসেমের পরলোকযাত্রা নিয়ে এত তাড়াতাড়ি লিখতে হবে কখনো ভাবিনি। গতকাল ফজরের নামাজের পরপর এক বন্ধুর ফোনে জানলাম রাত ১টা ২০ মিনিটে তিনি ইন্তেকাল করেছেন। দেশের শিল্প-বাণিজ্যের অন্যতম এই প্রাণপুরুষের সঙ্গে বস্তুত ২০০১ সালে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিতে গিয়ে পরিচয় ঘটে। প্রথম দিনই মনে হলো কত দিনের জানাশোনা। কয়েক দিনের মধ্যেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ক্যাবিনেটে একজন কনিষ্ঠ সদস্য হিসেবে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এবং তারপর ভূমি মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে জনাব হাসেমের সঙ্গে সম্পর্ক গভীরতর হলো। তিনি বয়সে আমার চেয়ে অনেক বড় হলেও তাঁর মানসিক শক্তি কাজের, অদম্য স্পৃহা, উদ্দীপনা সব ব্যবধান ঘুচিয়ে দেয়। তাঁর অভিভাবকত্ব ভ্রাতৃসুলভ স্থান থেকে পিতৃত্বের স্থান দখল করে নেয়। আমার কাছে হয়ে ওঠেন সফলতার এক জীবন্ত কিংবদন্তি।

২০০৪ সালে শেরেবাংলা কাপ জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টে এম এ হাসেমকে আমন্ত্রণ জানালে তিনি সন্ত্রীক নাটোর যান। একই মঞ্চে বসে এম এ হাসেম, সুলতানা হাসেম ভাবী, আমার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন ও আমি খেলা উপভোগ করি। নাটোরে নোয়াখালী পল্লীর লোকজন খেলার ফাঁকে হাসেম ভাইকে দেখতে ভিড় জমান। নাটোরে নোয়াখালী পল্লীর সবাই ১৯৯৬ সালের দুই নির্বাচনে এবং ২০০১ সালের নির্বাচনে আমাকে অকুণ্ঠভাবে সমর্থন জানিয়েছিলেন। এ পল্লীতে বসবাসরত কেউ না কেউ হাসেম ভাইয়ের পারটেক্স গ্রুপে কোনো না কোনো পদে কাজ করেন। সার্কিট হাউসে রাতে খাবার টেবিলে দীর্ঘ আলাপচারিতার ফাঁকে হাসেম ভাইকে অনুরোধ করে বসলাম নাটোরে কোনো একটি ইন্ডাস্ট্রি করতে। তিনি রাজি হয়ে গেলেন। পরদিন সার্কিট হাউসে নোয়াখালীর আদি বাসিন্দা ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বারের একটি দলকে তাঁর সঙ্গে দেখা করার ব্যবস্থা করলাম। তিনি বললেন, জমির ব্যবস্থা করলে ইন্ডাস্ট্রি করবেন। কয়েক শ বিঘা জমি কেনা হয়ে গেল, কিন্তু পরে সরকারের নানাবিধ অসহযোগিতা ও লাল ফিতার দৌরাত্ম্যে ইন্ডাস্ট্রি আলোর মুখ দেখেনি। এ গেল একটি বিষয়।

