Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১০

ফের রক্তাক্ত হলো পাহাড়

রাঙামাটিতে গুলি, লারমা গ্রুপের দুজন নিহত

রাঙামাটি প্রতিনিধি

ফের রক্তাক্ত হলো পাহাড়

রাঙামাটির নানিয়ারচর আবারও রক্তাক্ত হয়েছে। গত শুক্রবার ভোরে এ উপজেলার রাম সুপারিপাড়ায় দুর্বৃত্তরা গুলি করে হত্যা করেছে যুদ্ধ মোহন চাকমা ওরফে আকর্ষণ (৪২) ও শ্যামল কান্তি চাকমা ওরফে সুমন্তকে (৩৫)। নিহতরা এমএন লারমার নেতৃত্বাধীন পাহাড়ি সংগঠন জেএসএসের (সংস্কারপন্থি) কর্মী বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, ভোরে ১০/১২ জনের একটি সশস্ত্র দল রামসুপারিপাড়ায় ওই কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় যুদ্ধ মোহন চাকমা ওরফে আকর্ষণ ও শ্যামল কান্তি চাকমা ওরফে সুমন্ত নিজ বাড়িতে ঘুমিয়েছিলেন। দুর্বৃত্তরা বাড়িতে ঢুকে তাদেরকে ধরে এনে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আহত করে। এরপর তাদের ওপর গুলি চালানো হয়। ফলে ঘটনাস্থলেই আকর্ষণ ও সুমন্ত নিহত হন। পরে এ ঘটনার খবর পেয়ে যৌথবাহিনী সেখানে যায়। এ ব্যাপারে রাঙামাটি নানিয়ারচর থানার ভারপাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল লতিফ জানান, খবর পেয়েই পুলিশের একটি বিশেষ দল ঘটনাস্থলে যায়। এলাকাটি দুর্গম, তাই তাত্ক্ষণিকভাবে লাশ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এদিকে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি এমএন লারমার জেএসএস ত্যাগ করে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) মূল দলে যোগদান করেছিলেন আকর্ষণ চাকমা ও শ্যামল কান্তি চাকমা। নিহতদের পরিবারের দাবি, এ ঘটনার জের ধরেই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে। তবে ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) রাঙামাটি জেলা ইউনিটের সংগঠক সচল চাকমা দাবি করেন নিহত যুদ্ধ মোহন চাকমা ওরফে আকর্ষণ ও শ্যামল কান্তি চাকমা ওরফে সুমন্ত ইউপিডিএফের সঙ্গে যুক্ত নয় বলে। তিনি জানান, তারা কয়েক মাস আগে সংস্কারবাদী জেএসএস ত্যাগ করে ইউপিডিএফের সঙ্গে বোঝাপড়ার ভিত্তিওতে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসে গ্রামে বসবাস করছিলেন। সংস্কারবাদীদের বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও জুম্ম জাতীয় স্বার্থবিরোধী কার্যকলাপের প্রকাশ্য সমালোচনা করার কারণে ও দলত্যাগের প্রতিশোধ নিতেই তাদেরকে হত্যা করা হয়েছে। অন্যদিকে এমএন লারমা গ্রুপের কেউ এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর