শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ এপ্রিল, ২০২১ ১৪:১৮
প্রিন্ট করুন printer

বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন দুই প্রকৌশলী

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন দুই প্রকৌশলী
বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেওয়া দুই প্রকৌশলী

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘বাংলা চ্যানেল’ খ্যাত টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথ সাঁতরে পাড়ি দিয়েছেন গণপূর্ত অধিদপ্তরের দুই প্রকৌশলী। তারা হলেন- গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী পবিত্র কুমার দাশ ও উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী অর্ণব বিশ্বাস। তারা দু’জনে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিতে সময় নিয়েছেন যথাক্রমে ৫ ঘণ্টা ২৪ মিনিট ও  ৫ ঘণ্টা ৩০ মিনিট।

গত ২৯ মার্চ সোমবার সকাল ১০টার দিকে শাহ্ পরীর দ্বীপ থেকে সাঁতার (সিঙ্গেল ক্রস) শুরু করেন তারা। সাঁতারের আয়োজক হলো ষড়জ অ্যাডভেঞ্চার ও এক্সট্রিম বাংলা। ষড়জ অ্যাডভেঞ্চারের প্রধান নির্বাহী এবং রেকর্ডসংখ্যক ১৭ বার (এককভাবে সর্বোচ্চ পাড়ি দেওয়া সফল সাঁতারু) সাঁতারু লিপটন সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, শাহ্ পরীর দ্বীপ থেকে (সিঙ্গেল ক্রস) সাঁতার শুরু করে সেন্ট মার্টিন যান চারজন সাঁতারু। তারা হলেন পবিত্র কুমার দাশ, অর্ণব বিশ্বাস, দীপঙ্কর বিশ্বাস ও লিপটন সরকার। এর মধ্যে পবিত্র কুমার দাশ, অর্ণব বিশ্বাস ও লিপটন সরকার সফলভাবে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেন। 

লিপটন সরকার বলেন, স্বাধীনতার ৫০বছর পূর্তি উপলক্ষে আমরা কয়েকজন সাঁতারু এই বিশেষ আয়োজনে অংশ নিয়েছি। পবিত্র কুমার দাশ ১৯৯৮ সালে এসএসসি এবং ২০০০ সালে এইচএসসি পাস করেন। এরপর খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং-এ বিএসসি করেন।

অর্ণব বিশ্বাস যশোর জিলা স্কুল থেকে ২০০৩ সালে এসএসসি, যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে ২০০৫ সালে এইসএসসি পাশ করেন। পরে বুয়েট থেকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। সম্প্রতি তিনি আইবিএ থেকে এমবিএ সম্পন্ন করেছেন। 

অর্ণব বিশ্বাস বলেন, ২০২০ সালে আয়োজিত বাংলা চ্যানেলের খবর আমাকে বেশ আলোড়িত করে। সুইমিং কোচ সাইফুল ইসলাম রাসেলের অধীনে ট্রেনিং শুরু করি। প্রচণ্ড শীতের মধ্যে আমাদের ট্রেনিং চলতে থাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জহুরুল হক হলের পুকুরে। রাসেল ভাই এইবার প্রথম বাংলাদেশী হিসাবে বাংলা চ্যানেল এর ডবল ক্রস করেছেন। 

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য