Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৫

মওদুদের অবৈধ সম্পদের মামলা

এক যুগ পর সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু

আদালত প্রতিবেদক

এক যুগ পর সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়েছে। গতকাল মামলার বাদী দুদকের তৎকালীন সহকারী পরিচালক শরিফুল হক সিদ্দিকী এ সাক্ষ্য দেন। পরে ঢাকার-৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. শেখ গোলাম মাহবুব সাক্ষীর জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ২৬ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেন আদালত। সাক্ষীর জবানবন্দিতে শরিফুল হক সিদ্দিকী বলেন, ‘আমি পুলিশ বাহিনীতে চাকরি করতাম। ডেপুটেশনে তখন দুদকের সহকারী পরিচালক ছিলাম। এ মামলার আসামি ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ২০০৭ সালের ৩১ জুলাই কারাগারে থাকাকালে দুদকে দাখিলকৃত সম্পদবিবরণীতে মোট ৪ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৫ টাকা তথ্য গোপন করেন। এ ছাড়া ৭ কোটি ৩৮ হাজার ২৩৭ টাকা মূল্যের সম্পদ তার জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ। প্রাথমিক অনুসন্ধানে এসব অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপন দুদক আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বিধায় তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।’ মওদুদ আহমদের আইনজীবী তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘সাক্ষ্য গ্রহণ মুলতবি রাখার জন্য সময় আবেদন করা হয়েছে। শুনানি শেষে বিচারক সময়ের আবেদন নাকচ করে দেন। এর আগে অভিযোগ গঠনের ক্ষেত্রে আইনের ‘যথাযথ প্রক্রিয়া’ অনুসরণ করা হয়নি। কারণ অভিযোগ গঠনের সময় আদালতে উপস্থিত মওদুদ আহমদকে অভিযোগ পড়ে শোনাননি বিচারক। বিচারক আসামিকে তখন জিজ্ঞাসা করেননি, তিনি দোষী, না নির্দোষ। মওদুদ আহমদকে নির্দোষ দাবি করার সুযোগও দেওয়া হয়নি। আমরা ন্যায়বিচার পাওয়া নিয়ে চিন্তিত আছি।’’ আদালতের পেশকার হেলাল উদ্দিন জানান, এ মামলাটি ছয় মাসের মধ্যে শেষ করতে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০০৭ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশান থানায় দুদকের উপপরিচালক শরিফুল হক সিদ্দিকী বাদী হয়ে মামলা করেন। ২০০৮ সালের ১৪ মে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।


আপনার মন্তব্য