এলো ১/১১-এর সরকার। এম এ হাসেম ২০০১ সালে এমপি হলেও আপাদমস্তক ছিলেন একজন ব্যবসায়ী। শিল্প-বাণিজ্যের উন্নয়ন ছিল তাঁর ধ্যানজ্ঞান। কিন্তু ১/১১-এর লুটেরা সরকার এম এ হাসেমকে রেহাই দেয়নি। আমরা একসঙ্গে কারাগারে নিক্ষিপ্ত হলাম। কারাগারের অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ ও দুঃসহ যন্ত্রণাদায়ক দিনগুলোও এম এ হাসেমকে দিগ্ভ্রান্ত করতে পারেনি। মানবিকতার প্রশ্নে তিনি ছিলেন আপসহীন।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, কাশিমপুর-২ কারাগার ঘুরে তখন কাশিমপুর-১ কারাগারে ঠাঁই হলো। একদিন পিজি হাসপাতালে আমরা চিকিৎসার জন্য আসব কিন্তু আমাদের একই দিনে একসঙ্গে পাঠাবে না। হাসেম ভাই বেঁকে বসলেন। আমরা অনুরোধ করলাম, আপনি বয়সে অনেক বড় আপনার চিকিৎসার দরকার বেশি। কিন্তু তিনি আমাকে ছাড়া আসবেন না। পরিণতিতে হাসেম ভাইকে বরগুনা কারাগারে, ফরিদপুরের এমপি খন্দকার নাসির উদ্দিনকে ময়মনসিংহ এবং আমাকে নরসিংদী কারাগারে বদলি করা হলো। এ নিয়ে হাসেম ভাইয়ের মধ্যে কোনো প্রকার আক্ষেপ দেখিনি। যেন নিজ ভাইয়ের জন্য কিছু করতে পেরে মুখজুড়ে ছিল প্রশান্তির হাসি।

আমরা কিছু দিন পর কাশিমপুর-২ কারাগারে ফিরে এলাম। কিন্তু হাসেম ভাই বরগুনা কারাগার থেকে কাশিমপুর ফিরে এলেন প্রায় এক বছর পর। হাসেম ভাই, সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের ছেলে সাবেক এমপি নাসের রহমান ও আমি এ তিনজন এক রুমে ঠাঁই পেলাম। পাশের রুমে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী রেদোয়ান আহমেদ। এর পরবর্তী রুমে ছিলেন সাবেক মন্ত্রী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আওয়ামী লীগ নেতা সালমান এফ রহমান। কয়েক দিন আগে কারাগারের এই কয়েকটি সেল এলাকাজুড়ে জিনের ভীতি ছড়িয়ে ছিল। রাতে হাসেম ভাইয়ের আর্তচিৎকার- জিন, জিন। আমি রুমের এক কোণে ঠাঁই নিলাম। নাসের রহমান অদ্ভুত ধরনের আওয়াজ করছিলেন। হাসেম ভাইয়ের চিৎকারে জেল কর্তৃপক্ষ ছুটে এলেন। তৎকালীন জেল সুপার বর্তমানে ডিআইজি প্রিজন জনাব তওহীদ এলেন। পরদিন তৎকালীন ডিআইজি প্রিজন মেজর সামছুল হায়দার সিদ্দিকীসহ সবাই এলেন সঙ্গে কয়েকজন মাওলানা সাহেব। ঝাড়ফুঁক চলল। নাসের রহমানের গলায় লাল চিহ্ন যেন কেউ গলা টিপে ধরেছিল। নাসের রহমান ধবধবে ফরসা সুন্দর। জানা গেল নারী জিন নাকি তাকে আসর করেছিল। সবাই হাসি-তামাশা করলেও সেদিন হাসেম ভাইয়ের মধ্যে সন্তানবাৎসল্য দেখেছি, দেখেছি কি পরম মমতায় নাসের রহমানকে আগলে রাখতে। তা মনে হলে আজও দুই চোখ অশ্রুসিক্ত হয়ে আসে।

কাশিমপুর-২ কারাগারের অনেক স্মৃতি আজ আমাকে তাড়িয়ে বেড়ায়। এত বড় বড় জাতীয় নেতৃত্ব কারাগারে থাকলেও সে সময় হাসেম ভাইয়ের কাছেই ভিড় লেগে থাকত। কষ্টের মধ্যেও হাসেম ভাইয়ের জীবনের অনুপ্রেরণাদায়ক গল্প সবার মধ্যে সঞ্চার করত। তাঁর শৈশব, কৈশোর, তারুণ্য, বাবার মৃত্যুর পর মায়ের সামান্য সঞ্চয়ের ওপর নির্ভর করে ছোট থেকে বড় ব্যবসায়ীতে পরিণত হওয়ার গল্প ছিল যুদ্ধে জয়ী হওয়ার চেয়েও রোমাঞ্চকর। তিনি বলতেন- সততা, একনিষ্ঠতা, মেধা দিয়ে জীবনে যে কোনো সাফল্য অর্জন করা যায়। বলতেন- দেশের বিভিন্ন অব্যবস্থাপনার মূলে সততা-নিষ্ঠার অভাব। তাঁর গল্প শোনার জন্য সন্ধ্যার পর ঢাকা থেকে চলে যেতেন ডিআইজি প্রিজন সামছুল হায়দার সিদ্দিকী। হাসেম ভাই এবং আমাদের আড্ডা চলত মধ্যরাত পর্যন্ত। তাঁর সুবাদে সূর্যাস্ত থেকে লকআপের যন্ত্রণা থেকে কিছুটা হলে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারতাম। বিপদে ধৈর্য না হারিয়ে তিনি ছিলেন পাহাড়ের মতো অটল, অবিচল। আজ অনুভব করছি কারাজীবনে হতাশা থেকে মুক্ত থাকতে হাসেম ভাই কতটা সঞ্জীবনী শক্তির মতো অপরিহার্য ছিলেন।

