শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২৩:২৩

অপরূপ সাজে শাপলার বিল

রাহাত খান, বরিশাল

অপরূপ সাজে শাপলার বিল
Google News

প্রকৃতি অপরূপ সেজেছে বরিশালের উজিরপুরের শাপলার বিলে। যত দূর চোখ যায় রক্তিম আভার হাতছানি। বিলের পানিতে মাথা উঁচু করে সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে লাল শাপলা। মাঝেমধ্যে দেখা যায় সাদা আর বেগুনি শাপলা ফুল। বর্র্ষার এই সময়ে পর্যটকের ভিড় হয় বিলে। শুক্র-শনিসহ সরকারি ছুটির দিনে দর্শনার্থীর ঢল নামে। তারা পরিবার-বন্ধু-স্বজন নিয়ে বিলে নৌকায় বেড়িয়ে আনন্দ করেন। বরিশাল বিভাগীয় সদর থেকে সড়কপথে উজিরপুরের শাপলার বিলের দূরত্ব প্রায় ৭০ কিলোমিটার। কালভিলা, মুড়িবাড়ী, জনতা বাজার ও পূর্ব সাতলার বিস্তীর্ণ চারটি বিলে বর্ষার শুরুতে প্রাকৃতিকভাবেই জন্ম নেয় অসংখ্য শাপলা। আগাছায় ভরে থাকে বিল। শ্রাবণের শেষের দিকে শাপলায় ফুল ফুটতে শুরু করে। শাপলা ফুলের সৌন্দর্য দেখতে তিন মাস পর্যটকের ঢল নামে বিলে। সরকারি ছুটি কিংবা বিশেষ কোনো উৎসবে ভিড় বেড়ে যায় কয়েক গুণ। সুর্য প্রখর হওয়ার পর আস্তে আস্তে বুজে যায় শাপলা, ফোটে আবার রাতের বেলা। এমন ঘটনার সাক্ষী হতে পর্যটকরাও অনেক সময় অপেক্ষা করেন বেশ রাত পর্যন্ত। তারা নৌকায় বিলের পানিতে ভেসে শাপলা ফুলের সঙ্গে মিতালি করেন। মিশে যান প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যে। কেউ সেলফি তোলেন, কেউ শাপলার লতা মাথায় পেঁচিয়ে নিজেকে প্রকৃতির সঙ্গে একাত্ম করেন। পর্যটকের আনাগোনায় বর্ষার তিন মাস চাঙা থাকে স্থানীয় অর্থনীতি। দর্শনার্থীদের নৌকায় দু-তিন ঘণ্টা বিলে ঘুরিয়েই ২ থেকে ৩ হাজার টাকা করে আয় করছেন স্থানীয়রা। পর্যটক ঘিরে স্থানীয় খাবার হোটেলসহ অন্যান্য দোকানেও বেড়ে যায় বেচাকেনা। বেড়াতে গিয়ে নদী-খাল-বিলের দেশি প্রজাতির নানা মাছ কিনে নেন পর্যটকরা। শাপলার বিলে যেতে কিছু বিড়ম্বনাও আছে পর্যটকদের। বরিশাল মহানগর থেকে মহাসড়ক ধরে উজিরপুর সদর পর্যন্ত ২১ কিলোমিটার যাওয়ার পর বাকি প্রায় ৫০ কিলোমিটার সড়কের বেশির ভাগই খানাখন্দে ভরা। এতে দুর্ভোগে পড়েন পর্যটকরা। গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি সংস্কারের জন্য সব মহলের দাবি থাকলেও কর্তৃপক্ষ নির্বিকার।

বরিশাল স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফ মো. জামাল উদ্দিন বলেন, ‘উজিরপুর থেকে সাতলা পর্যন্ত সড়কের ৫ কিলোমিটার সংস্কারের জন্য টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। বাকি সড়কের খানাখন্দ এলজিইডির নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় মেরামত করা হবে।’ শাপলার বিলে পর্যটকদের সুবিধার কথা বিবেচনায় রেখে গুরুত্বপূর্ণ ওই সড়কটি প্রায় ২৪ ফুট প্রশস্ত করার একটি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া আছে বলে তিনি জানান।