শিরোনাম
প্রকাশ : ৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ২১:০১
প্রিন্ট করুন printer

কুমিল্লায় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লায় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

কুমিল্লার চান্দিনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় যোগদানকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। 

বৃহস্পতিবার চান্দিনা থানা কমপ্লেক্সের সামনে এ ঘটনা ঘটে। 

আহতরা হলেন, উপজেলার হারং গ্রামের হাসেম সরকারের ছেলে পৌর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন (৪০), যুবলীগ নেতা শাহিন (৩৫), হারং গ্রামের মোসলেম মিয়ার ছেলে ছাত্রলীগ নেতা রাসেল (২২) ও মনিরুজ্জামানের ছেলে ৩নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ ক্রীড়া সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নাঈমসহ (১৮) কয়েকজন।

সূত্র জানায়,  বৃহস্পতিবার সকালে চান্দিনা মহিলা কলেজ মিলতনায়তনে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার আহবান করা হয়। ওই সভায় যোগ দিতে পৌর নির্বাচনের মেয়র পদ প্রার্থীর সমর্থিত নেতা-কর্মীরা ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতা-কর্মী মিছিল নিয়ে আসেন। সকাল সাড়ে ১১টায় থানায় সংলগ্ন এলাকায় পৌর মেয়র মফিজুল ইসলাম সমর্থিত ও উপজেলা যুবলীগ-ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

উপজেলা যুবলীগ আহবায়ক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম মুন্সি জানান, উপজেলা যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা চান্দিনা থানা সংলগ্ন মহিলা কলেজ রোডে প্রধান অতিথি সাবেক ডেপুটি স্পিকার অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এফবিসিসিআই সিনিয়র সহ-সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ টিটু’র পক্ষে মিছিল দিচ্ছিল। এ সময় পৌর মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মো. মফিজুল ইসলামের সমর্থিত নেতা-কর্মীরা মোটরসাইকেল শোডাউন নিয়ে আসার পর আমাদের নেতা-কর্মীদের উপর হামলা চালায়। এতে আমার কয়েকজন নেতা-কর্মী আহত হয়।

চান্দিনা পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম জানান, বর্ধিত সভায় যোগ দিতে আমার নেতা-কর্মীরা মোটরসাইকেল যোগে সভাস্থলে আসছিল। তারা থানা সংলগ্ন এলাকায় পৌঁছালে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা পেছন দিকে থেকে অতর্কিত হামলা চালায়।

চান্দিনা থানার ওসি শামসউদ্দীন মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান, দুই পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হওয়ার সাথে সাথেই পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।আহতদের চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে এখনও কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর