শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৯ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ মার্চ, ২০২১ ২৩:১৩

বাংলাদেশের প্রমোশন!

প্রভাষ আমিন

বাংলাদেশের প্রমোশন!

অর্জনটা কাক্সিক্ষতই ছিল। তবু অর্জনটা এত বড়, এটা সেলিব্রেট করাই যায়। বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী এবং বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে এর চেয়ে বড় উপহার আর হতে পারে না। বাংলাদেশের বড় প্রমোশন হয়েছে, বাংলাদেশ গ্র্যাজুয়েট হয়েছে। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের দ্বারপ্রান্তে। জাতিসংঘের প্রয়োজনীয় দুই দফা সুপারিশ মিলেছে। ২০২৬ সালে আমরা বুক ফুলিয়ে বলতে পারব, বাংলাদেশ আর দরিদ্র বা স্বল্পোন্নত নয়, আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশ। এখন যাত্রা উন্নত দেশের পথে। বাংলাদেশের এ প্রমোশন অটো প্রমোশন নয়; সাধারণ মানুষের কঠোর পরিশ্রম, টানা রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, সরকারের ধারাবাহিকতা, সরকারের প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা ও নীতিসহায়তার হাত ধরেই এসেছে এ প্রমোশন, ৫০ বছর বয়সী বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অর্জন।

উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উত্তরণে বাংলাদেশের লাভ হবে না ক্ষতি- এ প্রশ্নের উত্তর দুই ভাবেই দেওয়া যায়। যারা সব সময় অর্ধেক গ্লাস খালি দেখেন তারা অনেক নেতিবাচক দিক তুলে ধরতে পারবেন এবং সেগুলো হয়তো সত্যিও। এটা এ প্রমোশনে অনেক সম্ভাবনা যেমন আছে, আছে অনেক চ্যালেঞ্জও। একটা উদাহরণ দিলে আপনাদের বুঝতে সুবিধা হবে। আপনি গ্রামের দরিদ্র পরিবার। ছোট্ট কুঁড়েঘরে থাকেন। অল্প আয়, নুন আনতে ফুরায় দশা। তবে গ্রামের সবার সহায়তা, সরকারি ভাতা, জাকাত-ফিতরায় ভালোই চলে যাচ্ছে। প্রয়োজনে ক্ষুদ্র ঋণও পাচ্ছিলেন। এখন আপনার আয় একটু বেড়েছে। কুঁড়েঘর থেকে টিনের ঘর হয়েছে। নিম্নবিত্ত থেকে আপনি নিম্নমধ্যবিত্ত হয়েছেন। এখন আপনার ভাতা, সহায়তা, জাকাত-ফিতরা বন্ধ হয়ে যাবে। তাতে তাৎক্ষণিকভাবে আপনার চলতে একটু কষ্ট হবে। কিন্তু গ্রামে আপনার মর্যাদা বাড়বে। পাবেন ব্যাংকের ঋণও। যদি আপনার ইচ্ছা থাকে, সক্ষমতা থাকে প্রাথমিক ধাক্কা সামলে কিন্তু আপনি আরও সামনে এগিয়ে যেতে পারবেন। আপনি কোনটা বেছে নেবেন? আপনি কি নিম্নবিত্তই থাকতে চাইবেন, নাকি নিম্নমধ্যবিত্তের মর্যাদায় উন্নীত হতে চাইবেন? এ প্রশ্নের উত্তরেই লুকিয়ে আছে বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ।

