শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১০ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ মার্চ, ২০২১ ২৩:২৬

যথাযথ নিষেধাজ্ঞা

ধর্ষিতা নয়, ধর্ষকের পরিচিতি প্রচার পাক

ধর্ষণের শিকার জীবিত বা মৃত নারীর সব ধরনের ছবি ও পরিচয় গণমাধ্যমে প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে হাই কোর্ট। সোমবার বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চ এ নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি ধর্ষণের শিকার নারীর ছবি ও পরিচয় প্রকাশ বন্ধে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে রুল জারিও করেছেন। ১৯ জানুয়ারি ধর্ষণের শিকার জীবিত বা মৃত নারীর ছবি ও পরিচয় গণমাধ্যমে প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে হাই কোর্টে ওই রিট করা হয়। জাস্টিস ওয়াচ ফাউন্ডেশনের পক্ষে ব্যারিস্টার মাহফুজুর রহমান মিলনের দায়েরকৃত রিটে আইন সচিব, তথ্য সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়। রিট দায়েরকারীর ভাষ্য, ধর্ষণের শিকার কোনো নারীর ছবি প্রকাশে আইনে বাধা থাকলেও হামেশাই বিভিন্ন গণমাধ্যমে তা প্রকাশ করা হচ্ছে। এতে ধর্ষিতার পরিবারের সদস্যরা সামাজিকভাবে হেয় হচ্ছেন। বিশেষ করে সম্প্রতি ধর্ষণের শিকার হয়ে মারা যাওয়া ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের এক শিক্ষার্থীর ছবি দেশের অধিকাংশ গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে। এ ছবি প্রকাশের ঘটনা তাকে ব্যথিত করেছে। তাই সংক্ষুব্ধ হয়ে তিনি রিট করেছেন। ধর্ষণ একটি মারাত্মক অপরাধ। যারা এ অপরাধের শিকার হয় তাদের ক্ষয়ক্ষতি কোনো কিছুতেই পূরণ করা সম্ভব নয়। সংবাদমাধ্যমে ধর্ষিতার ছবি প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও অসচেতনতার কারণে নানাভাবে তা লঙ্ঘিত হচ্ছে। আশা করা যায় হাই কোর্টের সর্বশেষ নিষেধাজ্ঞা এ ধরনের বিচ্যুতির অবসান ঘটাবে। ধর্ষিতা কিংবা তাদের পরিবারের পরিচিতি প্রকাশের বদলে ধর্ষকের পরিচিতি ব্যাপকভাবে প্রচারের উদ্যোগ নেওয়া হবে। ধর্ষকদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ ও ঘৃণা সৃষ্টিতে যা অবদান রাখতে সক্ষম হবে। শুধু গণমাধ্যম নয়, ফেসবুকসহ সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ধর্ষিতার ছবি ও পরিচিতি প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা থাকা উচিত।