শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ মার্চ, ২০২১ ০৯:৫২
প্রিন্ট করুন printer

একাত্তরের বন্ধু ইন্দিরা গান্ধী

তানভীর আহমেদ


একাত্তরের বন্ধু ইন্দিরা গান্ধী

অগ্রগণ্য একজন

ভারতের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ইন্দিরা গান্ধী। তিনি শুধু এই উপমহাদেশেরই নন বরং গোটা বিশ্বের অগ্রগণ্য রাজনীতিবিদের একজন। আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকেই একমত, ইন্দিরা গান্ধী বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী নারী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন। ইন্দিরা গান্ধী ১৯১৭ সালের ১৯ নভেম্বর ভারতের বিখ্যাত নেহরু পরিবারে জম্মগ্রহণ করেন। ভারতবর্ষের স্বাধীনতা-সংগ্রামের অন্যতম পথিক কংগ্রেস নেতা মতিলাল নেহরুর নাতনি, বাবা বিখ্যাত পন্ডিত জওহরলাল নেহরু আর মা কমলা দেবীর মেয়ে ইন্দিরা। বলা হয়, তাঁর রক্তেও ছিল রাজনীতি। পারিবারিকভাবেই রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন তিনি। আনুষ্ঠানিক ডিগ্রি না থাকলেও ইন্দিরা ছিলেন উচ্চশিক্ষিত, পড়ালেখা করেন শৈশবে সুইজারল্যান্ডে ও পরে অক্সফোর্ডে। ১৯৩৪-৩৫ সালে যোগ দেন শান্তিনিকেতনে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর নামকরণ করেন ইন্দিরা প্রিয়দর্শিনী। সেই থেকে প্রিয়দর্শিনী গান্ধী নামেই পরিচিত হন ইন্দিরা। ভারতের রাজনীতিতে ১৯৪২ সালের পরপরই সক্রিয় হয়ে ওঠেন। ফিরোজ গান্ধীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পর রাজনীতিতে তিনি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠেন। তাঁকে কারাবন্দীও করা হয়েছিল। তবে তাঁকে আটকে রাখা সম্ভব হয়নি। গণজোয়ারে তিনি বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে দ্বিগুণ উদ্যমে রাজনীতিতে রাজপথ মাতিয়ে তোলেন। ১৯৬৪ সালে তিনি লাল বাহাদুর শাস্ত্রীর মন্ত্রিসভায় তথ্য ও যোগাযোগমন্ত্রী নিযুক্ত হন। তবে রাজনৈতিক জীবনে বড় রকমের ঢেউ আসে ১৯৬৬ সালে। সেই বছর ভারতের প্রধানমন্ত্রী হন ইন্দিরা গান্ধী। তাঁর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে আসা রাজনৈতিক সংকট মোকাবিলা করেছেন দক্ষ হাতে। মোট ১৫ বছর ধরে সফলভাবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। তাঁর দুই পুত্র সঞ্জয় এবং রাজীব। ইন্দিরা গান্ধী ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়ে সত্যিকারের বন্ধুত্বের পরিচয় দেন।

