শিরোনাম
শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

সালাম না দেওয়ায় খুন হন এরশাদ

আড়াই বছর পর গ্রেফতার ২

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের চাঞ্চল্যকর এরশাদ হত্যা মামলায় দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। তারা হলেন- এরশাদ হত্যা মামলার প্রধান আসামি মো. জসিম উদ্দিন ও হত্যার নির্দেশদাতা মো. কবির। গত মঙ্গলবার বাড্ডার সাঁতারকুল পুকুরপাড় এলাকা থেকে জসিম এবং গত বুধবার মোহাম্মদপুরের বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে কবিরকে গ্রেফতার করা হয়।

পিবিআই বলছে, সালাম না দেওয়ায় এরশাদের ওপর ক্ষিপ্ত হয় জসিম। পরে জসিম ও তার সহযোগীরা মিলে এরশাদকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। দীর্ঘ আড়াই বছর পর এ হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার হলো। এর আগে ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধে এরশাদকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের মা মোছা. লাইলী বেগম বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করেন।

পিবিআই সদর দফতরের অতিরিক্ত এসপি (সিআরও) মো. আবু ইউছুফ জানান, ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় এরশাদ (৩০) মোহাম্মদপুরের তুরাগ হাউজিংয়ে কাইয়ুম খাঁর চায়ের দোকানের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় আসামি জসিমের সঙ্গে এরশাদের সালাম দেওয়া নিয়ে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে কাইয়ুম খাঁ ও শহিদ খাঁ মীমাংসা করে দেয়। কিন্তু আসামি জসিম ক্ষোভ পুষে রাখে। ওইদিন রাতেই এরশাদ ও তার বন্ধু রুবেল ঢাকা উদ্যানের বেড়িবাঁধ-সংলগ্ন বুড়িগঙ্গা পেট্রোল পাম্পের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন। সেখানে পরিকল্পিতভাবে জসিম, আরিফ, জুয়েল, মোস্তাকিম, শরীফ-১, শরীফ-২, স্বপন, বিজয়, শাহিনসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন এরশাদকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে রক্তাক্ত জখম করে। এরশাদের বন্ধু রুবেলকেও জখম করে।

আসামি জসিমের হাতে থাকা ছুরি দিয়ে এরশাদের বাম কাঁধের পেছন দিকে এবং আসামি আরিফ এরশাদের কোমরের ওপরে পিঠের বাম পাশে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন এরশাদ মারা যান। এ ঘটনায় এরশাদের মা বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। আদালতের নির্দেশে ওই মামলা তদন্তভার পায় পিবিআই। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই ঢাকা মেট্রোর (উত্তর) পরিদর্শক মো. সহিদুল ইসলাম আসামি জসিম ও কবিরকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, জসিমকে সালাম না দেওয়ায় এরশাদের সঙ্গে তর্কাতর্কি ও হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে জসিম ও তার সহযোগীরা এরশাদকে হত্যা করে।

পিবিআই ঢাকা মেট্রোর (উত্তর) এসপি মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, প্রায় আড়াই বছর পলাতক থাকার পর মামলার প্রধান আসামি জসিম ও কবিরকে গ্রেফতার করা হয়। গত বৃহস্পতিবার আসামি জসিম নিজের দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

এ ছাড়াও আসামি কবিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।