শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৫১

ভরাট খালে সবজি চাষ

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

ভরাট খালে সবজি চাষ

চট্টগ্রাম নগরের ২৫ নম্বর রামপুর ওয়ার্ডের ঈদগা এলাকার প্রাচীনতম খালটির নাম আযব বাহার খাল। একসময়ের খাল এখন নালায় পরিণত হয়েছে। দেখলে মনে হবে ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়। ভরাট করে খালেই করা হচ্ছে সবজি চাষ। আশপাশের সব বর্জ্যই ফেলা হয় এ খালে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নগরের খালগুলো পরিষ্কার করে। অভিযোগ আছে, নগরের অধিকাংশ খালই এখন দখল, ভরাট ও দূষণের কবলে। একসময় যেসব খালে নৌকা চলাচল করত, এখন সেসব খাল দিয়ে পায়ে হেঁটে যাতায়াত করার অবস্থা তৈরি হয়েছে। বর্তমানে নগরে ছোট-বড় প্রায় ৩৬টি খাল আছে। এর মধ্যে অধিকাংশ খালই বর্জ্য, আবর্জনায় ভরা। ভরাট হয়ে গেছে অনেক খাল। এ নিয়ে সমালোচনার মুখে আযব খালের বেহাল চিত্র চসিকের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজনের নজরে দেওয়া হয়। খালের বেহাল দশা দেখে তিনি গত ৯ জানুয়ারি পরিচ্ছন্ন বিভাগকে সরেজমিন পরিদর্শনের নির্দেশ দেন। তাছাড়া ভরাট হওয়া খালে শাক-সবজি চাষের চিত্র দেখে তিনিও চরম হতাশা ব্যক্ত করেন। এরপর আযব বাহার খাল থেকে শতটন আবর্জনা অপসারণ করা হয়। চসিক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেন, ‘আযব বাহার খালের এমন বেহাল দশা তৈরি হয়েছে, যা কল্পনার বাইরে। এখানে ভরাট হওয়া খালে চলছিল শাক-সবজির চাষ। ছবি দেখে আমার নিজেরও লজ্জা লাগছে। ওই দিনই অনেক বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। বর্জ্য অপসারণ করে খালের পানি চলাচলে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আনা, মশার প্রজনন কেন্দ্র ধ্বংস এবং পরিবেশের সুরক্ষা নিশ্চিতের চেষ্টা করা হচ্ছে।’ ইতিমধ্যে চশমা খাল, আযব বাহার খাল, মহেশ খাল, বাদশা মিয়া রোড সংলগ্ন খাল পরিষ্কার করা হয়েছে। খাল পরিষ্কারের এ কর্মসূচি চলবে।


আপনার মন্তব্য