শিরোনাম
প্রকাশ : ১২ নভেম্বর, ২০১৯ ২১:২০
আপডেট : ১২ নভেম্বর, ২০১৯ ২২:০১

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে উত্তেজনা, রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

সাইদুুল ইসলাম, চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে উত্তেজনা, রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার আওতাধীন বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ১৫ নভেম্বর। কেন্দ্রীয় ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দরা বৈঠক করে এদিন সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেন। তবে সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ হওয়ার সাথে সাথে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগে বিভক্ত স্পষ্ট হয়েছে। 

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদে ও সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদের নেতাকর্মীরা দুই ধারায় বিভক্ত হয়ে যাওয়ায় আওয়ামী লীগের দুইটি অংশই পৃথক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করেছে। দুটি পক্ষই একইদিনে, একইসময়ে উপজেলা সদর প্রাঙ্গনে সম্মেলনের আয়োজন আহ্বান করেছেন। নেতাদের এমন দ্বিধাদ্বন্দ্ব দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে তৃণমূলের নেতাদের মাঝে। সম্মেলনের আগে উভয়পক্ষের দ্বন্দ্ব নিরসন না হলে সম্মেলনে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

সম্মেলন নিয়ে দুই গ্রুপের মুখোমুখি হওয়ায় বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল স্থগিত করেছে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি (একাংশ)। এতে এক বিবৃতিতে বলেছেন, সম্মেলন হলে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি হতে পারে, তাই আলোচনার মাধ্যমেই স্থগিত করা হয়েছে বলে জানান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন চৌধুরী। 

তবে আদৌ সম্মেলন হবে নাকি হবে না সেই বিষয়ে নিশ্চিত করতে পারছেন না নেতারা। একইভাবে বাশঁখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের আগে নাকি পরে হবে এ নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিয়েছে জেলার শীর্ষ নেতাদের মধ্যে। 

মোছলেম উদ্দিন আহমেদ অনুসারী পক্ষের আহ্বায়ক এস.এম নুরুল ইসলাম বলেন, সম্মেলনের সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি। পোস্টার করে ফেলেছি। সম্মেলন প্রস্তুতি আরেকটি করা হয়েছে বলে শুনেছি। কিন্তু কোথায় বসে করেছে তা জানি না। ওই পক্ষের সাথে থাকা কয়েকজন আমাদের সম্মেলনে চলে আসবে। আমি এক সময় তাদের সাথে ছিলাম। আমার সাথে অনেকেই চলে এসেছে। তাদের কমিটি এখন বিলুপ্ত। সম্মেলনে কোন ঝামেলা হওয়ার সম্ভাবনা নেই। ঝামেলা করতে তো মানুষ লাগবে।

আবুল কালাম অনুসারী পক্ষের যুগ্ম আহবায়ক এসএম হাছান উদ্দিন বলেন, বোয়ালখালীতে আমরা পাশাপাশি হোক কাছাকাছি হোক উপজেলা সদরেই সম্মেলন করব। ইতোমধ্যে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন হয়েছে। কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা না হয় সেই মতো চেষ্টা করবো। অন্যরা বুর্জোয়া, জামায়াত ও বিএনপির মানুষ নিয়ে থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন করছে। তবে, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদকে একাধিকবার ফোন করা হলেও রিসিভ করেননি।

দলীয় নির্ভরযোগ্য সূত্র জানা গেছে, বোয়ালখালীতে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ ও সহ-সভাপতি এস.এম আবুল কালাম অনুসারীদের দুটি কমিটি আছে। দুটি কমিটিই সম্মেলন সফল করতে পৃথক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করেছেন। মোছলেম উদ্দিনের পক্ষে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এস.এম সেলিমকে আহবায়ক এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রিদুয়ানুল হক টিপু ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক শাহদাত হোসেনকে যুগ্ম আহবায়ক করে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। 

অপরদিকে, এস.এম আবুল কালাম পক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের একাংশের সহ-সভাপতি নুরল ইসলামকে আহবায়ক, যুগ্ম সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ ও এসএম হাসান উদ্দিনকে যুগ্ম আহবায়ক করে আরো একটি সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করা হয়। 

দুই কিমিটির সম্মেলনে পৃথক পৃথক অতিথি রাখা হলেও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে দুই পক্ষের সম্মেলনেই অতিথি করা হয়েছে।

বিডি-প্রতিদিন/মজুমদার/মাহবুব


আপনার মন্তব্য