শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ অক্টোবর, ২০২০ ১৩:০১
আপডেট : ২০ অক্টোবর, ২০২০ ১৩:৫৫

পাক সেনা কর্মকর্তার বইয়ে ‘আজাদ কাশ্মীরে’ পাকিস্তানের বর্বরতার চিত্র

ফারাজী আজমল হোসেন

পাক সেনা কর্মকর্তার বইয়ে ‘আজাদ কাশ্মীরে’ পাকিস্তানের বর্বরতার চিত্র
ফারাজী আজমল হোসেন

দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশে সংগঠিত পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বর্বরোচিত আচরণ নিয়ে আলোচনা হলেই অনেকেই জানেনা এই বর্বরতা দেখেছে পাকিস্তানের অধিকাংশ অঞ্চলের মানুষ। সিন্ধু, বেলুচিস্তান, করাচির অধিবাসীদের থেকে শুরু করে এই অত্যাচার থেকে পাকিস্তানে বাদ যায়নি কোন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। দেশটিতে স্কুলে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক শিক্ষা দেয়া হয়। তাই বলে মুসলিমদের প্রতি অত্যাচার করা হয়না এমনটি নয়। বরং মুসলিম রাষ্ট্রটিতে ‘মুসলিমদের বিজয়ের জন্য’ নাম দেয়া ‘আজাদ কাশ্মীর’ অংশ নিজেদের দখলে রাখতে হত্যা করা হয় সেখানে থাকা মুসলিম অধিবাসীদের। পাকিস্তানের এক সামরিক কর্মকর্তার বই থেকে সেই বিষয়টি আরো স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠেছে।
মুসলিমদেরকেও যে পাকিস্তানি সেনারা বিন্দুমাত্র দয়ার দৃষ্টিতে দেখেনি তার বড় প্রমাণ বাংলাদেশের মানুষ। কাশ্মীরেও পাক-সেনাবাহিনী একই কায়দায় মুসলিমদের ওপর চালিয়েছিল গণহত্যা। ধর্ষিতা হয়েছেন কাশ্মীরের মা-বোনেরা। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল (অবসর প্রাপ্ত) আকবর খান তাঁর বই 'রেইডার্স ইন কাশ্মীর' বা কাশ্মীরের হামলাকারীরা বইতে সেইসবেরই বিবরণ তুলে ধরেছেন। কাশ্মীরে পাকিস্তানি বর্বরতার অনেক অজানা তথ্য ফুটে উঠেছে বইটিতে। বইটি পিডিএফ ফরম্যাটে ইন্টারনেটেও পাওয়া যাচ্ছে।

মেজর জেনারেল (অব.) আকবর খান বইটিতে স্বীকার করেছেন, পাকিস্তানি রাষ্ট্রনেতাদের নির্দেশেই কাশ্মীরে হামলা চালাতে বাধ্য হয় পাক-সেনা। কাশ্মীরের গোলমাল বাধানোর আসল ষড়যন্ত্র ইসলামাবাদের। সাবেক পূর্ব পাকিস্তানে যেভাবে রাজাকারদের কাজে লাগিয়ে দ্বন্দ্ব বাধানোর চেষ্টা তাঁরা করেছিল, ঠিক সেই কায়দাতেই কাশ্মীরেও পাক-বাহিনীর অশান্তির বীজ বোনে। অবসর প্রাপ্ত সেনাকর্তা তাঁর বইতে তুলে ধরেন কীভাবে সেনাবাহিনীকে কাশ্মীরকে অশান্ত করতে ব্যবহার করা হয়। বাংলাদেশে যেমন ছিল 'অপারেশন সার্চলাইট', তেমনি কাশ্মীরের অপারেশনের নাম ছিল 'গুলমার্গ'। বইটিতে তুলে ধরা হয়েছে বহু অজানা তথ্য। রয়েছে বিস্তারিত বিবরণ। বইটি পড়লে দূর হবে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের অনেক ধোঁয়াশা। কাশ্মীর দ্বন্দ্বেও নতুন দিকের আলোকপাত করা হয়েছে পাকিস্তানি ফৌজি কর্তার লেখাতে। আকবর বইতে সততার সঙ্গে স্বীকার করেছেন দেশভাগের পর কাশ্মীর সমস্যা তৈরি করা হয়। পাকিস্তানের সর্বোচ্চস্তরের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাই লাহোর আর রাওয়ালপিন্ডির ষড়যন্ত্র কার্যকর করতে কাশ্মীরে অশান্তির জন্ম দেয়। অর্থাৎ পাকিস্তানি রাষ্ট্রনায়কেরাই কাশ্মীরে অশান্তি বাধানোর মূল কারিগর।

১৯৪৭ সালে আকবর খান ছিলেন পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনীর পার্টিশন সাব-কমিটিতে। ফলে মহারাজা হরি সিং-এর সেনা নও পুলিশের যাবতীয় তথ্য তাঁর কাছে ছিল। সব মিলিয়ে সংখ্যাটি ছিল মাত্র ৯ হাজার। আর এটা জানা ছিল বলেই আকবর মাহারাজার বাহিনীকে পর্যদুস্ত করার বাড়তি সুবিধা পেয়েছিলেন। মহারাজা হরি সিং প্রথম থেকেই ভারতে যোগ দেওয়ার পক্ষে ছিলেন। কিন্তু পাকিস্তান প্রথম থেকেই চাপ দিতে থাকে। কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তান হুমকি দিতেও কার্পণ্য করেনি। জনমতের বিপরীতে গিয়ে পাকিস্তান তখনই বলেছিল, প্রয়োজনে গায়ের জোরে কাশ্মীর দখল করবে তাঁরা।
বইটিতে তুলে ধরা হয়েছে অনেক ঐতিহাসিক উপাদান। রয়েছে উপজাতিদের কাজে লাগিয়ে কাশ্মীর দখলে পাক-হামলার অনেক অকথিত উপাদান। কাশ্মীরের বিভিন্ন সীমান্তে সেই সময় পাক-হানাদারের কী ধরনের অত্যাচার চালিয়েছে তাও লেখা রয়েছে আকবরের বইটিতে। সাবেক ফৌজি কর্তার লেখাতেই জানা যায়, ১৯৪৭-৪৮ সালের প্রথম ৮ মাসে পাক-বাহিনী কাশ্মীরে কী ধরনের অত্যাচার চালায়। পাঠান-সহ অন্যান্য উপজাতিদের কাজে লাগানো হয় বর্বরতার জন্য। উপজাতিদের হিংস্র আচরণে লুণ্ঠিত হয় মানবাধিকার। তুলে ধরেন খুন, ধর্ষণ, লুঠতরাজের কাহিনী।  লুণ্ঠিত হয় বা-বোনেদের সম্ভ্রম। মুসলিমরাও ছাড় পাননি পাক-বাহিনীর অত্যাচার থেকে।  পরে ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাত থেকে কাশ্মীর উদ্ধার করার স্বপ্নে বিভোর পাকিস্তান একই ভাবে মানবাধিকার লুণ্ঠন করতে থাকে।

পাক-সেনাকর্তা বইটিতে লিখেছেন, ১৯৪৭-এর সেপ্টেম্বরেই কাশ্মীর দখলের ফন্দি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। সেই সময় তিনি উইপনস অ্যান্ড ইক্যুইপমেন্ট বিভাগের পরিচালক হিসাবে সেনা সদরে কর্মরত ছিলেন। ফলে গোলন্দাজ বাহিনীর শক্তি সম্পর্কে তাঁর সম্যক ধারনা ছিল। এই সময় বেশ কিছু অস্ত্র ইতালি থেকে আমদানি করা হয়। পরবর্তীতে সেই অস্ত্রই পাক-নেতাদের কথায় সেনাবাহিনী কাশ্মীরে বিলি করে।
কোথায় কোথায় অস্ত্রগুলি বিলি করা হয়েছে তার যাবতীয় তথ্য লেখক বইটিতে প্রকাশ করেছেন। সেই অস্ত্র বিলি করার যাবতীয় তথ্য উচ্চ পদস্থ সেনাকর্তাদের পাশাপাশি সরকারকেও পাঠিয়েছিলেন তিনি। এর কিছুদিন পরই তাঁকে লাহোরে পাক-প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলি খান ডেকে পাঠান। সেখানে কাশ্মীর নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। বৈঠকে ছিলেন, তখনকার পাক-অর্থমন্ত্রী গুলাম মহম্মদ (পরবর্তীতে তিনি গভর্নর জেনারেল হয়েছিলেন), মিঞা ইফতিখারুদ্দিন, জামান কিয়ানি, খুরশিদ আনোয়ার, সর্দার শওকত হায়াত খান প্রমুখ। খুরশিদ আনোয়ারকে উত্তর সীমান্তের কমান্ডের দায়িত্ব দেওয়া হয়। দক্ষিণের দায়িত্ব পান জামান কিয়ানি। পুরো অপারেশনের কমান্ড তুলে দেওয়া হয় সর্দার শওকত হায়াতের হাতে। এর কিছুদিন পরেই অবশ্য প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা নিযুক্ত হন আকবর।

কাশ্মীরে পাকিস্তানি হিংস্রতা আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয় ১৯৪৭ সালের ২২ অক্টোবর। পাকিস্তানি বাহিনী সীমান্ত অতিক্রম করে হানা দেয় মুজ্জাফরাবাদে। ২৪ অক্টোবর সেখান থেকে ডোগ্রা বাহিনী প্রত্যাহার করতে হয়েছিল। তারপর পাক-হানাদারেরা শ্রীনগরের উদ্দেশে অভিযান শুরু করে। ২৬ অক্টোবর তাঁরা বারামুলা দখল করে। সেখানকার ১৪ হাজার বাসিন্দার মধ্যে মাত্র ৩ হাজার বেঁচে ছিল এই হামলার পর। এর থেকেই বোঝা যায় স্থানীয় কাশ্মীরীদের খুন করাই ছিল পাক-হানাদারদের লক্ষ্য। ঠিক যেভাবে বাংলাদেশে ৩০ লাখ মানুষকে তাঁরা হত্যা করে। গণহত্যা চালাতে চালাতেই শ্রীনগর থেকে ৩০ মাইল দূরে পৌঁছে যায় পাকিস্তানি ঘাতকদের দল। অবস্থা বেগতিক দেখেই মহারাজা হরি সিং দিল্লিকে বার্তা পাঠান। ভারতীয় সেনার লিখিত সাহায্য চান তিনি। পরদিনই ভারতীয় সেনা পৌঁছে যায় কাশ্মীরে।
২৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় ফের পাক-প্রধানমন্ত্রী লাহোরে জরুরি বৈঠক ডাকেন। পাকিস্তানের অগ্রসর ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রতিরোধ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সেই সম্মেলনেই সেনা কৌশল বদল করে পাকিস্তান। আকবরকে পাঠানো হয় রাওয়ালপিন্ডি। তাঁর প্রস্তাব মেনেই ঠিক হয় জম্মু সড়ক অচল করে দেওয়া হবে। তাহলেই ভারত বাড়তি সেনা কাশ্মীরে পাঠাতে পারবেনা বলে পাকিস্তানিরা বিশ্বাস করতে শুরু করেন। মহম্মদ আলসি জিন্নাহ নিজেও সেই বিবেচনা থেকেই জম্মুতে হামলা চালানোর নির্দেশ দেন। এই বৈঠকের পর দিনই আকবর নিজেই বারামুলার পরিস্থিতি দেখতে রওনা হন। রাতে তিনি পৌঁছানোর আগেই পাক-বাহিনী শ্রীনগরের চার মাইল দূরত্বে পৌঁছে যায়।

পরদিন আকবর গোটা এলাকার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন। বুঝতে পারেন আরও বেশি করেন কামান ও অন্যান্য অস্ত্রশস্ত্র প্রয়োজন বাহিনীর। প্রয়োজন গোলন্দাজ বাহিনীর। সেইসব যোগার করতে তিনি ফিরে যান রাওয়াল পিন্ডি।   সেখানে কর্নেল জ্যাকবের সঙ্গে কথা বলে ট্যাঙ্কের বন্দোবস্তও করেন। কিন্তু ইতিমধ্যেই ভারতীয় সেনা কাশ্মীরে রণাঙ্গনে অবতীর্ণ হয়। তাঁরা আসতেই যুদ্ধক্ষেত্রে পীঠ দেখাতে শুরু করে পাকিস্তানি সেনা। করাচি থেকে আরও সেনা আনার চেষ্টা করছিলেন আকবর। কিন্তু তার আগেই পিছু হঠে পাক-বাহিনী। তার আগে অবশ্য প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র পছন্দের কাশ্মীরীদের হাতে তুলে দিয়ে যায় তারা।

বইটিতে পাক ফৌজিকর্তা তুলে ধরেছেন সেনাকর্তা ও রাজনৈতিক নেতারা কীভাবে পাকিস্তানকে ভুল পথে চালিত করেছে। তিনি লিখেছেন, কাশ্মীর নিয়ে তাঁদের নেতাদের অতিরিক্ত লোভ আর অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসই ডুবিয়েছে। কাশ্মীরে প্রচুর মানুষের মৃত্যু বা সম্পদ নষ্টের পরেও পাকিস্তানি সেনাপ্রধানের কোনও অনুশোচনা হয়নি বলেও তিনি মন্তব্য করেন। বইটি কাশ্মীরে তরুণদের অবশ্যই পড়া উচিত এবং বইটি পড়লেই কাশ্মীরের প্রকৃত ইতিহাস জানা যাবে। কারণ বারবার কাশ্মীরের ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছে। এবার পাকিস্তানি সেনাকর্তার লেখা বইতেই জানা যাচ্ছে প্রকৃত সত্য।

বইটি পড়া উচিত বাংলাদেশি তরুণদেরও। পাকিস্তানি সামরিক কর্তা নিজেই লিখেছেন তাঁদের বাহিনীর হিংস্রতার কথা। একটা বাহিনী কতোটা অমানবিক হতে পারে, সেটা বইটি পড়লেই বোঝা যায়। ১৯৭১ সালের অপারেশন সার্চ লাইট কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। প্রথম থেকেই চীনের বন্ধু এই দেশটি আসলে সেনাবাহিনীকে হানাদার হিসাবেই দেখতে চেয়েছে। পাকিস্তান জন্ম নেওয়ার সময় থেকেই তাঁর সেনাবাহিনীকে সেভাবেই তৈরি করেছে। কাশ্মীরের ঘটনা সেটাই প্রমাণ করে।
১৯৭১-এ পাঞ্জাবের সৈন্যদের দিয়েই বাঙালিদের হত্যা করার কাজে লাগায় ইসলামাবাদ। জন্মলগ্ন থেকেই সেনাবাহিনীকে হিংস্র হিসাবে গড়ে তুলতে চেয়েছিল পাকিস্তান। বাংলাদেশ পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর চক্ষুশূলে পরিণত হয় ১৯৪৭ সালের কিছুদিন পরেই। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনে পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠীর নির্বিচারে চালানো গুলির মূল কারণ এটি।
লুটেরা বা ধর্ষক হিসাবে পাকিস্তান সেনাবাহিনী নিজেদের দেশে যেমন পরিচিত তেমনি বিদেশেও একইভাবে চিহ্নিত। বইটি পড়লে বাংলাদেশে পাক-অত্যাচারের মতই বর্ণনা পাওয়া যাবে কাশ্মীরকে নিয়ে। বোঝা যায়, বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশি সেনা সুনাম কিনলেও পাকিস্তানের কেন এতো বদনাম। ইসলাম ধর্মের কথা বললেও পাকিস্তানিরা যে মুসলিমদেরও রেহাই দেয়না বাংলাদেশের মাটিতে ৩০ লাখ খুন ও ৩ লাখেরও বেশি ধর্ষণ তার বড় প্রমাণ।
বাংলাদেশের সঙ্গে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সৈন্যরা যা করেছে তা গত ৭০ বছর ধরে বেলুচিস্তানের সঙ্গে হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছিলেন অঞ্চলটির 'মুকুটহীন রাজা' বলে খ্যাত 'দ্য খান অব খালত' এইচ এইচ আমির আহমেদ সুলেমান দাউদ। সেখানে অবস্থা কতটা ভয়ংকর তার বর্ণনা বিগত বছরগুলোতে দিয়ে আসছে এই অঞ্চল থেকে বিভিন্ন দেশে পালিয়ে যাওয়া বেলুচিস্তানের অধিবাসীরা। কখনও সেনাবাহিনীর অত্যাচার, আর সেনা বাহিনী দিয়ে সম্ভব না হলে পাকিস্তান সেনা বাহিনী পালিত জঙ্গি গোষ্ঠী দিয়ে অত্যাচার। অগণিত গুম-খুন এবং হত্যার ইতিহাস এখানে মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয়। ভাইয়ের সামনে বোনকে উলঙ্গ করে রাখা হয় ঘণ্টার পর ঘণ্টা মিথ্যা জবানবন্দী আদায়ের জন্য।
বেলুচিস্তানের এই রাজা বাংলাদেশে সফরকালে জানিয়েছিলেন, পাকিস্তানে দুই ধরণের সৈন্য আছে। এক ইউনিফর্ম পরা সৈন্য এবং আরেকটি ইউনিফর্ম ছাড়া সৈন্য। পাকিস্তানি সৈন্য সরাসরি হত্যা করতে না পারলে এই ইউনিফর্ম ছাড়া সৈন্যদের প্রেরণ করে। পৃথিবী তাদের বিভিন্ন নামে চেনে। কখনও তারা লস্কর-ই-ওমর, কখনও তাহরিকে পাকিস্তান। কিন্তু বেলুচিস্তানের তাদের সবার কাজ একটি। আর তা হল, শোষণ।
ডন পত্রিকার একটি কলামে বলা হয়, বেলুচিস্তান থেকে কোন সাংবাদিকের জীবিত ফেরত আসাটাই এক ধরণের বিজয়। আর সেটাই প্রমাণ করে পাকিস্তানে সাধারণ মানুষের বাক স্বাধীনতার প্রকৃত চিত্র।
এদিকে একই রকম অত্যাচার চলছে পাকিস্তানের সিন্ধু অঞ্চলের অধিবাসীদের উপর। সেখানে বাধ নির্মাণ থেকে শুরু করে সিন্ধুর একটি দ্বীপ কেন্দ্রীয় সরকারের দখলে নেয়া সহ যাচ্ছে তাই আচরণ করে আসছে পাকিস্তান। এই অঞ্চলেও পাকিস্তানের জন্মলগ্ন থেকে চলছে অত্যাচার নিপীড়ন। পাকিস্তান অত্যাচার ও নিপীড়ন থেকে নিজেদের রক্ষা করতে ১৯৭০ সালে এই দুই অঞ্চলের মানুষের ভরসা ছিলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে উপর। কিন্তু বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এই অঞ্চলগুলোর ওপর নতুন করে চলে অত্যাচার।
'রেইডার্স ইন কাশ্মীর' সেই বর্বরতারই আরেকটি বড় প্রমাণ। অবসর প্রাপ্ত মেজর জেনারেল আকবর খান তাঁর বইটিতে প্রত্যক্ষদর্শী হিসাবে নয়, ১৯৪৭-এর পাক-বর্বরতার একজন প্রথমসারির সৈনিক হিসাবেই প্রকৃত সত্য তুলে ধরেছেন।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য