শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ অক্টোবর, ২০২০ ২৩:৩৫

ফাঁড়িতে যুবক খুন

আকবরকে পালাতে সহায়তাকারী এসআই হাসান বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে রায়হান আহমদ নামের এক যুবককে নির্যাতন করে মেরে ফেলার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত এসআই আকবর হোসেন ভূইয়াকে পালাতে সহযোগিতা ও তথ্য গোপনের অভিযোগে একই ফাঁড়ির দ্বিতীয় কর্মকর্তা (টু আইসি) এসআই হাসান উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

গতকাল সন্ধ্যায় তাকে বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। সিলেট মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাময়িক বরখাস্ত হওয়া এসআই আকবর হোসেন ভূইয়াকে ফাঁড়ি থেকে পালাতে সহায়তা করেছেন এসআই হাসান উদ্দিন। এ ছাড়া আকবরের অপরাধের তথ্য গোপনও করেছেন তিনি। তাই এসআই আকবর হোসেন ভূইয়াকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। উল্লেখ্য, সিলেট মহানগরীর বন্দরবাজার ফাঁড়িতে গত ১০ অক্টোবর রাতে নগরীর নেহারীপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে রায়হান আহমদকে এসআই আকবর নির্যাতন করেন। পরদিন সকালে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রায়হানের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহত রায়হানের স্ত্রী বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূইয়াসহ চারজনকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। এর মধ্যে আকবর হোসেন পলাতক রয়েছেন ও বরখাস্ত হওয়া টিটু চন্দ্র দাসকে গ্রেফতার করে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পিবিআই। রায়হানের বাড়িতে তদন্ত দল : সিলেট মহানগরীর বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদের বাড়ি পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সদর দফতরের তদন্ত কমিটির সদস্যরা। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে নগরীর আখালিয়া নেহারীপাড়ায় রায়হানের বাসায় যান তারা। এ সময় রায়হানের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে তারা কথা বলেন। রায়হান হত্যার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত বন্দরবাজার ফাঁড়ির বরখাস্ত এসআই আকবর হোসেনকে পালিয়ে যেতে কোনো পুলিশ কর্মকর্তা বা সদস্য সহযোগিতা করেছেন কিনা তা তদন্ত করে দেখছেন দলের সদস্যরা। তদন্ত দলের নেতৃত্বে রয়েছেন পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (ক্রাইম এনালাইসিস বিভাগ) মো. আয়ুব। রায়হানের পরিবারের সঙ্গে কথা বলার পর তদন্ত কমিটির প্রধান এআইজি মো. আয়ুব সাংবাদিকদের বলেন, ‘এসআই আকবর পালিয়ে যাওয়ার সঙ্গে আর কেউ সংশ্লিষ্ট আছেন কিনা সে বিষয়টি তদন্ত করার জন্যই আমাদের সিলেট আসা। এই তদন্তের অংশ হিসেবেই আমরা রায়হানের বাড়িতে এসে তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছি।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর