শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ মার্চ, ২০১৯ ২৩:২৮

নিউজিল্যান্ডে মসজিদে হামলা

গুলিবিদ্ধ জাহিদের বাঁচার কাহিনী

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

গুলিবিদ্ধ জাহিদের বাঁচার কাহিনী

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়েও আশ্চর্যজনক ভাবে বেঁচে গেলেন ওমর জাহিদ মাসুম নামে এক বাংলাদেশি। তিনি কিশোরগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান দয়ারের কনিষ্ঠ পুত্র। ২০১৫ সালের ২৯ অক্টোবর স্টুডেন্ট ভিসায় নিউজিল্যান্ড যান তিনি। স্ত্রীসহ তিনি নিউজিল্যান্ডে বসবাস করতেন। মাসুমের ভগ্নিপতি মো. সানাউল্লাহ জানান, শুক্রবার জুমার নামাজে প্রথম কাতারে ইমামের  পেছনে ছিলেন মাসুম। পিছন থেকে গুলির শব্দে মুসল্লিরা যখন ছোটাছুটি করছিল, এ সময় একটি গুলি তার পিঠে লাগলে তিনি ফ্লোরে লুটিয়ে পড়েন। পিছন থেকে লোকজন হুড়োহুড়ি করে মিম্বরের দিকে এসে একের পর এক তার ওপর পড়ে। গুলিতে নিহত অনেকেই তার ওপর পড়ে যায়। লাশের স্তূপে তিনি মৃতের মতো পড়ে থাকেন। ঘটনার পর পুলিশ লাশ সরাতে গিয়ে ওমর জাহিদ মাসুমকে জীবিত পেয়ে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যায়। গুলিটি তার পিঠে লেগে বেরিয়ে যাওয়ায় তিনি আশ্চর্যজনকভাবে বেঁচে যান। সন্ত্রাসী হামলার সংবাদ পেয়ে ভগ্নিপতি সানাউল্লাহ সন্ধ্যায় মাসুমের স্ত্রী টিনা আক্তারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেন। টিনা আক্তারই গুলিবিদ্ধ হওয়ার সংবাদ দেন। এখন অনেকটা স্বাভাবিক হলেও তারা আতংকের মধ্যে রয়েছেন বলে সানাউল্লাহ জানান। এদিকে সন্ত্রাসী হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার চ-িপাশা ইউনিয়নের কোদালিয়া গ্রামের গোলাপ মিয়ার মেয়ে সাজেদা আক্তার লিপি। তার স্বামীর নাম মাসুদ মিয়া। মাসুদ কটিয়াদী উপজেলার আচমিতা ইউনিয়নের অষ্টঘরিয়া গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে। প্রায় দেড় বছর আগে স্বামীর সঙ্গে তিনি নিউজিল্যান্ডে যান। মাসুদের ভাই নজরুল ইসলাম জানান, আল নূর মসজিদে স্বামী মাসুদের সঙ্গে গাড়িতে করে গিয়েছিলেন লিপি। মসজিদে মহিলাদের কক্ষে লিপিকে রেখে মাসুদ চলে আসার সঙ্গে সঙ্গেই হামলার ঘটনাটি ঘটে। এ সময় মাসুদ স্ত্রীকে ফোন করলে স্ত্রী বের হয়ে আসার পথেই গুলিবিদ্ধ হন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।


আপনার মন্তব্য