১/১১ পরবর্তী প্রায় ১২ বছর হাসেম ভাইয়ের স্নেহ-মমতা থেকে কোনো দিন বঞ্চিত ছিলাম না। হঠাৎ দুপুরে ফোন পেতাম খেয়েছি কি না। বলতেন চলে আসো একসঙ্গে খাব। গিয়ে দেখতাম টেবিলে আরও ১০-১২ জন। নিজে খেতেন একেবারেই বাঙালি খাবার কিন্তু অন্যদের জন্য অনেক রকমের খাবার। হাসেম ভাই খুব ভালো রান্না করতে পারতেন। বিদেশে গেলে নিজ হাতে রান্না করতেন, বাইরের খাবার খুব একটা পছন্দ করতেন না। হাসেম ভাইয়ের মতো খাওয়াতে এত ভালোবাসেন আমার জীবনে এরূপ দ্বিতীয়জনকে দেখিনি। হাসেম ভাই সিটি ব্যাংক ও ইউসিবিএল এ দুটি ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা। দুটি ব্যাংকের চেয়ারম্যানও ছিলেন। চেয়ারম্যান ছিলেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি বোর্ডের। তাঁর প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির সংখ্যা ৭৭-এর বেশি। ৭০ হাজারের বেশি কর্মকর্তা-কর্মচারী পারটেক্স গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জীবিকা নির্বাহ করেন। তাঁর সঙ্গে গল্পের সময় দেখেছি কত কর্মকর্তা-কর্মচারী মারাত্মক ভুল করে ক্ষমা চেয়েছেন, তিনি ক্ষমা করে দিয়েছেন। আমি যখনই যে কোনো বিষয়ে তাঁর কাছে গিয়েছি কোনো দিন বিরক্ত হতে দেখেনি, কোনো দিন ফিরিয়ে দেননি। বস্তুত তাঁর কাছে পৌঁছতে পারলে কেউকে তিনি ফিরিয়ে দিতেন না। এমন বিশাল হৃদয়ের মানুষ আজকের যুগে খুঁজে পাওয়া ভার। এমন সফল জীবনের অধিকারী এম এ হাসেমের পাঁচ পুত্রসন্তানের প্রত্যেকেই যেমন উচ্চশিক্ষিত তেমন পিতার মতো অসম্ভব মেধাবী, সৎ ও প্রতিভাদীপ্ত। এম এ হাসেমের পরলোকযাত্রায় যেমনি তাঁর পরিবারের সদস্যরা শোকাভিভূত তেমনি তাঁর শিল্প-বাণিজ্য, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হাজার হাজার পরিবারের লাখ লাখ মানুষ আজ অশ্রুসিক্ত নয়নে তাঁর জন্য মহান আল্লাহর দরবারে প্রার্থনারত। রব্বুল আলামিন সবাইকে যেন এ শোক সইবার শক্তি দেন। আমরা তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করি। আল্লাহ রহমানুর রহিম তাঁকে বিনা হিসাবে জান্নাতুল ফিরদাউস নসিব করুন।

 

                লেখক : সাংগঠনিক সম্পাদক, বিএনপি।


আপনার মন্তব্য