 
বাংলাদেশকে স্বীকৃতি
বাংলাদেশ তখন পূর্ব পাকিস্তান। স্বাধীনতার স্বপ্নে বিভোর এ দেশের মানুষ। জীবন উৎসর্গ করে হলেও স্বাধীনতার নতুন সূর্য চাই। পশ্চিম পাকিস্তানের নিপীড়ন রুখে স্বাধীনতা যুদ্ধে দাঁড়ানোর প্রস্তুতিকালে ভারতের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। বিশেষত ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী পশ্চিম পাকিস্তানের সঙ্গে পূর্ব পাকিস্তানের যুদ্ধ নিয়ে বিশ্ব মিডিয়ায় কী বলছেন সেটা তাৎপর্যপূর্ণ ছিল। পাকিস্তান তখন স্বাধীন রাষ্ট্র হওয়ায় এর ভিতরে পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের করা যুদ্ধকে বাকি সব দেশ গৃহযুদ্ধ হিসেবেই দেখতে চেয়েছে। যুদ্ধের পরপরই কিছু আন্তর্জাতিক মিডিয়া ও রাষ্ট্রপ্রধানরাও সেভাবেই বিশ্লেষণ করছিলেন। কিন্তু ইন্দিরা গান্ধী ততদিনে পূর্ব পাকিস্তান নয়, পূর্ব বাংলা বলে সম্বোধন করছিলেন। ২৫ মার্চ ঢাকায় গণহত্যার পর ২৭ মার্চ ভারতের লোকসভায় ভাষণ দিয়ে করণীয় তুলে ধরেন তিনি। ৩১ মার্চ বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধে সর্বাত্মক সহযোগিতার প্রস্তাব লোকসভায় উত্থাপন করলে সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়। মুজিবনগর সরকার গঠন হওয়ার পরপরই আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক পরিমনন্ডলে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন ইন্দিরা গান্ধী। মে মাসে বেলগ্রেডের বিশ্বশান্তি কংগ্রেসে ভারতীয় প্রতিনিধিরা ইন্দিরা গান্ধীর বাণী পাঠ করেন। বাণীতে বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন প্রসঙ্গে প্রায় ৮০টি দেশের প্রতিনিধি করতালি দিয়ে সাদরে গ্রহণ করেন।
৮ আগস্ট বিশ্বের সব রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের কাছে ভারত সরকারের পক্ষে প্রেরিত এক বার্তায় শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন রক্ষায় ও তাঁর মুক্তির দাবিতে ইয়াহিয়া খানের ওপর চাপ সৃষ্টির আহ্বান জানান। বিশ্বব্যাপী তিনি মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে সোচ্চার ছিলেন। তবুও তাঁর কণ্ঠে বাংলাদেশ শব্দটি শোনার অধীর আগ্রহ ছিল এ দেশবাসীর। ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে নিজের বক্তব্য থেকে খুব সচেতনভাবে পূর্ব বাংলা শব্দটি কেটে ফেলে বাংলাদেশকে প্রবেশ করান তিনি। ডিসেম্বরের ৬ তারিখ লোকসভার ভাষণে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি ঘোষণা করেন।

 
যুদ্ধক্ষেত্রে কাঁধে কাঁধ
দীর্ঘ নয় মাস বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামকে সফল করতে অর্থ, অস্ত্র ও প্রশিক্ষণ দিয়ে যে বিদেশি রাষ্ট্রনেতা সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন, তিনি ইন্দিরা গান্ধী। তখন শক্তিশালী আমেরিকা ও চীন ছিল পাকিস্তানের পক্ষে। তিনি প্রথমে সরাসরি পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধে না জড়িয়ে বাংলাদেশে দখলদার বাহিনীর অত্যাচার-নির্যাতন ও শরণার্থী সমস্যাটি বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরেন। বাংলাদেশের পক্ষে বিশ্বজনমত গড়ে তুলতে ইউরোপ ও আমেরিকায় ঝটিকা সফর করেন। এদিকে দেশে শরণার্থীদের ভরণ-পোষণেরও দায়িত্ব নেন। মুক্তিযুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানের বিপুলসংখ্যক অস্ত্রশস্ত্র আর বিশাল সেনাবাহিনী ছিল। বাংলাদেশের যুদ্ধ করতে চাওয়া মানুষগুলোকে ভারতে  গেরিলা প্রশিক্ষণ প্রদানে ইন্দিরা গান্ধী সহায়তা করেন। তাদের সরবরাহ করেন অস্ত্র। রাশিয়াও এক্ষেত্রে সাহায্য করে তাঁকে।

বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীনতার এ যুদ্ধে প্রশিক্ষণ প্রদান আর অস্ত্রের পরিমাণ বাড়ানোর জন্য তিনি খরচ করেন ভারতের প্রায় সাত হাজার কোটি রুপি। ইন্দিরা গান্ধী নিজের সৈন্যদের পাঠিয়ে দেন বাংলাদেশকে সাহায্য করতে। পাঠিয়েছেন বিমানশক্তি।
 
