শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৪৭

অধিকাংশ স্কুলে নেই শহীদ মিনার

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

অধিকাংশ স্কুলে নেই শহীদ মিনার

খুলনার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই। মাতৃভাষা দিবস বা শহীদ দিবসের তাৎপর্য কি বোঝে না অধিকাংশ শিক্ষার্থী। গ্রামের প্রাথমিক স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা রয়েছে আরও অন্ধকারে। জানা যায়, খুলনা জেলার ১১৫৯টি সরকারি প্রাথমিক স্কুলের মধ্যে ৯২০টি স্কুলেই শহীদ মিনার নেই। এর মধ্যে খুলনা সদরে ১২৭টি প্রাথমিক স্কুলের মধ্যে হাতেগোনা কয়েকটি স্কুলে শহীদ মিনার রয়েছে। মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুলগুলোর চিত্রও প্রায় একই রকম। কোনো কোনো স্কুলে নিজস্ব অর্থায়নে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হলেও মূল অবকাঠামোর সঙ্গে এর মিল নেই। ফলে বিভ্রান্তিতে থাকে শিক্ষার্থীরা।  শিক্ষকরা জানায়, স্কুলে স্থায়ী শহীদ মিনার না থাকায় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা এর সঙ্গে পরিচিত হতে পারছে না। খুলনায় মেহমানে আলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সোনাডাঙ্গা আবু বক্কার খান বিদ্যালয়, ন্যাশনাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইট, মাটি, বাঁশ-কাঠ দিয়ে শিক্ষার্থীরা অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করেছে। ভাষা দিবসে তারা তাতে কাগজ কেটে সাজায় ও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। তবে তাদের মধ্যে  মাতৃভাষা দিবসের মূল্যবোধ তৈরি হয়নি।  খুলনা সদর থানা শিক্ষা অফিসার শেখ মো. নুরুল ইসলাম বলেন, শহরের অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পর্যাপ্ত জায়গার অভাব রয়েছে। তাছাড়া  সরকারি বাধ্যবাধকতা না থাকায় অনেক প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার তৈরি করা হয়নি। তবে সরকারিভাবে অনুদান না থাকলেও স্থানীয়ভাবে স্কুলগুলোতে শহীদ মিনার তৈরি করতে উৎসাহিত করা হচ্ছে বলে জানান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এএসএম সিরাজদ্দৌহা।

এদিকে ভাষা আন্দোলনের গৌরবময় ইতিহাস শিক্ষার্থীদের জানাতে স্কুলগুলোতে দ্রুত শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক সাধন রঞ্জন ঘোষ। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের বইতে ভাষা দিবসের কথা রয়েছে কিন্তু বাস্তবক্ষেত্রে অবকাঠামো না থাকায় সেই জ্ঞান চর্চার সুযোগ নেই। এতে ভাষা দিবসের প্রতি সঠিক মূল্যবোধ তৈরি হয় না।


আপনার মন্তব্য