উন্নয়নশীল দেশের পথে বাংলাদেশের যাত্রাটা এক দিনের নয়, আসলে এক যুগের। উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ২০১৫ সালেই নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্নমধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হয়। তবে উন্নয়নশীল দেশে যাত্রাপথে সেটি একটি ধাপ মাত্র। উন্নয়নশীল দেশের পথে যাত্রাটা অত মসৃণ ছিল না, বন্ধুর ও সমস্যাসংকুল পথ পেরিয়েই বাংলাদেশকে আজকের মহাসড়কে উঠতে হয়েছে। জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট সিডিপির পরপর দুটি সুপারিশ পেলেই কোনো দেশের সামনে সম্ভাবনার এ দুয়ার উন্মুক্ত হয়। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ পেয়েছিল প্রথম সুপারিশ। এবার পেল দ্বিতীয় ও চূড়ান্ত সুপারিশ। সাধারণত চূড়ান্ত সুপারিশের তিন বছরের মধ্যে মেলে চূড়ান্ত স্বীকৃতি। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশ দুই বছর বাড়তি সময় চেয়েছে এবং পেয়েছে। সে হিসেবে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বিশ্বে মর্যাদার সঙ্গে মাথা উঁচু করে চলবে ২০২৬ সাল থেকে। সিডিপি তিনটি সূচকের ভিত্তিতে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীতের সুপারিশ করে। সূচক তিনটি হলো : মাথাপিছু আয়, মানবসম্পদ ও অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা। দুই দফা সুপারিশেই বাংলাদেশ তিনটি সূচকে সাফল্যের সঙ্গে উতরে গেছে। এখানেই বাংলাদেশের অর্জনের মাহাত্ম্য। তিনটি সূচকের দুটিতে নির্ধারিত নম্বর পেলেও বাংলাদেশ সুপারিশ পেত। এমনকি অন্য দুটি সূচকে খারাপ করলেও শুধু মাথাপিছু আয় নির্ধারিত মাত্রার দ্বিগুণ হলেও সুপারিশ পাওয়া সম্ভব ছিল। এর আগে কোনো কোনো দেশ একটি বা দুটি সূচকে পাস করেই গ্র্যাজুয়েট হয়েছে। বাংলাদেশ তিনটিতেই লেটার মার্কস পেয়ে পাস করেছে। এখনকার মানে বললে বলতে হবে বাংলাদেশ গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। তিনটি সূচকেই দারুণভাবে উতরে যাওয়া আমাদের উন্নয়নের ভারসাম্যের প্রমাণ। সব মিলে বাংলাদেশ নিজের যোগ্যতায় ও সক্ষমতায় উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উঠে যেতে পারবে।

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হলে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জে পড়তে হবে রপ্তানি খাতকে। আরও সুনির্দিষ্ট করে বললে তৈরি পোশাক খাতকে। স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) আওতায় শুল্কমুক্ত বাণিজ্য সুবিধা পায়। তবে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হলে ২০২৬ সাল থেকে এসব সুবিধা বন্ধ হয়ে যাবে। উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হলে বাড়তি শুল্কের কারণে রপ্তানি আয় বছরে সাড়ে ৪৫ হাজার কোটি টাকা কমে যেতে পারে। এ ছাড়া বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারে দারুণ গতিতে থাকা ওষুধশিল্প। তখন বাংলাদেশকে ওষুধের পেটেন্টের ওপর বাড়তি অর্থ দিতে হবে। তখন ওষুধের দাম বেড়ে যাবে। উন্নয়নশীল দেশ হয়ে গেলে আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলোর কাছ থেকে সহজ শর্তে ঋণ পাওয়ার সুযোগ কমে যেতে পারে। তা ছাড়া উন্নয়নশীল দেশ হয়ে গেলে কৃষি খাতে ভর্তুকি বন্ধ বা কমাতে হতে পারে। উন্নয়নশীল দেশ হলে আয় কমে যাবে, কিন্তু বেড়ে যাবে ব্যয়। তখন জাতিসংঘে আমাদের বেশি চাঁদা দিতে হতে পারে।

এত সমস্যা শুনে কেউ কেউ কি একটু ভয় পাচ্ছেন? ভয় পাওয়ার কিচ্ছু নেই। চেয়েচিন্তে পোলাও খাওয়ার চেয়ে নিজের অর্জনে ডাল-ভাত খাওয়াও অনেক সুখের। ২০২৬ সাল থেকে বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন, তা একদমই নিজেদের। সমস্যাগুলো শুনলেন, এবার সম্ভাবনাগুলো শুনুন। একদম নগদ লাভ হলো বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হবে। একাত্তরের স্বাধীনতার পর থেকে ’৭৫ পর্যন্ত ছিল যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনের লড়াই। পরের দেড় দশক কেটেছে সামরিক শাসকদের দখলে। তখন মানুষ বাংলাদেশকে চিনত ঝড়, ঝঞ্ঝা, জলোচ্ছ্বাসের কারণে। বাংলাদেশের বাজেটের জন্য তাকিয়ে থাকতে হতো বিদেশি সাহায্যের দিকে। দীর্ঘ রাজনৈতিক টানাপড়েন, অস্থিতিশীলতা কাটিয়ে ২০০৯ সাল থেকে উন্নয়নের পথে বাংলাদেশের নবযাত্রা হয়। সে পথেরই একটি স্টেশন উন্নয়নশীল দেশ। চূড়ান্ত লক্ষ্য ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হওয়া। বাংলাদেশ এখন একটি ব্র্যান্ড। এখন এ ব্র্যান্ড ভ্যালু ক্যাশ করার সময়।

