শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ জুন, ২০২১ ২৩:১২

মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে সমুন্নত রেখেছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে সমুন্নত রেখেছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী
Google News

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার দেশের গণমাধ্যমকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়ার মাধ্যমে সমাজে মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে সমুন্নত রেখেছে। গতকাল জাতীয় সংসদের অধিবেশনে এ কথা বলেন তিনি।

প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য শহীদুজ্জামান সরকারের এক প্রশ্নের জবাবে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা জানান, সরকার গণমাধ্যমকর্মীদের ৪৫ শতাংশ মহার্ঘ্যভাতা নিশ্চিত করতে আইন প্রণয়ন করেছে। এটি অনুমোদনের জন্য চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তরে তিনি জানান, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া উভয়ক্ষেত্রে সাংবাদিকরা কর্মস্থলে চাকরির অনিশ্চয়তায় ভোগেন। এটা স্বাধীন গণমাধ্যমের জন্য হুমকি। তাদের চাকরির এ অনিশ্চয়তা দূর করতে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় গণমাধ্যমকর্মী (চাকরির শর্তাবলি) আইন প্রণয়ন করছে, যা বর্তমানে অনুমোদনের চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। সাংবাদিকদের আবাসনের জন্যও বিশেষ প্রকল্প গ্রহণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

একই প্রশ্নের লিখিত জবাবে প্রধানমন্ত্রী জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সাংবাদিকদের পরিবারকে সহায়তা দেওয়ার জন্য ১০ কোটি টাকা আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়েছে। করোনায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের আয় কমে যাওয়ায় মে মাসে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও অন্যান্য ব্যয় নির্বাহের জন্য ৫০ লাখ টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়েছে। সংবাদকর্মীদের কল্যাণে বর্তমান সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকার ২০১৩ সালে অষ্টম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড রোয়েদাদ ঘোষণার মাধ্যমে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের বেতন এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করেছে।

নবম ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদ ঘোষণার মাধ্যমে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের বেতন এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে বলে জানান সংসদ নেতা। প্রধানমন্ত্রী জানান, বর্তমানে দেশে প্রকাশিত পত্রিকার সংখ্যা ৩ হাজার ২২২টি। এ ছাড়া সরকার বেসরকারি খাতে ৪৫টি টেলিভিশন, ২৭টি এফএম রেডিও এবং ৩১টি কমিউনিটি রেডিও চ্যানেলের অনুমতি দিয়েছে। তিনি আরও জানান, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের ফলে গণমাধ্যম অঙ্গন শক্তিশালী হয়েছে। দেশে টিভি চ্যানেলগুলো এখন অনেক কম খরচে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করে সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

দেশেই ভ্যাকসিন উৎপাদনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে : সরকারি দলের সংসদ সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটুর প্রশ্নের লিখিত জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে বিদেশ হতে ভ্যাকসিন সংগ্রহের পাশাপাশি দেশেই ভ্যাকসিন উৎপাদনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে প্রযুক্তি হস্তান্তরের বিষয়ে ভ্যাকসিন আবিষ্কারক দেশের সঙ্গে সরকারি পর্যায়ে (জিটুজি) আলোচনা অব্যাহত আছে। একই সঙ্গে সরকার মহামারী করোনাসহ ভাইরাস প্রতিরোধক ভ্যাকসিন উৎপাদনের লক্ষ্যে একটি আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এ লক্ষ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি মন্ত্রিসভায় অনুসমর্থন ও অনুমোদনের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

দেশে করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরও জানান, দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনে সক্ষম তিনটি প্রতিষ্ঠান যথা- মেসার্স ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড, মেসার্স পপুলার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড ও মেসার্স হেলথ কেয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডের কভিড-১৯ ভ্যাকসিন উৎপাদনের সক্ষমতা ইতিমধ্যে যাচাই করা হয়েছে। মেসার্স গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড কভিড-১৯ ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তাদের উদ্ভাবিত কভিড-১৯ ভ্যাকসিনটি বর্তমানে ট্রায়াল পর্যায়ে রয়েছে।

