শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৯ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ মে, ২০২১ ২৩:২৯

বিশ্ব ফ্যামিলি ডাক্তার দিবস

আহমেদ শরীফ শুভ

Google News

১৯ মে বিশ্ব ফ্যামিলি ডাক্তার দিবস। ২০১০ সাল থেকে সারা পৃথিবীর ফ্যামিলি ফিজিশিয়ান/জেনারেল প্র্যাকটিশনারদের সংগঠন ওনকার(WONCA) উদ্যোগে প্রতি বছর এ দিনে দেশে দেশে বিশ্ব ফ্যামিলি ডাক্তার দিবস পালিত হয়ে আসছে। সামগ্রিক স্বাস্থ্যব্যবস্থায় ফ্যামিলি ফিজিশিয়ান বা যথাযথ ট্রেনিংপ্রাপ্ত জেনারেল প্র্যাকটিশনারদের ভূমিকা তুলে ধরা ও জনমনে সচেতনতা বৃদ্ধিই এ দিবস পালনের উদ্দেশ্য। এবারের বিশ্ব ফ্যামিলি ডাক্তার দিবসের স্লোগান- ‘ফ্যামিলি ডাক্তারদের নিয়ে ভবিষ্যৎ বিনির্মাণ’। ফ্যামিলি ডাক্তারদের সঠিক প্রশিক্ষণ ও একটি দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থায় তাদের যথাযথ ভূমিকা পালনের সুযোগ সৃষ্টির মধ্যেই সে দেশের সামগ্রিক জনস্বাস্থ্যের উত্তরণ নিহিত থাকায় এবারে এ স্লোগান বেছে নেওয়া হয়েছে। ফ্যামিলি ডাক্তারদের উৎকর্ষ ও আধুনিকায়নের মধ্যেই স্বাস্থ্যব্যবস্থার সাফল্য নির্ভর করে এ তত্ত্বটি এখন বিশ্ববিদিত।

বাংলাদেশের প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থার বিন্যাসের প্রেক্ষাপটে এবারের বিশ্ব ফ্যামিলি ডাক্তার দিবসটি বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। আমাদের দেশে ফ্যামিলি মেডিসিন কিংবা জেনারেল প্র্যাকটিস আজও একটি বিশেষায়িত ডিসিপ্লিন হিসেবে গড়ে ওঠেনি। চিকিৎসা পেশার এ শাখাকে ক্যারিয়ার হিসেবে নেওয়ার ব্যাপারে ডাক্তারদের অনীহার এটি অন্যতম প্রধান কারণ। সেই সঙ্গে জনসাধারণের মধ্যে ফ্যামিলি মেডিসিন বিষয়ে সচেতনতার অভাবও তার অনুঘটক হিসেবে কাজ করে।

ফ্যামিলি মেডিসিন সম্পর্কে আমাদের ধারণা অস্পষ্ট। পাশ্চাত্যের দেশগুলোয় এবং অনেক উন্নয়নশীল দেশে ‘ফ্যামিলি মেডিসিন’, ‘ফ্যামিলি প্র্যাকটিস’ এবং ‘জেনারেল প্র্যাকটিস’ নামগুলোকে অদলবদল করে ব্যবহার করা হয়। মূলত এগুলো একই ডিসিপ্লিনের ভিন্ন ভিন্ন নাম। কিন্তু বাংলাদেশে জেনারেল প্র্যাকটিস সম্পর্কে জনমনে যে ধারণা আছে তা এবং উন্নত বিশ্বের ফ্যামিলি প্র্যাকটিস বা জেনারেল প্র্যাকটিস পুরোপুরি এক নয়। বাংলাদেশে যারা জেনারেল প্র্যাকটিস করেন তার অধিকাংশই কোনো না কোনো কারণে চিকিৎসাবিজ্ঞানের অন্য শাখায় উচ্চতর ডিগ্রি গ্রহণ করেন না। দীর্ঘদিন ধরে প্র্যাকটিস করার কারণে তাদের অনেকেই অভিজ্ঞ হলেও স্নাতকোত্তর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কিংবা ট্রেনিংয়ের অভাবে তাদের অনেকেরই সামগ্রিক রোগী ব্যবস্থাপনায় সীমাবদ্ধতা দেখা যায়। অধিকাংশের পক্ষেই যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মেলানো কঠিন হয়ে পড়ে। যেহেতু বাংলাদেশে প্র্যাকটিস অব্যাহত রাখার জন্য বিষয়ভিত্তিক অব্যাহত পড়াশোনার (কন্টিনিউয়িং মেডিকেল এডুকেশন) বাধ্যবাধকতা নেই তাই এ শ্রেণির প্র্যাকটিশনাররা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নিজের দক্ষতা ও পেশাগত জ্ঞান হালনাগাদ করার জন্য নিয়মিত কোনো প্রশিক্ষণ কিংবা আনুষ্ঠানিক শিক্ষায় অংশ নেন না। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় তারা পেশাগত জ্ঞান হালনাগাদ করার জন্য মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভদের দেওয়া তথ্য-উপাত্তের ওপর নির্ভর করেন যা অনেক ক্ষেত্রেই পক্ষপাতদুষ্ট। ফলে তাদের কারও কারও মধ্যে হীনমন্যতা, ভর কাজ করাও বিচিত্র নয়। আর দক্ষ জেনারেল প্র্যাকটিশনারের অপ্রতুলতার কারণে এ ডিসিপ্লিনের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থার অভাবও দেখা যায়। জেনারেল প্র্যাকটিশনারদের বোঝাতে অনেকেই ‘সিম্পল এমবিবিএস’ কথাটি ব্যবহার করেন। অর্থাৎ তারা ধরেই নেন যে জেনারেল প্র্যাকটিশনার মাত্রই শিক্ষাগত যোগ্যতা এমবিবিএসে শেষ হয়েছে।

উন্নত বিশ্বে ফ্যামিলি বা জেনারেল প্র্যাকটিসের ব্যাপারটি এমন নয়। সেসব দেশে এমবিবিএস পাস করার পর ইন্টার্নশিপ শেষ করে যে কেউ জেনারেল প্র্যাকটিশনার কিংবা ফ্যামিলি ফিজিশিয়ান হিসেবে প্র্যাকটিস শুরু করতে পারেন না। তারা হয়তো কোনো প্রশিক্ষিত ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানের অধীনে এবং প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে শিক্ষার্থী প্র্যাকটিশনার হিসেবে কাজ করতে পারেন, কিন্তু স্বতন্ত্রভাবে প্র্যাকটিস করার লাইসেন্স পান না। স্বনির্ভর প্র্যাকটিশনারের লাইসেন্স পেতে হলে তাদের ফ্যামিলি মেডিসিন বা জেনারেল প্র্যাকটিসে উচ্চতর প্রশিক্ষণ ও ডিগ্রি অর্জন করতে হয় (এমডি, রয়্যাল কলেজের ফেলোশিপ ইত্যাদি)। মেডিসিন স্পেশালিস্ট, সার্জন, শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ প্রমুখকে যেমন চার বছরের প্রশিক্ষণ শেষে ফেলোশিপ বা এমডি পরীক্ষায় পাস করে বিশেষজ্ঞের স্বীকৃতি লাভ করতে হয়, ফ্যামিলি প্র্যাকটিশনারকেও এমবিবিএস ডিগ্রির পর অনুরূপ প্রশিক্ষণ শেষে পেশাগত পরীক্ষায় পাস করে স্বনির্ভর জেনারেল প্র্যাকটিশনার হিসেবে লাইসেন্স পেতে হয়। তাতে ডাক্তার নিজের ওপর যেমন আস্থাশীল হন, রোগীরাও পরিপূর্ণ নির্ভরতায় তাদের স্বাস্থ্যসেবা নিতে পারেন। সেসব দেশে অন্য কোনো বিশেষজ্ঞ দেখাতে হলে রোগীকে প্রথমে ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানদের দ্বারস্থ হতে হয়। কারণ ৮০% রোগের চিকিৎসা ফ্যামিলি ডাক্তারদের দ্বারাই সম্ভব। ফলে অন্য বিশেষজ্ঞদের ওপর রোগী দেখার চাপ কমে। সে কারণে তারা সময় নিয়ে রোগীকে সর্বোচ্চ সেবা দিতে পারেন। জেনারেল প্র্যাকটিশনারদের পক্ষে যেসব রোগের চিকিৎসা পূর্ণাঙ্গভাবে দেওয়া সম্ভব হয় না সেসব ক্ষেত্রে তারা নির্ধারণ করেন কোন রোগীকে কোন ধরনের বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠাবেন। এ সিদ্ধান্তটি রোগী নিজে নেন না। কারণ কোন ধরনের বিশেষজ্ঞ এ রোগের সঠিক চিকিৎসা দিতে পারবেন তা রোগী নন, ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানই ভালো জানবেন।

উদাহরণে বিষয়টি স্পষ্ট হতে পারে। ধরে নিই, এক রোগীর বুকে ব্যথা হচ্ছে। প্রথমেই তিনি হয়তো হৃদরোগ মনে করে একজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যেতে চাইবেন। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ সময় ব্যয় করে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা সেরে জানালেন এটা হৃদরোগ নয়। এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। বুকের ব্যথার নানা কারণ থাকে। বিভিন্ন রকমের হৃদরোগ ছাড়াও ফুসফুসের বিভিন্ন ইনফেকশন, পাঁজরের তরুণাস্থির প্রদাহ, পাকস্থলী কিংবা খাদ্যনালির প্রদাহ, এমনকি মানসিক কারণেও বুকে ব্যথা অনুভূত হতে পারে, যা একজন সাধারণ রোগীর পক্ষে আলাদা করে বোঝা সম্ভব নয়। কিন্তু রোগী ততক্ষণে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে গিয়ে শ্রম, অর্থ এবং সময় ব্যয় করেছেন। এখানেই একজন ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানের ভূমিকা ও সামগ্রিক সমন্বয়ের দায়িত্ব স্পষ্ট হয়ে ওঠে। একজন রোগী প্রথমে তার কাছে গেলে তিনি রোগের ইতিহাস নিয়ে প্রয়োজনীয় শারীরিক পরীক্ষা করে বুঝতে পারবেন এটা এমন কোনো রোগ কি না যা তিনি সমাধান দিতে পারেন। যদি না পারেন তাহলে তিনি নির্ধারণ করবেন রোগীকে কোন ধরনের বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠাতে হবে। তাতে ৮০% রোগীর চিকিৎসা প্রাথমিক পর্যায়ে হয়ে যাবে। বাকি ২০% সঠিক বিশেষজ্ঞ দেখাতে পারবেন। এক বিশেষজ্ঞ থেকে অন্য বিশেষজ্ঞের কাছে দৌড়াতে হবে না। বিশেষজ্ঞ সেবার ওপরও চাপ কমে আসবে।

লেখক : অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী ফ্যামিলি ফিজিশিয়ান  ও অনাবাসিক ফ্যাকাল্টি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ফ্যামিলি মেডিসিন ট্রেনিং অ্যান্ড রিসার্চ।