বাংলাদেশের স্বাধীনতার পথে
বাংলাদেশের স্বাধীনতার লড়াইয়ে ইন্দিরা গান্ধী সর্বোচ্চ সহযোগিতা করেছেন। বাংলাদেশিদের সশস্ত্র সংগ্রামকে সমর্থন দেন ও বিশ্বনেতাদের কাছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্তি দিতে পাকিস্তানের ওপর চাপ দিতে সক্রিয় ছিলেন তিনি। ৩১ মার্চ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সর্বাত্মক সাহায্য-সহযোগিতার জন্য ভারতীয় লোকসভায় প্রস্তাব উত্থাপন করেন তিনি। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমদকে সাক্ষাৎকার দেন। ৭ এপ্রিল তাজউদ্দীন আহমদের সঙ্গে বৈঠক করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামীদের জন্য আশ্রয় ও রাজনৈতিক কাজ পরিচালনার সুযোগসহ সার্বিক সাহায্য প্রদানের আশ্বাস পুনর্ব্যক্ত করেন। মুজিবনগর সরকার গঠিত হলে বিশ্বব্যাপী পাকিস্তানিদের গণহত্যার বিষয়টি তুলে ধরেন। পাকিস্তানি হত্যাযজ্ঞ বাড়তে থাকায় ভারতে শরণার্থীও বাড়তে থাকে। এ প্রসঙ্গ টেনে তিনি পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ভারতের পক্ষে চুপ করে থাকা সম্ভব নয়। এরপর সম্মিলিত বিরোধী দলের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করে বাংলাদেশের ও মুক্তিযোদ্ধাদের সার্বিক সহায়তার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বেলগ্রেড বিশ্বশান্তি সম্মেলনে ইন্দিরা গান্ধীর বাণীতে বাংলাদেশকে সমর্থনের বিষয়টি বিশ্ব দরবারে উত্থাপন করা হয়। এদিকে শরণার্থী কেন্দ্রে ছুটে যাওয়া ইন্দিরা গান্ধী ১৭ মে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, যথাসময়ে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়া হবে। ৫ জুন রাজভবনে মুখ্যমন্ত্রী ও মন্ত্রীদের সঙ্গে পৃথকভাবে এবং সামরিক ও বেসামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বাংলাদেশের শরণার্থী সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি সেনাবাহিনীর ইস্টার্ন কমান্ডের প্রধান জগজিত সিং অরোরা ও পুলিশ প্রধান প্রসাদ বসুর সঙ্গেও জরুরি বৈঠকে মিলিত হন। ১ জুলাই লন্ডনের টাইমস পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারে ইয়াহিয়া খানের নতুন পরিকল্পনা পূর্ববাংলার অবস্থা আরও ভয়াবহ করে তুলবে। এই সাক্ষাৎকারের পর বিশ্ব নেতাদের কাছে নতুন বার্তা পৌঁছে দেন ইন্দিরা। ফলে কয়েকদিনের ব্যবধানেই যুক্তরাষ্ট্রের ফরেন সেক্রেটারি হেনরি কিসিঞ্জারকে বলেন, পাকিস্তানে মার্কিন অস্ত্র সরবরাহে অঞ্চলের শান্তির প্রতি হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। তার প্রায় দুই সপ্তাহ পরেই দিল্লির বুদ্ধিজীবী সম্মেলনে ভাষণ দিতে গিয়ে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, বাংলাদেশ বিষয়েও ভারত সাহসের সঙ্গে মোকাবিলা করবে এবং সম্মানজনক সমাপ্তি ঘটবে। ৮ আগস্ট তিনি বিশ্বের সব রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের কাছে বার্তা পাঠিয়ে আলোড়ন তোলেন। ১১ আগস্ট বিশ্বের ২০ রাষ্ট্র-প্রধানের কাছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রাণরক্ষার জন্য প্রভাব খাটানোর আহ্বান জানান তিনি। জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল, বিশ্ব শান্তি পরিষদের মহাসচিবের কাছেও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ নিয়ে ভারতের সমর্থনের কথা বলেন। ২৮ সেপ্টেম্বর ক্রেমলিনে সোভিয়েত নেতা ব্রেজনেভ, পোদগর্নি ও কোসিগনের সঙ্গে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে ৬ ঘণ্টা আলোচনা করেন। সোভিয়েত নেতা বাংলাদেশ বিষয়ে ভারতের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন। এর পরই সোভিয়েত-ভারত যুক্ত ইশতেহার প্রকাশ পায়। ৩ অক্টোবর সোভিয়েত প্রেসিডেন্ট নিকোলাই পদগর্নি দিল্লি সফর করেন। এরপর ৯ অক্টোবর শিমলায় সর্বভারতীয় কংগ্রেসের উদ্বোধনী ভাষণে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ভারত বাংলাদেশের ন্যায়সঙ্গত সংগ্রামের পাশে রয়েছে এবং ভবিষ্যতে থাকবে। পর দিনই তিনি কঠিন ভাষায় বলেন, বাংলাদেশ প্রশ্নে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের আলোচনার কোনো সম্ভাবনা নেই। ২৪ অক্টোবর বাংলাদেশ পরিস্থিতি ও শরণার্থী সমস্যা সম্পর্কে বিশ্ববাসীকে সর্বশেষ অবস্থা জানানোর উদ্দেশে ১৯ দিনের বিশ্ব সফরে বের হন তিনি। ২৫ অক্টোবর ব্রাসেলসে তিনি বাংলাদেশের জনগণের গণতন্ত্র রক্ষার সংগ্রামে বিশ্ব বিবেককে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। ২৮ অক্টোবর ভিয়েনাতেও তিনি বাংলাদেশ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেন। ৩১ অক্টোবর ব্রিটেন সফর করেন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী অ্যাওয়ার্ড হিথের সঙ্গে বাংলাদেশ পরিস্থিতি সম্পর্কে ধারণা দেন। ৪ নভেম্বর আমেরিকার প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের সঙ্গে ১২৫ মিনিট বৈঠক করেন। এরপর তিনি ফ্রান্সে যান। ফরাসি প্রেসিডেন্টের দেওয়া ভোজসভায় তিনি বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যার চিত্র তুলে ধরেন। তিনি প্যারিস থেকে জার্মানি আসেন। জার্মান চ্যান্সেলর উইলি ব্রান্টের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেন। নভেম্বর জুড়েই তিনি বাংলাদেশ প্রসঙ্গে বিশ্বনেতাদের কাছে ভারতের সমর্থনের কথা প্রচার করেন। ৩০ নভেম্বর রাজ্যসভায় ভাষণে বাংলাদেশ থেকে সব পাকিস্তানি সেনা ফিরিয়ে এনে বাঙালিদের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানান। ৩ ডিসেম্বর রাত ১২টা ২০ মিনিটে ভারতবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দেন। ভাষণের মূল বিষয় ছিল বাংলাদেশ প্রসঙ্গ। তিনি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে সর্বশক্তি দিয়ে মোকাবিলা করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। ৬ ডিসেম্বর লোকসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে বাংলাদেশকে ভারত কর্তৃক স্বীকৃতি প্রদানের কথা ঘোষণা করেন। ১২ ডিসেম্বর বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ লাগিয়ে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার কথা ঘোষণা দেন। ১৩ ডিসেম্বর জাতিসংঘের মহাসচিবকে পত্র লিখেন, ১৫ ডিসেম্বর আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নিক্সনের কাছে অতিজরুরি বার্তা পাঠান।
 

