৮ অক্টোবর, ২০২১ ২২:০২

মাদ্রাসার ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া সেই শিক্ষক আটক

অনলাইন ডেস্ক

মাদ্রাসার ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া সেই শিক্ষক আটক

ভাইরাল ভিডিও’র স্থিরচিত্র

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মাদ্রাসার ছয় শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেওয়ার ঘটনায় মঞ্জুরুল কবির নামের সেই শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার রাত ৯টার দিকে রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল গণমাধ্যমকে এখবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মঞ্জুরুলের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

এর আগে, এ ঘটনার একটি ভিডিও শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়, এরপরই পুলিশ মঞ্জুরুলকে আটক করলো। জানা গেছে, মাদ্রাসার দাখিল শ্রেণির শিক্ষার্থী নাজমুল আলম ও ফজলে রাব্বীসহ কয়েকজন বুধবার শ্রেণিকক্ষে পাঠ কার্যক্রমে অংশ নেয়। একপর্যায়ে শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির ছয়জনকে দাঁড় করিয়ে কক্ষের সামনের বারান্দা আসতে বলেন। এ সময় তিনি উত্তেজিত হয়ে একটি কাঁচি এনে একে-একে মাথার টুপি সরিয়ে সামনের অংশের এলোমেলোভাবে চুল কেটে দেন। পরে তারা লজ্জায় ক্লাস না করেই বেড়িয়ে যায়।

শুক্রবার অভিযোগ ওঠা মাদ্রাসার শিক্ষক মঞ্জুরুল কবিরের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি দাখিল শ্রেণির সকল ছাত্রকে পরীক্ষার আগের দিন চুল কেটে মাদ্রাসায় আসতে বলেছি। ছাত্ররা আমার কথার অবাধ্য হওয়ার কারণে কয়েক ছাত্রের চুল কেটে দিয়েছি। আমি ওদেরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নভাবে থাকা ও নীতি-নৈতিকতা শিক্ষা দেয়ার জন্যই চুল কেটে দিয়েছি। তবে আমি কাউকে কোনো হুমকির কথা বলিনি।

এ বিষয়ে বামনী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন বলেন, মঞ্জুরুল কবির ইউনিয়ন জামায়াতের আমির। তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সবসময় দলীয় প্রভাব বিস্তার করেন। হামছাদী কাজীরদীঘিরপাড় আলিম মাদ্রাসার সুপার মাওলানা বালাকাত উল্যা বলেন, চুল কাটার ঘটনাটি শুনেছি। তবে কোনো ছাত্র লিখিত অভিযোগ করেনি। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর