শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৩ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মে, ২০২১ ২৩:২৭

শাওয়ালের রোজার ফজিলত

মুফতি মাহমুদুল হক জালীস

Google News

শাওয়াল একটি আরবি শব্দ। এর অর্থ উঁচু করা, উন্নতকরণ; উন্নত ভূমি; পূর্ণতা, ফলবতী, পাল্লা ভারী হওয়া, গৌরব করা, বিজয়ী হওয়া; প্রার্থনায় হাত উত্তোলন করা বা ভিক্ষায় হাত প্রসারিত করা। সুতরাং এ মাসের আমলের দ্বারা উন্নতি লাভ হয়; নেকির পাল্লা ভারী হয়; গৌরব অর্জন হয় ও সাফল্য আসে। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম স্বয়ং নিজে শাওয়ালের রোজা রাখতেন এবং সাহাবায়ে কিরামকে রোজা রাখার নির্দেশ দিতেন। হজরত আবু আইয়ুব আনসারি (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রমজানের রোজা রাখল এরপর শাওয়ালের ছয়টি রোজা রাখল সে যেন সারা বছরই রোজা রাখল।’ মুসলিম। রমজানের ৩০ রোজার সঙ্গে শাওয়ালের ছয় রোজা যুক্ত হলে মোট রোজার সংখ্যা হয় ৩৬। আর প্রতিটি পুণ্যের জন্য ১০ গুণ পুরস্কারের কথা উল্লেখ রয়েছে কোরআনে। আল্লাহতায়ালা ঘোষণা করেন, ‘যে ব্যক্তি কোনো সৎ কাজ নিয়ে আসবে তার জন্য প্রতিদান হবে তার ১০ গুণ।’ সুরা আনয়াম, আয়াত ১৬০।

সুতরাং ৩৬টি রোজার ১০ গুণ হলো ৩৬০ রোজার সমান (এটি পুরস্কারের দিক থেকে)। অর্থাৎ সারা বছর রোজার সমান সওয়াব হবে। হজরত সাওবান (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘রমজানের রোজা ১০ মাসের রোজার সমতুল্য আর (শাওয়ালের) ছয় রোজা দুই মাসের রোজার সমান। সুতরাং এ হলো এক বছরের রোজা।’ নাসায়ি।

হজরত উবায়দুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘একদিন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞাসা করলাম, হে আল্লাহর রসুল! আমি কি সারা বছর রোজা রাখতে পারব? তিনি বললেন, তোমার ওপর তোমার পরিবারের হক রয়েছে। কাজেই তুমি সারা বছর রোজা না রেখে রমজানের রোজা রাখ এবং রমজান-পরবর্তী শাওয়ালের ছয়টি রোজা রাখ, তাতেই সারা বছর রোজা রাখার সওয়াব পাবে।’ তিরমিজি। শাওয়ালের ছয় রোজা নারী-পুরুষ সবার জন্যই সুন্নত। প্রত্যেক সুস্থ সবল ব্যক্তির উচিত ফজিলতপূর্ণ এ ছয়টি রোজা রেখে পূর্ণ এক বছর রোজা রাখার সমান সওয়াব হাসিল করা। মাসের শুরু-শেষ কিংবা মাঝামাঝি সব সময়ই রাখা যায় এ রোজাগুলো। একসঙ্গে অথবা মাঝে ফাঁক রেখে পৃথকভাবেও রাখা যায়। শাওয়ালে শুরু করে শাওয়ালে শেষ করলেই হলো। তবে ঈদুল ফিতরের পর শাওয়ালের প্রথম দিকে একসঙ্গে ছয়টি রোজা রাখাই উত্তম। কোনো মুসলিম নারী-পুরুষ যদি তার অন্য কোনো মুসলিম ভাই-বোনকে এ রোজা রাখতে উদ্বুদ্ধ করে এবং সে যদি তার পরামর্শে রোজা রাখে তবে উদ্বুদ্ধকারীও সওয়াব পাবে। উল্লেখ্য, কেউ নফল রোজা রেখে ভেঙে ফেললে তার কাজা আদায় করা ওয়াজিব।

 

লেখক : মুহাদ্দিস

খাদিমুল ইসলাম মাদরাসা কামরাঙ্গীর চর, ঢাকা।