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার
ইন্দিরা গান্ধী নেহরু পরিবারে জন্ম নেন। নেহরু পরিবার সবসময়ই রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল। ইন্দিরার বয়স যখন মাত্র চার তখনই তার বাবা এবং তার দাদা কারাবন্দী হন। মহাত্মা গান্ধী ইন্দিরার রাজনৈতিক জীবনকে ভীষণভাবে প্রভাবিত করেছিলেন। ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীনতা লাভ করে ব্রিটিশ শাসন থেকে। সে বছরই ইন্দিরার বাবা জওহরলাল নেহরু স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন। তখন থেকেই ইন্দিরা ছায়ার মতো বাবার পাশে পাশে থাকতেন। ১৯৩৮ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে ইন্দিরা গান্ধী ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসে যোগ দেন। রাজনৈতিক কারণেই কারাবন্দী হয়ে ৮ মাস বন্দীও থেকেছেন। ১৯৫০ সাল থেকে তিনি  জওহরলাল নেহরুর অফিস সহকারী পদে অবৈতনিক কাজ করে আসছিলেন। ১৯৫৯ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী লাল বাহাদুর শাস্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেন। ১৯৬৬ সালে প্রধানমন্ত্রী লাল বাহাদুর শাস্ত্রীর মৃত্যুর পর ইন্দিরা গান্ধী ভারতের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালে সাধারণ নির্বাচনে বিপুলসংখ্যক ভোট পেয়ে ইন্দিরা গান্ধী দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। একটানা ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ১৯৭৫ সালে তিনি দেশে শান্তি এবং শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে বিশেষ জরুরি আইন জারি করেন। এজন্য সমালোচিতও হন তিনি। ইন্দিরা গান্ধী এরপর ১৯৮০ সালে চতুর্থবারের মতো নির্বাচনে বিজয়ী হন। সব মিলিয়ে প্রায় ১৫ বছর ভারত শাসন করেছেন ইন্দিরা গান্ধী। তিনি ছিলেন তুখোড় রাজনীতিবিদ। ১৯৮৪ সালে ইন্দিরা গান্ধীর নিজের দেহরক্ষীরাই গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করে তাঁকে। 

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সম্মাননা
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ইন্দিরা গান্ধীর ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সমর্থনে তিনি বিশ্বব্যাপী রাষ্ট্রগুলোর সমর্থন আদায় করেছেন, মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র ও সামরিক সহায়তা দিয়েছেন। প্রায় ১ কোটি শরণার্থীর থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করে জীবন বাঁচিয়েছেন। তাই তাঁর এই মহান কাজের স্বীকৃতি দিতেই বাংলাদেশ সরকার ২০১১ সালে মুক্তিযুদ্ধের ৪০তম বছরে ভারতীয় সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীসহ আরও বেশ কয়েকজন বিদেশি মানুষকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননায় ভূষিত করে। ইন্দিরা গান্ধীকে ভূষিত করা হয় বাংলাদেশ স্বাধীনতা সম্মাননা পদকে (মরণোত্তর)। ওই বছরের ২৫ জুলাই ইন্দিরা গান্ধীর পুত্রবধূ সোনিয়া গান্ধীর হাতে তুলে দেওয়া হয় এ পুরস্কার। এটি ছিল বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রথমবারের মতো কোনো বিদেশির অর্জন করা সর্বোচ্চ সম্মাননা। 

শরণার্থীদের অকৃত্রিম বন্ধু
বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে রুখে দিতে পশ্চিম পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী গণহত্যা শুরু করে। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতের পর গণহত্যা পৈশাচিক উৎসবে রূপ নেয় যেন। নারী-শিশু-বৃদ্ধ কাউকেই ছাড়েনি তারা। প্রাণভয়ে তখন বাংলাদেশিরা ছুটে যায় প্রতিবেশী দেশ ভারতে। পশ্চিমবাংলা, আসাম, ত্রিপুরায় আশ্রয় নেওয়া এই বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে দেননি ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। উদ্বাস্তুদের সংখ্যা প্রতিদিন ৬০ হাজার করে হলেও তাদের জন্য আলাদা জায়গা, খাবার, ওষুধ আর প্রয়োজনীয় সবকিছুর তদারকি করেন তিনি। ১৫ ও ১৬ মে পশ্চিম বাংলা, আসাম ও ত্রিপুরায় বিভিন্ন শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করেন তিনি। শরণার্থীদের দুর্দশা দেখে তিনি ব্যথিত হন এবং বলেন, বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রামে সাফল্য লাভ করবেই। তিনি বিশ্ব মিডিয়াতেও শরণার্থীদের কষ্টের কথা তুলে ধরেন। ইন্দিরা গান্ধী মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পুরো ৯ মাস প্রায় এক কোটি বাংলাদেশি শরণার্থীকে সন্তানের মতো বুকে আগলে রাখেন। তখন ভারতের অর্থনীতিও খুব একটা আহামরি পর্যায়ে ছিল না। তবু কোটি কোটি মানুষের এই হঠাৎ প্রবেশকে বাধাগ্রস্ত করেনি দেশটি। সবদিক দিয়ে আরও আশাতীত রকমের সাহায্য করেছে বাংলাদেশকে। ইন্দিরা গান্ধীর ওপর বড় সব রাষ্ট্রের চাপ থাকলেও মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে বাংলাদেশের লাখ লাখ ঘরছাড়া মানুষকে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থান দিতে রাজি হয়ে যান তিনি।