উন্নয়নশীল দেশ এখন আর রাজনৈতিক সেøাগান নয়। এটা জাতিসংঘ-স্বীকৃত বাস্তবতা। গত এক যুগে উন্নয়ন প্রচেষ্টার স্বীকৃতি। বর্তমান সামাজিক ও অর্থনৈতিক সক্ষমতায় বাংলাদেশের সামনে খুলে যেতে পারে সম্ভাবনার নতুন দুয়ার। আকৃষ্ট হবে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। স্বল্প সুদে না হলেও বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ঋণদাতা সংস্থাগুলোর কাছ থেকে বেশি সুদে অনেক বেশি ঋণ নিতে পারবে। নিজেদের অর্থে পদ্মা সেতু করে বাংলাদেশ আগেই তার সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে। এখন বেশি ঋণ পেলে অবকাঠামো ও মানবসম্পদ উন্নয়নে আরও মনোযোগ দিতে পারবে বাংলাদেশ। আর আমার সবচেয়ে বড় ভরসা বাংলাদেশের মানুষের ওপর। বাংলাদেশের মানুষ অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারে। ঝড়-বন্যা-সাইক্লোন কিছুই তাদের দাবিয়ে রাখতে পারে না।

তবে উন্নয়নশীল দেশের পথে যাত্রার আগামী পাঁচ বছর এবং উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার পরের পাঁচ বছর- সামনের এ ১০ বছর আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে যেতে আমাদের একটা লাফ দিতে হবে। সে লাফটা যাতে ভালোভাবে দেওয়া যায় সেজন্য এখন থেকেই সুষ্ঠু পরিকল্পনা করে প্রস্তুতি নিতে হবে। কোথায় কোথায় ধাক্কা লাগতে পারে, সে ধাক্কা সামাল দেওয়ার জন্য আমরা কী কী করতে পারি তা বাস্তবায়ন করতে হবে সুষ্ঠুভাবে। অর্থনীতিতে যেটুকু ধাক্কা লাগবে সেটুকু যেন আমরা টের না পাই তা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের অর্থনীতির এখন যে গতি সে গতিজড়তাতেই আমরা লাফটা দিতে পারব। উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার পরের পাঁচ বছর আরও গুরুত্বপূর্ণ। কারণ উন্নয়নশীল দেশ হলে উন্নয়নের গতি একটু মন্থর হয়ে যেতে পারে। অনেক দেশই উন্নয়নশীল দেশে পৌঁছে গতি হারিয়েছে। প্রাথমিক ধাক্কা সামলে আমরা যাতে আবার গতি ফিরে পাই সেজন্য সৃষ্টিশীল এবং সাহসী উদ্যোগ নিতে হবে। গার্মেন্ট-নির্ভরতা কমিয়ে রপ্তানি পণ্যে বৈচিত্র্য আনতে হবে। সৃষ্টি করতে হবে নতুন বাজার। নতুন নতুন দেশের সঙ্গে নতুন নতুন চুক্তি করতে হবে। মনোযোগ দিতে হবে মানবসম্পদে, গড়ে তুলতে হবে দেশি শিল্প। সবচেয়ে বড় কথা হলো উন্নয়নের কোয়ান্টিটির পাশাপাশি এবার নজর দিতে হবে কোয়ালিটির দিকে। মানুষের জীবনমানের সামগ্রিক উন্নয়ন ঘটাতে হবে। দুই বেলা দুই মুঠো ভাত নয়, খাবার হতে হবে পুষ্টিকর। দুর্নীতি দূর করতে হবে। সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে। উন্নয়নের পাশাপাশি গণতন্ত্র, মানবাধিকার, ভোটাধিকার, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। শুধু অর্থনীতিতে নয়, উন্নয়নটা হতে হবে সামগ্রিক। উন্নয়নের সুফল যেন সব মানুষের ঘরে পৌঁছে নিশ্চিত করতে হবে তাও। এ অর্জন আওয়ামী লীগের নয়, বিএনপির নয়; এ অর্জন আমাদের সবার, এ অর্জন বাংলাদেশের। হিপ হিপ, হুররে, থ্রি চিয়ার্স ফর বাংলাদেশ।

 

                লেখক : সাংবাদিক।


আপনার মন্তব্য