শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২১:০৫

বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড ও আজকের বাংলাদেশ

ব্যারিস্টার এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার

বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড ও আজকের বাংলাদেশ
ব্যারিস্টার এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার

 "আজ এখানে দাঁড়িয়ে এই রক্ত গোধূলিতে অভিশাপ দিচ্ছি, মগজের কোষে কোষে যারা পুঁতেছিল আমাদেরই আপনজনের লাশ, আমি তো তাদের জন্য সহজ মৃত্যু করি না কামনা।"

কবি শামসুর রাহমানের অমিয়বাণী সত্য করে শহীদ বুদ্ধিজীবীরা বারবার ফিরে ফিরে আসেন বাঙালীর মানসপটে। বাঙালীর হৃদয়ে প্রতিভাত হয় শ্রদ্ধা ও শোকের আবহ, আর সঞ্চারিত হয় শক্তি। 

আমেরিকান তাত্ত্বিক শিক্ষাবিদ এডওয়ার্ড ডব্লিউ সাইদ বলেছিলেন, "বুদ্ধিজীবী ছাড়া যেমন বড় ধরনের কোন বিপ্লব হয়নি, তেমনি তাদের ছাড়া কোন বিপ্লববিরোধী আন্দোলনও সংঘটিত হয়নি।" এই সূর্য সন্তানরাই জাতির যে কোন বিপর্যয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে জাতিকে আলোর পথ দেখিয়েছেন। পাকিস্তানী শাসক ও শোষক চক্রের অন্যায় অত্যাচার ও শোষণ বঞ্চনার বিরুদ্ধে তারা ছিলেন দিক নির্দেশক এবং সোচ্চারকণ্ঠ।১৯৬৭ সালের আগস্ট মাসে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হামুদূর রহমান আরবি হরফে বাংলা ও উর্দু লেখার সুপারিশ করলে তীব্র প্রতিবাদ জানান বুদ্ধিজীবীরা। পাকিস্তানের দুই অঞ্চলের সংহতি বৃদ্ধির অজুহাতে রোমান হরফে বাংলা লেখার প্রস্তাব করা হলে ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ তৎক্ষণাত এই ভাষা সংস্কারের কঠোর প্রতিবাদ জানান। রবীন্দ্রনাথ ও তার সাহিত্যের ওপর আসে সাম্প্রদায়িক আঘাত; তাকে চিহ্নিত করা হয় হিন্দু কবি রুপে। এই ‘হিন্দুয়ানী’র অভিযোগ তুলে নজরুলের কবিতা থেকেও ‘হিন্দুয়ানী’ শব্দ বাদ দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। এতে বাঙালির মনে ক্ষোভ পুঞ্জিভূত হতে থাকে এবং তারা অবিচারের বিরুদ্ধে সাংস্কৃতিক আন্দোলন শুরু করে। রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী সনজিদা খাতুন ও ওয়াহিদুল হকের উদ্যোগে গঠিত হয় ‘ছায়ানট’। বুদ্ধিজীবী মহলের এমন সাহসী প্রতিবাদ জাতীয়তাবাদী চিন্তার বিকাশে সাহায্য করেছিল তুমুল ভাবে। তাদের সাংস্কৃতিক আন্দোলনের ফলেই জনগণ ধীরে ধীরে নিজেদের দাবি ও অধিকার সম্পর্কে সচেতন হয়ে উঠতে থাকে যা পরবর্তীতে তাদের রাজনৈতিক আন্দোলনের দিকে ধাবিত করে। একারণে বুদ্ধিজীবীরা পাকিস্তানের সামরিক শাসকদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছিলেন। যুদ্ধের শুরু থেকেই মেধাবী ধীমান ব্যক্তিবর্গের প্রতি পাকিস্তানী বাহিনীর ছিলো সীমাহীন ক্ষোভ।

