শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ অক্টোবর, ২০১৮ ২২:১১

মাঠ বেদখল শিশুরা খেলছে রাস্তায়

জিন্নাতুন নূর

মাঠ বেদখল শিশুরা খেলছে রাস্তায়
মিরপুর কাজীপাড়ায় মেট্রোরেলের কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে খেলছে স্থানীয় শিশুরা

রাজধানীর রামপুরায় বউবাজার এলাকায় ব্যস্ত সড়কে একদল শিশু-কিশোর ক্রিকেট খেলছিল গত শুক্রবার। আর সেই সড়কের ওপর দিয়েই চলাচল করছিল দ্রুতগতির যানবাহন। ব্যবসায়ীরাও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের পসরা সাজিয়ে বসেছিলেন সে সড়কে। একপাশে আচার, চটপটি ও ফলের দোকানও বসিয়েছিলেন বিক্রেতারা। এর মধ্যেই খেলায় মেতেছিল শিশুরা। মাঠ ফেলে ব্যস্ত সড়কে শিশুদের ক্রিকেট খেলার কারণ জানতে চাইলে তাদের মধ্যে একজন, ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী রনি বলে, ‘আমাদের এলাকায় কোনো খেলার মাঠ নেই। ফাঁকা কোনো জায়গাও নেই যেখানে আমরা খেলতে পারব। এই সড়ক ছাড়া আমাদের খেলার আর জায়গা নেই।’

রামপুরার এই শিশুদের মতো নগরীর অন্য এলাকার দৃশ্যও কমবেশি এক। খেলার মাঠের অভাবে শিশু-কিশোররা এখন ব্যস্ত সড়কের ওপরই খেলাধুলা করছে। এতে যানবাহনের সঙ্গে সংঘর্ষে অনেক শিশু আহতও হচ্ছে। তাদের খেলায় বাধাগ্রস্তও হচ্ছে। আবার নিরাপত্তার জন্য অনেক শিশুর অভিভাবক তাদের সড়কের বদলে ঘরের গ্যারেজ বা ছাদে খেলতে যেতে বলছেন।

নগরীর বেশির ভাগ খেলার মাঠ বেদখল হয়ে যাওয়ায় পাড়া-মহল্লার শিশু-কিশোররা খোলা মাঠে খেলা ও শারীরিক চর্চার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। যা তাদের শারীরিক ও মানসিক গঠনে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। আবার নগরীর স্কুলগুলোর মাঠে খেলার সুযোগ থাকলেও স্কুল ছুটির পর অনেক স্কুলের গেটে তালা লাগিয়ে দেওয়া হয়। ফলে সেখানেও খেলার সুযোগ পাচ্ছে না আমাদের শিশুরা। দুুঃখজনক হলেও একের পর এক নতুন স্থাপনা তৈরি ও প্রভাবশালী মহলের জবরদখলের কারণে নগরীর খেলার মাঠগুলো একে একে হারাতে বসেছে। ঢাকায় হাতেগোনা কয়েকটি আবাসিক এলাকা ছাড়া এখন আর খেলার মাঠ দেখা যায় না। এজন্য শিশু-কিশোররা যেখানেই একটু খালি জায়গা পায় সেখানেই খেলায় মেতে ওঠে। মিরপুর ১১ থেকে ১০ নম্বর হয়ে কাজীপাড়া ও শ্যাওড়াপাড়ায় মেট্রোরেলের অবকাঠামো নির্মাণের  যে কাজ হচ্ছে সে স্থানটি দুই পাশ ঘিরে দেওয়া হয়েছে। আর এই ফাঁকা স্থান পেয়ে শিশুরা সেটিকেই খেলার স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছে।

শীতকালে প্রতি বছর ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় শিশুদের ব্যস্ত সড়কের ওপরই কোট কেটে ব্যাডমিন্টন খেলতে দেখা যায়। খেলা চলাকালীন গাড়ি ও মানুষজন ব্যাডমিন্টন কোটের ওপর দিয়ে যাতায়াত করে। এতে খেলা থামিয়ে শিশুদের পথচারী ও গাড়ি চলাচলে সাহায্য করতে বারবার ব্যাডমিন্টন খেলার নেট তুলে দিতে হয়। অনেক শিশুকে এজন্য এলাকার বয়োজ্যেষ্ঠদের কড়া কথাও শুনতে হয়। কিন্তু পুরো বিষয়টি মেনে নিয়েই প্রতি বছর ব্যস্ত সড়কের ওপর শিশুদের ব্যাডমিন্টন খেলতে হচ্ছে।     

মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মোহিত কামাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘শিশুদের সুস্থভাবে বেড়ে উঠার জন্য খেলাধুলার প্রয়োজন। খেলার মাধ্যমে শিশুদের মগজে রক্ত সঞ্চালন ভালো হয়। এজন্য মাঠ নেই বলে শুধু হা-হুতাশ না করে নগরবাসীকেই শিশুদের জন্য খেলার মাঠের ব্যবস্থা করতে হবে। নগরীতে যে মাঠ আছে তার উপযুক্ত ব্যবহার করতে হবে। এটি বুঝতে হবে যে, শৈশবে খেলার চর্চা না থাকলে শিশুদের আত্মবিশ্বাসের অভাব হয়। আর এ থেকে সহজেই তাদের পরাজয় গ্রহণ করার মানসিকতা তৈরি হয়।


আপনার মন্তব্য