শিরোনাম
প্রকাশ : ১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ১৩:৫৭

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু

আজ বৃহত্তম জুমার জামাত

খায়রুল ইসলাম, গাজীপুর

আজ বৃহত্তম জুমার জামাত

টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে শুক্রবার বাদ ফজর ভারতের মাওলানা ওসমানের আ’ম বয়ানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। বয়ান বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা আবদুল্লাহ মনসুর। ইজতেমা ময়দানে বৃহস্পতিবার বাদ জোহর থেকেই ইজতেমায় আগতদের উদ্দেশ্যে বয়ান শুরু হয়ে যায়। আজ শুক্রবার ইজতেমা ময়দানে বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত হয়। 

জুমার নামাজে ইজতেমার মুসল্লী ছাড়াও শরীক হন ঢাকা ও গাজীপুরের আরো লাখো মুসল্লী। জুমার জামাতের ইমামতি করেন বাংলাদেশি মাওলানা মোশাররফ হোসেন। তিন দিনের এই বিশ্ব ইজতেমায় আমল, আখলাক, দুনিয়া ও আখেরাতে সুখ-শান্তির লক্ষ্যে দিন-রাত বয়ান চলবে প্রথম পর্বের মতোই। বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার আয়োজক তাবলিগ জামাতের সাবেক আমির মাওলানা সাদ কান্ধলভীর অনুসারীরা।

বিশ্ব ইজতেমায় আইনশৃংখলা জোরদার করা হয়েছে। গাজীপুর জেলা প্রশাসন, গাজীপুর সিটি করপোরেশন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও তাবলিগের সাথিরা ইজতেমা ময়দানের ভেতর এবং বাইরের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। এ পর্বের ইজতেমায় অংশ নিতে দেশের ৬৪ জেলা থেকে সাদ অনুসারীরা এরই মধ্যে ইজতেমা ময়দানে জড়ো হয়েছেন। এবারের পর্বে যোগ দিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রতিনিধিরা আসছেন। তারা ময়দানে এসে আন্তর্জাতিক নিবাসে অবস্থান নিচ্ছেন। বুধবার থেকেই মুসুল্লিরা দলে দলে ইজতেমা ময়দানে আসছেন। তারা জেলাভিত্তিক নির্ধারিত খেত্তায় অবস্থান নিচ্ছেন। প্রথম পর্বের মত দ্বিতীয় পর্বেও ইজতেমায় যোগ দিতে আসা লোকজনের যাতায়াতের সুবিধার জন্য বিশেষ ট্রেন ও বাস সার্ভিস থাকছে। নিরাপত্তার জন্য পুরো ময়দান সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। তুরাগ নদী পারাপারের জন্য সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় প্রথম পর্বের সময়ই ভাসমান ব্রিজ তৈরি করা রয়েছে। নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য র‌্যাব-পুলিশের পক্ষ থেকে পর্যবেক্ষণ টাওয়ার, সিসিটিভি প্রস্তুত রয়েছে। খিত্তায় খিত্তায় সাদা পোশাকের পুলিশ মোতায়েনসহ পুরো ময়দান সিসিটিভি ও ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ইজতেমার প্রবেশ পথগুলোতে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। 

এদিকে, ইজতেমায় আগতদের সুবিধার জন্য ময়দানের পাশে স্থাপন করা হয়েছে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প। এসব মেডিকেল ক্যাম্প থেকে ইজতেমায় আগত মুসুল্লিদের স্বাস্থ্য সেবা ও প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়া হচ্ছে বিনামূল্যে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের মতোই দ্বিতীয় পর্বেও কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা থাকছে। ইজতেমা ময়দান ও আশপাশের এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কড়া নজরদারির মধ্যে রয়েছে। মুসল্লিদের জুমার নামাজে আসা যাওয়ার সুবিধার্থে প্রধান প্রধান সড়কগুলো নামাজের সময় বন্ধ করে দেয়া হবে। জুমার নামাজের পরে ওইসব মুসল্লিরা চলে যাওয়ার পর আবার তা উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। 

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমাতেও আগত মুসল্লিদের পানি ও গোসলসহ মাঠের যা যা প্রয়োজন সবকিছুই করে দেয়া হয়েছে। কোনো সমস্যা হলে তাৎক্ষণিকভাবে তা পূরণ করা হবে। এজন্যে সিটি করপোরেশনের কর্মীরা সার্বক্ষণিক নিয়োজিত রয়েছে। বিদেশি মুসল্লিদের প্রতি সার্বক্ষণিক নজর রাখা হচ্ছে যাতে তাদের কোনো প্রকার সমস্যা না হয়। তাদের ওজু, গোসলের জন্য রাখা হয়েছে গরম ও ঠান্ডা উভয় প্রকার পানির ব্যবস্থা।

এদিকে দ্বিতীয় পর্বের ইস্তেমায় গত দুইদিনে তিন মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। গেলরাতে সুনামগঞ্জের দোয়ারা বাজার উপজেলার চানপুর এলাকার হযরত আলীর ছেলে কাজী আলাউদ্দিন মৃত্যুবরণ করেন। 

এর আগে, ইজতেমায় আগমনের সময় টঙ্গীতে ট্রেনের ধাক্কায় গাইবান্ধার ফুলছড়ি থানার গোলজার হোসেন ও কাভার্ডভ্যানের চাপায় নরসিংদীর বেলাব থানার সুরুজ মিয়া মারা যান।

আগামী রবিবার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। এর আগে ১০ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ১২ জানুয়ারি (রবিবার) আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে মাওলানা জোবায়ের অনুসারীদের অংশগ্রহণে ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হয়। 

বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম


আপনার মন্তব্য