একাত্তরে জাতিকে বুদ্ধি, পরামর্শ ও নির্দেশনা দিয়ে বুদ্ধিজীবীরা আমাদের বিজয়কে দ্রুততম সময়ে নিশ্চিত করেছিলেন বুদ্ধিজীবীরা। পাকিস্তানী হানাদারবাহিনী মুক্তবুদ্ধিসম্পন্ন শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্বাধীনতা সংগ্রামের সূচনালগ্ন থেকে শুরু করে চূড়ান্ত বিজয়ের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত নির্যাতন ও হত্যা করে। ২৫শে মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলে পরিকল্পিত প্রথম হামলা চালিয়ে হিন্দু শিক্ষক, ছাত্র এবং আওয়ামীপন্থীদের হত্যা করা হয়। স্বাধীনতার পর বঙ্গভবনে মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলীর একটি ডায়েরি পাওয়া যায়। 

ডায়েরিতে স্পষ্ট উল্লেখ ছিল যে জামায়াতে ইসলামী ও তাদের ছাত্রসংগঠন 'ছাত্র সংঘ' আলবদর বাহিনী গঠন করে বুদ্ধিজীবীদের তালিকা তৈরি করে। বুদ্ধিজীবী হত্যার প্রধান ঘাতক বদর বাহিনীর চৌধুরী মঈনুদ্দীন ছিল বদর বাহিনীর অপারেশন ইন-চার্জ ও আশরাফুজ্জামান খান প্রধান জল্লাদ। ১৬ ডিসেম্বরের পর আশরাফুজ্জামান খানের নাখালপাড়ার বাড়ি থেকে তার একটি ব্যক্তিগত ডায়েরি উদ্ধার করা হয়, ওই ডায়েরিতে যেসব বুদ্ধিজীবীর নাম ও ঠিকানা পাওয়া যায় তাদের সবাইকে ১৪ ডিসেম্বর হত্যা করা হয়। আর চৌধুরী মঈনুদ্দীন ৭১ সালে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিল। সে অবজারভার ভবন হতে বুদ্ধিজীবীদের নাম ঠিকানা রাও ফরমান আলীকে পৌঁছে দিত। শহীদ বুদ্ধিজীবী মো. মুর্তজা ও সিরাজুল হকের ছেলে এনামুল হক অপহরণকারী এ দু’জনকে চিনতে পারেন। তারা তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। বর্তমানে বুদ্ধিজীবী হত্যা মামলার ফাঁসির দণ্ড পাওয়া এই আসামিদ্বয় চৌধুরী মাইনুদ্দীন লন্ডনে ও আশরাফুজ্জামান নিউইয়র্ক প্রবাসী। 

 একাত্তরের বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের পিছনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তদানীন্তন উপাচার্য ড. সৈয়দ সাজ্জাদ হোসায়েনসহ পাকিস্তানপন্থী বুদ্ধিজীবীদের সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে। ইতিহাসের অধ্যাপক ড. মোহর আলী ৮ জুলাই ‘লন্ডন টাইমস’ পত্রিকায় "পূর্ব পাকিস্তানে বাঙালিদের জীবনের নিরাপত্তা নেই" এই সংবাদের প্রতিবাদ জানান। এছাড়াও মার্কিন সেনাবাহিনীর সামরিক গোয়েন্দা হেইট এবং সিআইএ এজেন্ট ডুসপিক দুজনই রাও ফরমান আলীর সাথে মিলে প্রায় তিন হাজার বুদ্ধিজীবীর একটা তালিকা তৈরি করে। এ ঘটনাই প্রমাণ করে যে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অংশ।

১৪ ডিসেম্বর তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রায় ২০০ জনের মত বুদ্ধিজীবী লেখক, বিজ্ঞানী, চিত্রশিল্পী, কন্ঠশিল্পী, সকল পর্যায়ের শিক্ষক, গবেষক, সাংবাদিক, রাজনীতিক, আইনজীবী, চিকিৎসক ও প্রকৌশলী।

লেখক: আইনজীবী।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য