শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৫ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ মে, ২০১৯ ২২:২৯

মওদুদের মামলা চলবে, এ্যানীর ছয় মাসে নিষ্পত্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক

সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলার কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের আবেদন আপিলেও খারিজ করা হয়েছে। গতকাল হাই কোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে মওদুদের করা আবেদন খারিজ করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেয়। অন্যদিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় দেওয়া স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নিয়েছে হাই কোর্ট। এই দুই আদেশের ফলে মওদুদ আহমদ ও এ্যানীর বিরুদ্ধে থাকা দুর্নীতি মামলা বিচারিক আদালতে চলতে বাধা নেই বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আদালতে ব্যারিস্টার মওদুদের পক্ষে ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ শুনানি করেন। দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান। এর আগে গত ৮ এপ্রিল বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাই কোর্ট বেঞ্চ মওদুদের আবেদন খারিজ করে দেয়। পরে এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন তিনি। জ্ঞাত আয়বহির্ভূত ৭ কোটি ৩৮ লাখ ৪৮ হাজার ২৮৭ টাকার সম্পদ অর্জন এবং ৪ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৫ টাকার তথ্য গোপনের অভিযোগে মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর গুলশান থানায় মামলাটি করে দুদক।

এ্যানীর মামলা ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ : বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক, সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলা ছয় মাসের মধ্যে বিচারিক আদালতকে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। মামলা বাতিলে জারি করা রুল খারিজ করে এবং স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে গতকাল বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাই কোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

বিএনপি নেতা এ্যানীর মামলা বাতিল চেয়ে করা আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০১৬ সালের ১ সেপ্টেম্বর এ মামলার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে রুল জারি করে হাই কোর্ট। ওই রুলের দীর্ঘ শুনানি শেষে রুলটি খারিজ করে এ আদেশ দেয়। আদালতে এ্যানীর পক্ষে ছিলেন সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশিদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।


আপনার মন্তব্য