সুন্দরবনের আয়তন বৃদ্ধি, বাঘও বেড়েছে ॥ সংরক্ষিত আসনের সুলতানা নাদিরার প্রশ্নের লিখিত জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ অরণ্য সুন্দরবন ‘সম্প্রসারিত হচ্ছে’ এবং বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। সংসদ নেতা বলেন, সুন্দরবনের আয়তন বাড়ানোর জন্য সরকার কৃত্রিম ম্যানগ্রোভ সৃষ্টির উদ্যোগ নিয়েছে। ক্যামেরা ট্রাপিংয়ের মাধ্যমে ২০১৫ সালের বাঘ শুমারি অনুযায়ী সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা ছিল ১০৬টি। ২০১৮ সালের শুমারিতে এই সংখ্যা ১১৪টি পাওয়া গেছে। বর্তমানে সুন্দরবনের প্রায় ৫৩ শতাংশ এলাকা অভয়ারণ্যের অন্তর্ভুক্ত।

কেউ গৃহহীন থাকবে না : সরকারদলীয় সংসদ সদস্য আ ক ম সরওয়ার জাহানের প্রশ্নের লিখিত জবাবে প্রধানমন্ত্রী জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের তালিকা করা হয়েছে। ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের সংখ্যা ২ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬১টি। আর জমি আছে কিন্তু ঘর নেই এমন পরিবার রয়েছে ৫ লাখ ৯২ হাজার ২৬১টি। ‘দেশের একজন মানুষও ভূমিহীন থাকবে না’ এ ঘোষণা বাস্তবায়নে পর্যায়ক্রমে সবাইকে পুনর্বাসন করা হবে। তিনি জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে গত ২৩ জানুয়ারি ৬৫ হাজার ৪০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেওয়া হয়েছে। আগামী ২০ জুন আরও ৫৩ হাজার ৩৪০টি ঘর দেওয়া হবে।

 

বঙ্গবন্ধুর বিশেষ স্মৃতিবিজড়িত স্থান সংরক্ষণ : তরিকত ফেডারেশনের সদস্য আনোয়ার হোসেনের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাজধানী ঢাকাসহ দেশের যে সব স্থানে অবস্থান করে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও বিভিন্ন আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সেসব স্থান বিশেষভাবে সংরক্ষণের জন্য বর্তমান সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের স্মরণে ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে। ইতিমধ্যে ১৫০ ফুট উঁচু গ্লাস টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছে। যশোরের রাজগঞ্জ বাজারে ও ফরিদপুরের আম্বিকা ময়দানে বঙ্গবন্ধু স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হবে।

রাজধানী ঢাকার মিন্টো রোড ও আবদুল গণি রোডের ভবনগুলোতে বঙ্গবন্ধুর অবস্থান ছিল বিধায় সেগুলো সংরক্ষণের বিষয়ে আইনানুগ কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি জানান, বাংলাদেশের যে সব স্থানে বঙ্গবন্ধু বিশেষ স্মৃতি বিজড়িত ওই সব স্থান ঘটনার তাৎপর্য, ঐতিহাসিক গুরুত্ব বিবেচনায় স্মৃতি স্বরূপ সংরক্ষণ করা হলে তরুণ ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ সম্পর্কে অবহিত হতে পারবে।

মাছের উৎপাদন ৫০ ভাগ বৃদ্ধি : সরকারদলীয় সংসদ সদস্য সহিদুজ্জামানের প্রশ্নের লিখিত জবাবে প্রধানমন্ত্রী জানান, সরকারের কার্যকর ও ফলপ্রসূ পদক্ষেপে গত ১১ বছরে দেশে মাছের উৎপাদন ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। জাতিসংঘের ২০২০ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী স্বাদু পানির মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ দ্বিতীয় স্থানে। এখন আমরা মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। বর্তমানে দৈনিক ৬০ গ্রাম চাহিদার বিপরীতে আমরা ৬২ দশমিক ৫৮ গ্রাম মাছ গ্রহণ করছি।

এই বিভাগের আরও খবর